Tag Archives: কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ১২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

কুমিল্লায় নাশকতা মামলায় গ্রেফতার ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

নাশকতা মামলায় মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৩টায় নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি কুমিল্লা জামায়াতের রোকন পদস্থ, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি এবং কুমিল্লা মর্ডান হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

কুমিল্লা ডিবি পুলিশের ওসি রাজেশ বড়ুয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

কুমিল্লায় অতিথি পাখিতে মুখর পুকুর-দিঘি

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লায় ঝাঁকে ঝাঁকে আসছে অতিথি পাখি। বিশেষত শহরতলীর কয়েকটি পুকুর-দিঘিতে নামছে নানা রঙের অতিথি পাখি। কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার চম্পক নগর এলাকার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে একটি পুকুরে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি নেমেছে।

সেখানে গিয়ে দেখা যায়, পুকুরের উপর ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখি উড়ে বেড়াচ্ছে। পাখির কিচির-মিচির শব্দে মুখরিত চারপাশ। কিছু পাখি পুকুরে ভাসছে, পাশাপাশি কচুরিপানার ফাঁকে খাবার সংগ্রহ করছে। বিকালে পুকুর পাড়ে গিয়ে পাখির প্রদর্শনী দেখছে কিশোর-তরুণের দল।

পুকরের মালিক গাজী রিয়াজ মাহমুদ বলেন, গত তিন বছর ধরে অতিথি পাখিদের অভয় আশ্রম হয়ে উঠেছে এ পুকুরটি। পাখিগুলোর কেউ যেন তাদের ক্ষতি না করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখি।

ওয়াইল্ড ওয়াচ ইনফো কুমিল্লার পরিচালক জামিল খান বলেন, কুমিল্লা নগরীর ধর্মসাগর,ছোটরা জলায় আগে অতিথি পাখি নামতো। পরিবেশ নষ্ট হওয়ায় সেখানে পাখি নামেনা। শীতপ্রধান দেশের পাখিরা অতিথি হয়ে আসে আমাদের দেশে। একটু উষ্ণতার আশায় হাজার হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে চলে আসে। খুঁজে নেয় নির্জন স্থান, জলাশয় ও বনাঞ্চল। দুর্ভাগ্যজনক হল, অতিথি পাখি এদেশে অতিথি হয়ে থাকতে পারছে না। শিকারীর হাতে তারা ধরা পড়ছে। পাখি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। কুমিল্লার পুকুর গুলোতে পাখি নামার পরিবেশ করে দেয়া উচিত।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক অমিতাভ কুমার বাড়ৈ বলেন, সাইবেরিয়া,অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, ফিনল্যান্ড, তিব্বতের উপত্যকা অঞ্চল থেকে প্রতিবছর অতিথি পাখি আসে। পাখি গুলোর মধ্যে রয়েছে বালিহাঁস, রাজহাঁস, মানিকজোড়, গাংকবুতর, চিনাহাঁস, নাইরাল ল্যাঙ্গি, ভোলাপাখি, হারিয়াল, বনহুর, বুরলিহাস ও সিরিয়া পাতিরা প্রভৃতি। পাখি আবর্জনা খেয়ে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। এছাড়া এর পায়খানাতে ফসফরাস রয়েছে। যা সবজি উৎপাদনে সহায়ক। পাখি রক্ষায় সবার ভূমিকা প্রয়োজন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে দীর্ঘদিন ধরে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির ঘটনা ঘটেই চলেছে। অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ কেলেঙ্কারিসহ নানা ঘটনায় জড়িয়ে কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক রতন কুমার সাহাও বিদায় নিয়েছেন কলেজ থেকে। এসব অভিযোগে বদলি করা হয়েছে কলেজের হিসাব রক্ষক আবদুল হান্নানকেও। পরিবর্তন এসেছে শিক্ষক পরিষদে। বর্তমানে এসব অর্থ কেলেঙ্কারির ঘটনার তদন্ত করছে দুদক। এরপরও থেমে নেই অনিয়ম।

বর্তমানে অভিযোগ উঠেছে, কলেজের রসায়ন, পদার্থ ও গণিত বিভাগের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ব্যবহারিক চূড়ান্ত পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি আদায় করছেন শিক্ষকরা। অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে ব্যবহারিক পরীক্ষা বাবদ রসায়ন বিভাগে ৩শ, পদার্থ বিভাগে ৪শ এবং গণিত বিভাগ থেকে ৫২০ টাকা অতিরিক্ত আদায় করছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোর শিক্ষকরা। তবে সংশ্লিষ্ট বিভাগের শিক্ষকদের দাবি শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক ক্লাস করানো হয়েছে। এসব টাকা ওই ক্লাসের ফি হিসেবে নেয়া হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১৯ ফেব্রুয়ারি পদার্থ, ২৫ ফেব্রুয়ারি রসায়ন বিভাগে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। আগামীকাল ২৭ ফেব্রুয়ারি গণিত বিভাগে ব্যবহারিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এসব পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কোনো প্রকার রশিদ ছাড়াই নগদ টাকার মাধ্যমে ব্যবহারিক খাতা জমা নিচ্ছে উক্ত বিভাগগুলো। বিভাগের শিক্ষকদের এমন কর্মকাণ্ডে শিক্ষার্থীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কলেজের রসায়ন বিভাগের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, শিক্ষকরা ব্যবহারিক বিষয়ে ক্লাস নিয়েছেন, এটা সত্য। তবে এসব ক্লাসের বিনিময়ে আলাদা কোনো ফি নেয়ার নিয়ম নেই।

তাদের দাবি, ব্যবহারিক ক্লাসের ফি, বিভাগের উন্নয়ন ফি সহ নানা খাতের কথা বলে অন্যায়ভাবে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ব্যবহারিক পরীক্ষার পূর্বেই বাধ্যতামূলক ফি আদায় করছে বিভাগের শিক্ষকরা। টাকার বিনিময়ে শিক্ষকরা ব্যবহারিক পরীক্ষায় নম্বর দিয়ে থাকেন। আর টাকা না দিলে ব্যবহারিক পরীক্ষা ও কলেজের অন্যান্য অভ্যন্তরীণ পরীক্ষায় নম্বর কম দেয়া হবে বলে তাদের জানানো হয়। এই ভয়ে সবাই টাকা দিতে বাধ্য হয়।

কলেজের বিভিন্ন বিভাগের একাধিক শিক্ষার্থীর অভিযোগ, অনেক আগ থেকেই রসায়ন বিভাগসহ বিজ্ঞান অনুষদের প্রত্যেকটি বিভাগে শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক পরীক্ষায় নম্বর কম দেয়ার ভয় দেখিয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে আসছেন শিক্ষকরা। নিজ নিজ বিভাগের শিক্ষকরা এই টাকা পরীক্ষার দিন ভাগবাটোয়ারা করে থাকেন। শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময়ে দেখেছেন, টাকা দিতে কোনো শিক্ষার্থী আপত্তি জানালে তাকে পরীক্ষায় প্রাপ্য যথাযথ নম্বর দেয়া হয় না। তাই নম্বর কম পাওয়ার ভয়ে শিক্ষার্থীরা এসব অনিয়মের কথা প্রকাশ করতে ভয় পান।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক রুহুল আমিন ভূঁইয়ার মোবাইলে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ করা হলেও কল ধরেননি তিনি।

তবে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের বিষয়টি স্বীকার করেছেন কলেজের পদার্থ বিভাগের প্রধান বিজয় কৃষ্ণ রায়। তিনি দাবি করেছেন, ব্যবহারিক পরীক্ষার জন্য কলেজ থেকে যে অর্থ ধার্য করা হয়, সেই টাকা দিয়ে পরীক্ষা চালিয়ে নিতে কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। তাই পরীক্ষার্থীদের সুবিধার্থে ৩শ টাকা হারে নেয়া হচ্ছে। তবে যে শিক্ষার্থী ৪শ টাকা নেয়ার অভিযোগ করেছে, সে ভুল অভিযোগ করেছে বলে দাবি করেন তিনি।

এদিকে, রসায়ন বিভাগের প্রধান সাইফুল ইসলাম দাবি করেছেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা মোতাবেক টাকা নেয়া হচ্ছে। এর বাইরে কোনো অতিরিক্ত অর্থ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা হয় না।

আর শিক্ষার্থীদের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন গণিত বিভাগের প্রধান মুনির আহম্মেদ। তিনি জানান, ৫২০ টাকা নেয়ার যে অভিযোগ উঠেছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা।

গণিত বিভাগের শিক্ষকদের নির্দেশে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করছেন ওই বিভাগের কর্মচারী মো. ওজায়ের। মো. ওজায়ের বলেন, ‘গণিত বিভাগের ব্যবহারিক খাতা জমা দেয়ার সঙ্গে ৫২০ টাকাও জমা দিতে হবে শিক্ষার্থীদের। আর টাকা না দিলে আমি খাতা জমা নিতে পারব না।’

সূত্রঃ বার্তা২৪

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের খেলার মাঠ এখন কচুক্ষেত!

 

অনলাইন ডেস্কঃ

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের (কুভিক) খেলার মাঠটি যেন কচু ক্ষেতে পরিণত হয়েছে। শুধু কচু গাছই নয়, সারা বছর মাঠটি পানিতে ডুবে থাকায় মশার উপদ্রবও বেড়েছে। ফলে খেলার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

কলেজের কিছু ছাত্র  বলেন ‘আমাদের কলেজে কোনও মাঠ আছে নাকি? কলেজে ভর্তি হয়ে অামরা তো তাকে জলাশয় ভেবেছিলাম।’

১৮৯৯ সালে রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায়ের প্রতিষ্ঠিত ও নবাব ফয়জুন্নেছার ১০ হাজার টাকার অনুদানে নির্মিত হয় কলেজটি। প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই কলেজের সার্বিক অবস্থার অবকাঠামোগত উন্নয়ন হলেও ধর্মপুরে অবস্থিত ডিগ্রি শাখার একমাত্র বিনোদনের কেন্দ্র বিশালাকৃতির খেলার মাঠটি প্রায় অনেক বছর ধরে হাঁটু সমান পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে। যার কারণে দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে ক্যাম্পাসের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। বিনোদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রায় ২৮ হাজার শিক্ষার্থী।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কলেজ অ্যাকাডেমিক কাম অ্যাক্সামিনেশন হল, ম্যানেজমেন্ট, ইকোনমিক্স ও অডিটরিয়াম ভবন মাঠের দক্ষিণ পাশ ঘেরা পানি অপসারণের ড্রেনটি সরাসরি কলেজের পূর্বদিকে অবস্থিত বিসিকের সঙ্গে যুক্ত। যার কারণে বিসিকের বিষাক্ত ময়লা পানি ড্রেন দিয়ে কলেজের পশ্চিম পাশে অবস্থিত তোয়া হাউজিং এলাকায় গিয়ে জমা হতো। গত কয়েক বছরে তোয়া হাউজিংটি ভরাট হওয়ার কারণে এবং ড্রেনটি ক্রমান্বয়ে সরু হওয়ার কারণে পানি নিষ্কাশিত হতে পারছে না। অপরদিকে কলেজ এলাকা থেকে তার আশপাশের এলাকার পানি কলেজ মাঠে এসে জমা হয়।

ছাত্ররা আরো বলেন, ‘এত বিশাল মাঠ থাকার পরও খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হয়েছি। কোনও ধরনের প্রতিযোগিতামূলক খেলাও খেলতে পারছি না।’, ‘এই মাঠের বিষাক্ত পানি আর ময়লা আবর্জনার কারণেই কলেজের একমাত্র আবাসিক ছাত্রাবাস কবি নজরুল হলে সারাবছরই মশার অত্যাচার সহ্য করতে হচ্ছে। প্রশাসনের উচিত এই পানি অপসারণে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া।’

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে এক ছাত্রকে কুপিয়ে আহত করেছে দুর্বৃত্তরা, ঢাকায় স্থানান্তর

 

মাছুম কামাল:

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ ক্যাম্পাসে সুপ্রিয়তম রায় প্রিতুল (২০) নামে এক কলেজ ছাত্রের হাত ও পায়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দুর্বৃত্তরা।

মঙ্গলবার (আগস্ট) সন্ধ্যায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের উচ্চমাধ্যমিক শাখার ক্যাম্পাসে এই হামলার ঘটনা ঘটে। আহত প্রিতুল কুমিল্লা মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও কুমিল্লা অজিতগুহ কলেজের সাবেক জিএস সঞ্জয় রায়ের ছেলে। সে ২০১৮ সালে ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট শেষ করে বর্তমানে ঢাকায় জার্মান ভাষা শিক্ষা ইনস্টিটিউটে পড়া লেখা করছেন।

এ ঘটনায় প্রিতুলের বাবা সঞ্জয় রায় জানান, মঙ্গলবার বিকেলে প্রিতুল ভিক্টোরিয়া কলেজ সংলগ্ন অন্নেষা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সেন্টারে বন্ধুদের সাথে ক্লাস করতে যায়। ক্লাস শেষে সন্ধ্যায় ভিক্টোরিয়া কলেজের উচ্চমাধ্যমিক ক্যাম্পাসে গেলে এক দল দুর্বৃত্ত হঠাৎ তার উপর হামলা চালায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা তার ডান হাত ও দু’পা সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যায়।

পরে, সহপাঠিরা তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে কুমিল্লা কোতয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল হক বলেন, ‘কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে আহত করার খবর পেয়ে রাত ৯টার দিকে ভিক্টোরিয়া কলেজ ক্যাম্পাস পরিদর্শন করেছে পুলিশ। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের আটক করতে পুলিশ কাজ করছে বলে তিনি জানান।’

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে আর্থিক কেলেঙ্কারি, ১১ মাসে কয়েক কোটি টাকা হরিলুট

ডেক্স রিপোর্টঃ
প্রায় ২৯ হাজার শিক্ষার্থীর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে গত এক বছরে কয়েক কোটি টাকা হরিলুটের ঘটনা ঘটেছে। প্রয়োজন না থাকা সত্ত্বেও কলেজ ফান্ডকে শক্তিশালী করার নামে বিভিন্ন খাতে দফায় দফায় ফি বৃদ্ধি করা হয়েছে। অন্যদিকে সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে কলেজের সাবেক অধ্যক্ষসহ কলেজের কয়েকজন শিক্ষক-কর্মচারী মিলে ওইসব ফান্ডকে প্রায় খালি করে দিয়েছে। কলেজের ১৫/১৬টি একাউন্টের গত ১১ মাসের তথ্য বিশ্লেষণ করে আয়-ব্যয়ে প্রচুর অনিয়ম পাওয়া গেছে।

সবচেয়ে বেশি টাকা লোপাট হয়েছে মাস্টার রোল কর্মচারী তহবিলে। ব্যাংক বিবরণে জানা যায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১৭৫টি চেকের মাধ্যমে ২ কোটি ৫৮ লাখ ১৬ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়। ঈদ ও বৈশাখী ভাতা মিলিয়ে ১২টি চেকে উত্তোলিত ১ কোটি ২৪ লাখ ৬৬ হাজার ২৩৩ টাকা দিয়ে কর্মচারীদের বেতন-বোনাস পরিশোধ সম্ভব হলেও বাকি ১৬৩টি চেকে ১ কোটি ৩৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা বাড়তি উত্তোলন হয়েছে তা নজীর বিহীন।

কলেজের অন্ত:ক্রীড়া ও বহি:ক্রীড়া খাতে সরাসরি অনিয়মের তথ্য পাওয়া গেছে। কলেজের একটি সূত্রে জানা গেছে, গত ১১ মাসে কলেজে কোনো প্রকার ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়নি। অথচ এ সময়ে দুটি খাত থেকে ৬৭টি চেকের মাধ্যমে ২৪ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে।
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, যেসব কলেজে ¯œাতক (সম্মান) চালু আছে ওইসব কলেজে প্রতি বিষয়ে ৬ হাজার টাকা করে মোট চার বছরের অধিভুক্তি ফি ও ¯œাতকোত্তরে প্রতি বিষয়ে ৬হাজার টাকা করে অধিভুক্তি আদায়ের নিয়ম রয়েছে। সে হিসেবে সর্বমোট ৬ লাখ টাকা কলেজ পরিশোধ করার কথা রয়েছে। কিন্তু ১১ মাসে এ খাত হতে ২৫ লাখ ২৯ হাজার ৫৪৬টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। অর্থাৎ অধিভুক্তি ফি প্রদান করা হলেও এ খাতে ১৯ লাখ টাকার বেশি উত্তোলন করা হয়েছে।

পরিবহন খাতেও ব্যাপক অনিয়মের তথ্য পাওয়া গেছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১১ মাসের তেলের খরচ বাবদ নুরুল হুদা ফিলিং স্টেশনকে ৮ লাখ ৭ হাজার ৯৭টাকা প্রদান করা হয় এবং গাড়ি ভাড়া বাবদ সালাউদ্দিন ও খোকন নামে দু’জন ব্যক্তিকে ৫৯ লাখ ৫১ হাজার ৮৩১ টাকা প্রদান করা হয়। এ দুই খাতে ২০টি চেকে সর্বমোট ৬৫ লাখ ৫৮ হাজার ৯২৮ টাকা প্রদান করা হয়েছে। এ সময়ে এ খাতে আরো ৫২টি চেকে ২২ লাখ ৯০ হাজার ৮৮৯ টাকা বাড়তি উত্তোলন করা হয়। যার মধ্যে কিছু টাকা ১টি বাস ও ২টি মাইক্রোবাস মেরামত বাবদ খরচ হয়। এছাড়া কলেজের ১টি মাইক্রোবাস ভাড়া দিয়ে যে আয় হয় এবং কলেজের বিভিন্ন কমিটি থেকে পরিবহন খাতে আদায়কৃত অর্থের হিসাব ব্যাংক বিবরণে জানা যায়নি। সে অনুসারে গত ১ বছরে এ খাতে প্রায় ২৫ লাখ টাকা অনিয়ম হয়েছে। এদিকে ভাড়া গাড়ি পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে বিসমিল্লাহ পরিবহন। নিয়ম অনুসারে কোনো ব্যক্তির নামে চেক প্রদান করার সুযোগ নেই। অথচ অদৃশ্য কারণে প্রতিষ্ঠানকে চেক না দিয়ে ভাড়া বাবদ ব্যক্তিকে চেক প্রদান করে আসছে কলেজ। এ বিষয়ে পরিবহন কমিটির দায়িত্বে থাকা শিক্ষক ও কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর বিজয় কৃষ্ণ রায় জানান, ‘গাড়ির জ্বালানি ও ভাড়ার খরচ আমরা ফান্ড থেকে চেকের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে থাকি। কতদিন গাড়ি চলল, সে হিসেবে তারা কি ডিমান্ড করে- সে অনুযায়ী ওই টাকা প্রদান করা হয়। এর বাইরে কোনো টাকা উত্তোলন হয় কিনা তা আমার জানা নেই।’

অনিয়মের আরেকটি খাত ছাত্রসংসদ। কলেজে ছাত্রসংসদ নেই। গত ২০ বছর নেই ছাত্রসংসদ নির্বাচন। তারপরও এ ফান্ড থেকে নিয়মিত টাকা উত্তোলিত হচ্ছে। গত ১১মাসে এ খাত থেকে জাতীয় দিবস পালন করার জন্য সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের ৫টি চেকে ২ লাখ ৯২ হাজার ৪০০ টাকা প্রদান করা হয়। ব্যাংক থেকে ১১টি চেকে বাড়তি তোলা হয় ৩ লাখ ৪১ হাজার টাকা। এ বাড়তি টাকা কেন তোলা হয়েছে তার কারণ নির্দিষ্ট নয়। এদিকে জাতীয় দিবস পালন ও অফিসের আপ্যায়ন বাবদ কলেজে বিবিধ ফান্ড নামে আরেকটি খাত যুক্ত আছে। এ ফান্ড থেকে ৩৩ লাখ ৭১ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়। তা থেকে শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর বিজয় কৃষ্ণ রায়কে ২ লাখ ৫৫ হাজার টাকা ও সাবেক মহিলা সম্পাদক নিলুফার সুলতানাকে ৩৫ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। বাড়তি উত্তোলন করা হয় ৩০ লাখ ৯১ হাজার টাকা। যা কোথায় ব্যয় হয়েছে তা নির্দিষ্ট নয়।
ল্যাবেরটরি ফান্ডে ৫৪টি চেকে ২০ লাখ ৪৫ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এ টাকা থেকে ৩ লাখ ৯০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন কয়েকজন শিক্ষক। বাকি ১৬ লাখ ৫৫ হাজার টাকা উত্তোলন হয় কয়েকজন অফিস সহায়ক দ্বারা! ল্যাবেরটরি ফান্ডের বিশাল পরিমাণ অর্থ কেন অফিস সহায়ক দ্বারা উত্তোলন করা হয়েছে তা নিয়েও চলছে বিস্তর সমালোচনা।

১১ মাসে ব্যবহারিক পরীক্ষার ফি হতে ৩০ লাখ ৬৫ হাজার টাকা উত্তোলন হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষার সাথে সরাসরি সংশ্লিষ্ট এমন কয়েকজন শিক্ষককে এ খাত থেকে ৩ লাখ ৬০ হাজার ১৬০ টাকা দেয়া হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট নয় এমন দুই জন শিক্ষককে দেওয়া হয় ১ লাখ ২২ হাজার ৮৮০ টাকা। এছাড়া এ খাতের সাথে সংশ্লিষ্ট নয় এমন একটি খাতে এখান থেকে পরিশোধ করা দেড় লাখ টাকার বেশি। অবশিষ্ট ২৪ লাখ ২৯ হাজার টাকা অফিস সহায়কদের দ্বারা উত্তোলন করা হয়। ফলে বিশাল অঙ্কের অর্থ এ খাত থেকে শিক্ষক-কর্মচারীদের যোগসাজশে লুট হয়েছে।
কলেজ উন্নয়নখাতে বিগত অর্থবছরে ৪৫ লাখ ৯৭ হাজার ২২৫টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। ফান্ডে অবশিষ্ট আছে ৮২ হাজার ৭৬৪ টাকা। গত ১১ মাসে কলেজে দৃশ্যমান কোনো উন্নয়ন কাজ না করা হলেও উন্নয়নের জন্য এ টাকা তোলা হয়। একটি সূত্রে জানা যায়, কলেজে মুক্তমঞ্চ নির্মাণের জন্য উচ্চমাধ্যমিকের নিউহোস্টেলের পুরনো ইট ব্যবহার করা হয়। ২৪*৩২’’ ফুট মাপের একটি মুক্তমঞ্চ নির্মাণে দেড় লাখ টাকার বেশি খরচ না হলেও এ কাজে সাড়ে সাত লাখ টাকা খরচ দেখানো হয়েছে! তাছাড়া ৫ লাখ টাকার বেশি বরাদ্দের কাজ করার জন্য দরপত্র আহ্বানের বিধান থাকলেও তা মানা হয়নি। এ বিষয়ে মুক্তমঞ্চ নির্মাণ কমিটির আহ্বায়ক তপন ভট্টাচার্য জানান, ‘মুক্তমঞ্চ নির্মাণে কত টাকা খরচ হয়েছে তার সঠিক তথ্য এ মুহূর্তে আমার কাছে নেই। মুক্তমঞ্চে অনেক কাজ হয়েছে। তবে আমার কাছেও মনে হয় না এখানে সাড়ে সাত লাখ টাকা খরচ হওয়া সম্ভব! এগুলো অফিস মেনটেইন করে।’ এছাড়া কলেজে টুকাটুকি উন্নয়ন কাজ হলেও তা ১০ লাখের বেশি হওয়ার কথা নয়। সে হিসেবে প্রায় ৩৫ লাখ টাকা গত ১১ মাসে এ খাত থেকে বাড়তি তোলা হয়েছে।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে এ অর্থবছরে (২০১৮-১৯) ২৫ লাখ ৮৯ হাজার টাকা তোলা হয়েছে। এছাড়া উচ্চমাধ্যমিকের প্রতি শিক্ষার্থী থেকে ই-অ্যাটেনডেন্স বাবদ আরো ২৫০টাকা করে নগদ প্রদান করে এবং প্রতিটি বিভাগ নিজস্ব তহবিল থেকে ওয়াইফাইয়ের সার্ভিস চার্জ প্রদান করে। কলেজ কর্তৃপক্ষ দুই শাখার চারটি ওয়াইফাই লাইন ও ওয়েবসাইট ভাড়া বাবদ বিল প্রদান করা ছাড়া অন্য কোন বিল এখাত থেকে আদায় করার কথা না। কিন্তু এত টাকা কোথায় খরচ করা হয়েছে তা নিয়ে যথেষ্ঠ সন্দেহ রয়েছে। এ ফান্ডে রয়েছে মাত্র ৮৮ হাজার ৮৮৯ টাকা।

১১ মাসে শিক্ষসফর খাতে তোলা হয়েছে ১৬ লাখ ৩৯ হাজার ৬০০ টাকা। শিক্ষাসফরের জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ আলাদাভাবে চাঁদা তুলে থাকে। এ খাতে খরচ বাবদ প্রতি বিভাগকে যদি ২৫ হাজার টাকা করেও দেওয়া হয়, তাহলেও আরো ৯ লাখ ৩৯ হাজার টাকা বাড়তি উত্তোলন করা হয়।
ম্যাগাজিন প্রকাশের জন্য ১১ মাসে বিভিন্ন বিভাগকে দেওয়া হয়েছে ২ লাখ ৩৯ হাজার টাকা। এ বছর উচ্চমাধ্যমিকে একটি ম্যাগাজিন প্রকাশিত হয়। সব মিলিয়ে ৬ লাখ টাকাও যদি খরচ হয়, তাহলে আরো ৭ লাখ ৪৩ হাজার টাকা এ খাতে খরচ বাবদ বাড়তি তোলা হয়েছে।

দুর্নীতির আরেকটি খাত মসজিদ। প্রতি ছাত্র থেকে ভর্তি ও ফরম পূরণের সময় রসিদের মাধ্যমে ১০০ ও বিনা রসিদে ২০০ টাকা করে সর্বমোট ৩০০ টাকা তোলা হয়। বর্তমানে মুসলিম ও অমুসলিম মিলিয়ে কলেজে ছাত্র আছে প্রায় ২৯ হাজার। ফরম পূরণ করে প্রতিবছর প্রায় ৪৫ হাজার ছাত্র। যদি ন্যূনতম হিসেবে গড়ে ২০ হাজার ছাত্র থেকে প্রতি বছর এ টাকা উত্তোলন হয়, সে হিসেবে মসজিদের সব উন্নয়ন বাদ দিলেও এ ফান্ডে কয়েককোটি টাকা থেকে যাওয়ার কথা। কিন্তু এ টাকার সুনির্দিষ্ট কোনো হিসাব কলেজ সংরক্ষণ করেনি।

এ বিষয়ে কলেজের একাধিক শিক্ষক নাম না প্রকাশ শর্তে জানান, নিয়মিত ইন্টার্নাল অডিট হলে দুর্নীতির লাগাম টেনে ধরা যেত। নিয়মতান্ত্রিকতা থাকলে কেউ অবৈধ সুবিধা গ্রহণ করতে পারত না। সব কিছুকে একটি সিস্টেমের মধ্যে আনতে পারলে অনিয়ম শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা সম্ভব।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, এ বিশাল আর্থিক অনিয়মের সাথে কলেজের হিসাব রক্ষক আবদুল হান্নানেরও যোগসাজশ রয়েছে।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের সদ্য বিদায়ী অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা বলেন, যদি জানতাম এসব মিথ্যা অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে উঠবে, তাহলে ভিক্টোরিয়া কলেজে চাকরির কথা কখনো চিন্তা করতাম না। ঢাকাতেই থেকে যেতাম। আমি বর্তমানে চেয়ারে নেই, তাই হিসাব-নিকাশের সঠিক তথ্য মুখস্থ দিতে পারব না। শুনেছি কলেজ নাকি তদন্ত করছে। আল্লাহ-ভগবান বলে কেউ যদি থেকে থাকেন তদন্তে আমি নির্দোষ প্রমাণিত হব।

বর্তমান অধ্যক্ষ প্রফেসর রুহুল আমিন ভূঁইয়া জানান, অনিয়ম খতিয়ে দেখতে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কমিটির প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ সাংবাদিক সমিতির ইফতার মাহফিল

 

কুভিক প্রতিনিধি :

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ সাংবাদিক সমিতির (কুভিকসাস) এর ইফতার মাহফিল ২৬ মে রবিবার নগরীর আনন্দ সিটি সেন্টারের ইয়াম্মি রেষ্টুরেন্ট ও পার্টি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়।

ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ সাংবাদিক সমিতি’র (কুভিকসাস) সভাপতি মাহদী হাসান।

সাধারণ সম্পাদক আবু রায়হানের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাবেক সভাপতি তৈয়বুর রহমান সোহেল, সাবেক সহ সভাপতি আলা উদ্দিন আজাদ।

অনুষ্ঠানে কুভিকসাসের সদস্যদের সম্মতিক্রমে ঈদ পূর্ণমিলনী উপলক্ষে আগামী ১২ জুন বুধবার চাঁদপুর একদিনের আনন্দ ভ্রমণের নীতিগত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

ইফতার মাহফিলে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ সভাপতি আর কে নিরব।

অনুষ্ঠানে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আকাশ, আশিক ইরান, জে আই মাহির ও রুবেল মজুমদার প্রমুখ।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে “গ্লোবাল লিডার শেখ হাসিনা” গ্রন্থ শীর্ষক আলোচনা সভা

 

কলেজ প্রতিনিধিঃ

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের দ্বি-মাসিক মুখপত্র ক্যাম্পাস বার্তার আয়োজনে “গ্লোবাল লিডার শেখ হাসিনা দ্যা প্রাইম মিনিস্টার অব বাংলাদেশ” গ্রন্থের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
গতকাল কলা ভবনের সেমিনার কক্ষে পত্রিকাটির সম্পাদক আর কে নিরবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা।
ক্যাম্পাস বার্তার অফিস সম্পাদক আশিক ইরান ও আইটি সম্পাদক ইসরাত জাহান রিপার যৌথ সঞ্চালনায় সভায় আমন্ত্রিত অতিথির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলেজের শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক প্রফেসর বিজয় কৃষ্ণ রায়, আলোচিত গ্রন্থের সম্পাদক ও চ্যানেল ২৪এর বিজনেস এডিটর ফারুক মেহেদী, দৈনিক প্রথম আলো’র নিজস্ব প্রতিবেদক গাজিউল হক সোহাগ, অয়ন প্রকাশনীর প্রকাশক মিঠু কবীর , সকল বিভাগের বিভাগীয় প্রধানসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

শেখ হাসিনাকে ‘বিশ্বের মুকুটহীন রানী’ অভিহিত করে ফারুক মেহেদী

তার গ্রন্থ আলোচনায় সংকলনটি সম্পর্কে বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা প্রকৃত অর্থে আদর্শবান, প্রতিশ্রুতিশীল ও মানবিক একজন নেতা। যিনি সবসময় তার দেশের কল্যাণে কাজ করতে অঙ্গীকারবদ্ধ। তার দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণেই বাংলাদেশের প্রভূত অর্থনৈতিক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।’

ফারুক মেহেদী জানান, বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে তাকে নিয়ে বেশ লেখালেখি হয়েছে, যা অনেকেরই অজানা। এ সংকলনটি একজন পাঠককে সবগুলো লেখা একসঙ্গে পড়ার সুযোগ করে দিবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন বিশ্বমানের নেত্রী। আধুনিক বিশ্ব মিডিয়া প্রধানমন্ত্রীকে কিভাবে প্রশংসিত করেছে সেই বিষয়গুলো গ্রন্থ আকারে প্রকাশ করেছেন ফারুক মেহেদী। আমি মনে করি এই গ্রন্থের মাধ্যমে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কে জানার পরিধিকে আরও সুপ্রসন্ন করবে। আমি তার সম্পাদিত গ্রন্থের সফলতা ও সমৃদ্ধি কামনা করছি।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ১২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

স্টাফ রিপোর্টারঃ
বর্ণিল আয়োজনের মধ্য দিয়ে শনিবার কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ১২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে সকালে কলেজের প্রতিষ্ঠাতা রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায়ের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রার মাধ্যমে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার সূচনা করা হয়।

১৮৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যাপীঠটির দেশে এবং দেশের বাইরে সুনাম রয়েছে।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে কলেজের প্রতিষ্ঠাতা রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায়ের প্রপৌত্র প্রকৌশলী অশোক সিংহ রায়ের প্রেরিত বাণী পাঠ করে শোনান রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মাসুম মিল্লাত মজুমদার।

তিনি জানান, আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে অমর একুশের অনুষ্ঠানে অশোক সিংহ রায় এ কলেজে উপস্থিত থাকবেন।

ভিক্টোরিয়া কলেজের ১২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে শনিবার সম্মাননা জানানো হয় কলেজের ৬ জন প্রাক্তণ অধ্যক্ষ ও কৃতী শিক্ষার্থীদের।

ছিলো আলোচনা সভা, স্মৃতিচারণ ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

সম্পাননা প্রাপ্ত কলেজের সাবেক অধ্যক্ষরা হলেন প্রফেসর আমির আলী চৌধুরী, লে. কর্ণেল মোশতাক আহমেদ, প্রফেসর ডা. আব্দুল মতিন, প্রফেসর সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, প্রফেসর মো: আব্দুর রশীদ এবং প্রফেসর আবু তাহের।

এ উপলক্ষে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা। উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর রুহুল আমিন ভূঁইয়া, কলেজের সাবেক শিক্ষক শান্তিরঞ্জন ভৌমিক, দৈনিক কুমিল্লার কাগজ সম্পাদক আবুল কাশেম হৃদয় সহ কলেজের সকল শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কলেজ ছাত্রলীগ ও কর্মচারীবৃন্দ।

শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর বিজয় কৃষ্ণ রায়, যুগ্ম সম্পাদক বদরুন্নাহার ও নিলুফার সুলতানার যৌথ সঞ্চালনায় জমকালো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং কৃতি শিক্ষার্থীদের সম্মাননা প্রদান করা হয়।

অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে সভাপতির বক্তব্যে কলেজের বর্তমান অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা বলেন, কলেজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন আমাদের শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের একটি প্রাণের দাবি ছিল। আজকের এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে বহুদিনের সেই প্রতীক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে। আমার বিশ্বাস এ ধারা সবসময় অব্যাহত থাকবে।