মঙ্গলবার, ২৮শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

মুরাদনগরে গাড়ি চালক থেকে কোটিপতি ইউপি চেয়ারম্যান!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৪, ২০২১
news-image

* নির্বাচিত হওয়ার আগের দিনেও পরিবার চলত গাড়ি চালানোর উপার্জন দিয়ে।
* বর্তমানে তার রয়েছে তিনটি প্রাইভেটকার যার একটিতে চড়েন তিনি নিজেই।
* বাড়িতে নির্মাণ করা হয়েছে কোটি টাকা ব্যায়ে বিলাসবহুল ভবন।
* মোটা টাকার বিনিময়ে ছেলেকে দিয়েছেন ব্যাংকে চাকুরী।

মুরাদনগর প্রতিনিধি:

পেশায় ছিলেন একজন গাড়ি চালক। ২০১২ সালে জেলার এক নেতার হাত ধরে আসেন রাজনীতির মাঠে। শুরু হয় গাড়ী চালানোর পাশা-পাশি নেতার কাছে যাওয়া আসা। যে কোন রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতেন চালক হিসেবে, সেই ভাড়া আদায় করতেন নেতাকর্মীদের কাছ থেকে। কারণ ভাড়া না পেলে সংসার চালানো দায় হয়ে যেতো তার। ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে সেই নেতার কৃপায় আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচিত হন ইউপি চেয়ারম্যান। পাল্টাতে থাকে জীবন যাত্রার মান। শুরু হয় বিলাস বহুল জীবন যাপন। বাড়িতে নির্মাণ করেছেন প্রায় কোটি টাকা ব্যায়ে ডুপ্লেক্স ভবন। ক্রয় করেছেন তিনটি প্রাইভেটকার যার একটিতে চড়েন তিনি নিজেই। প্রায় ১৮ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ছেলেকে দিয়েছেন ব্যাংকে চাকুরী। প্রতিদিন পরেন নতুন জামা।

বলছি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার চাপিতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল কাইয়ুম ভূইয়ার কথা। একজন সামান্য ড্রাইভার থেকে হঠাৎ করে বিলাস বহুল জীবনযাপন দেখে সাধারণ মানুষের অভিযোগের অন্ত নেই। তারা বর্তমানে আবদুল কাইয়ুমকে আলাদীনের চেরাগ পাওয়া চেয়ারম্যান বলেই ডাকে।

ওই ইউনিয়নের রহিম, আলাউদ্দিন, কিবরিয়াসহ একাধিক বাসিন্দা জানায় ইউনিয়ন পরিষদে প্রতিটি জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য গুনতে হয় ৫শ থেকে দেড় হাজার টাকা। আর যে কোন ভাতার কার্ড করাতে হলেও যেতে হয় চেয়ারম্যানের স্ত্রী মমতাজ বেগমের কাছে। সেখানে তাকে দিতে হয় ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা। টাকা নেই তো ভাতার কার্ড নেই।

পরিষদের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ইউপি সদস্য জানান, চেয়ারম্যান আবদুল কাইয়ুম সরকারি সকল বরাদ্দের কোন প্রকার হিসেব আমাদেরকে জানায় না। তাহার ইচ্ছেমত প্রকল্পের নাম দিয়ে বরাদ্দ নিয়ে আসেন। আমাদের তেমন কোন কাজ দেয় না। তিনি তাহার পছন্দের একজন মহিলা মেম্বার ও ২জন পুরুষ মেম্বারের মাধ্যমে অধিকাংশ প্রকল্পের কাজ করান। আমাদেরকে মাঝে মধ্যে কোন প্রকল্প দিলেও সেখান থেকে বিভিন্ন অফিসের নামে প্রতি লাখে ৩০হাজার টাকা করে কেটে নেন।

তবে সকল অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাইয়ুম বলেন, আমার কোন ধরনের ব্যবসা কিংবা উপর্জনের ব্যবস্থা নেই এটা সত্য। তবে আমি যা কিছু করেছি বাড়িতে ভবন নির্মাণ, গাড়ি ক্রয়, ছেলেকে চাকুরী দেয়া, সবকিছুই আমার পৈত্রিক ওয়ারিশ সূত্রে পাওয়া জমি বিক্রয় করে করেছি। আমি যে জমি গুলো বিক্রয় করেছি তা দেখলে আপনার নিজেরও চোখের পানি চলে আসবে।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ কামরুল হাসান মুঠোফোনে বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যই সেই জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন