বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

রেফারির ভুল সিদ্ধান্তে ২০১৪ বিশ্বকাপ হাতছাড়া হয় আর্জেন্টিনার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৮, ২০২২
news-image

স্পোর্টস ডেস্ক:

১৪ই জুলাই ২০১৪, এই তারিখ কখনো ভুলবে আর্জেন্টিনা সমর্থকরা। ব্রাজিলে এদিনেই বিশ্বকাপ ফাইনালে শিরোপা স্বপ্ন চূর্ণ হয়েছিল লিওনেল মেসিদের। অথচ নির্ধারিত সময়ে গঞ্জালো হিগুয়েনের জালে পাঠানো গোলটা অফসাইডে বাদ না পড়লে সোনার ট্রফিকে ঠোঁট ছোঁয়াতো আলবেসেলিস্তেরা। কিংবা ম্যাচের ৫৭তম মিনিটে ডি-বক্সে হিগুয়েনকে করা ম্যানুয়েল নয়্যারের ফাউলে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত আসলেই হয়তো তৃতীয় বিশ্বকাপ উঠতো আর্জেন্টিনার শোকেসে। রেফারি সেটিকে ফাউল হিসেবে গণ্য না করলেও তা মেসিদের প্রাপ্য ছিল বলে মনে করেন জার্মানিরই বিশ্বকাপজয়ী তারকা লোথার ম্যাথাউস। যেকারণে ১৯৯০ বিশ্বকাপের জার্মানির এই অধিনায়ক মনে করেন, ২০১৪ ফিফা ওয়ার্ল্ডকাপটা ছিল আর্জেন্টিনার প্রাপ্য।

কোপা আমেরিকার পর ফিনালিসিমা জয় করেছে আর্জেন্টিনা। ১১ মাসের ব্যবধানে দুই শিরোপা স্বাদ পাওয়া আর্জেন্টাইনরা রয়েছে ৩২ ম্যাচে অপরাজিত। এত প্রাপ্তির পরও ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের আসরটা নিশ্চিতভাবে পোড়ায় মেসিদের। ফাইনালে বারবার সুযোগ তৈরি করেও অতিরিক্ত সময়ে পাশার উল্টো দান দেখে আর্জেন্টিনা। বদলি হিসেবে নামা মারিও গোৎজের জাদুকরী গোলে শিরোপা বঞ্চিত হয় আলেসান্দ্রো সাবেলার শিষ্যরা।

লোথার ম্যাথাউস জানিয়েছেন, সে বিশ্বকাপটা আর্জেন্টিনারই জেতা উচিত ছিল।

তার নিজের দেশ ভাগ্যবান ছিল বলেই সে বিশ্বকাপটা জিতেছে। বিশ্বকাপ ফাইনাল ম্যাচটির ৫৭ মিনিটে বাতাসে ভেসে নিজেদের ডি-বক্সে আসা বলকে পাঞ্চ করতে গিয়ে আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার হিগুয়েনকে হাঁটু দিয়ে ধাক্কা দিয়েছিলেন জার্মান গোলকিপার ম্যানুয়েল নয়্যার। আঘাত পেয়ে মাটিতে কাতরাচ্ছিলেন হিগুয়েন। তবে ইতালিয়ান ম্যাচ রেফারি নিকোলা রিজ্জোলি মেসিদের আবেদনে দেননি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত। ম্যাথাউসের মতে, নয়্যার ফাউল করেছিলেন হিগুয়েনকে। পেনাল্টি প্রাপ্য ছিল আর্জেন্টিনার। ইনফোবে আমেরিকার ক্রীড়া সাংবাদিক রদ্রিগো দুবেনকে দোহায় এক সাক্ষাৎকারে লোথার ম্যাথাউস বলেন, ‘ফাইনালে আর্জেন্টিনার জেতা উচিত ছিল। ম্যানুয়েল নয়্যারের সে ফাউলে পেনাল্টি দেয়া উচিত ছিল রেফারির। কিন্তু আমরা ভাগ্যবান ছিলাম (রেফারি পেনাল্টি না দেয়ায়)। খুব বড় এক অপরাধ হয়েছিল সেদিন আর্জেন্টিনার বিপক্ষে। নয়্যারের কারণে সেদিন পেনাল্টি হজম করতে হতো আমাদের।’

আর পড়তে পারেন