Tag Archives: কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া ডিগ্রী কলেজ পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনী

ভিক্টোরিয়ার শিক্ষার্থী কিডনি রোগে আক্রান্ত সাদিয়া বাঁচতে চায়, প্রয়োজন ৩৫ লাখ টাকা

 

স্টাফ রিপোর্টার:
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পেয়েছেন জি.পি.এ ৫ ।  ভর্তিও হয়েছিলেন প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে। কিন্তু জটিল কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে হারিয়েছেন দুটি কিডনি। বর্তমানে মুমূর্ষ  অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইংরেজি ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী সাদিয়া আফরিন(২১)।

গৌরীপুর শায়েস্তানগর গ্রামের জহিরুল হক ভূঞা ও মেহেরুন্নেসা বকুলের সন্তান সাদিয়া আফরিন এর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হন নিজ জেলা শহর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগে।

সাদিয়াকে বাঁচাতে  কুমিল্লার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আর্থিক অনুদান সংগ্রহ শুরু করছেন তার সহপাঠীরা। লক্ষ্য একটাই যে করে হোক সহপাঠীকে আবার শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ্য  অবস্থায় দেখতে চায় তারা।

পিতা জহিরুল হক ভূঞা বলেন, আমার সন্তান নবাব ফয়জুন্নেসা স্কুল থেকে ২০১৬ সালে মাধ্যমিকে গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে ভর্তি হয়, সেখান থেকে ২০১৭ সালে পুনরায় জিপিএ ৫ পেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি হয়েছিলো। ২০১৭ সালে কিডনি রোগ ধরা পড়ে। চিকিৎসার খরচ চালাতে চালাতে আমি নিঃস্ব প্রায়। আর্থিক দুরাবস্থার কারণে আর খরচ চালাতে পারছিনা। ডাক্তার জানিয়েছে কিডনি প্রতিস্থাপন করতে ৩৫ লাখ টাকা প্রয়োজন। এতো টাকা কোথায় পাবো। এই শহরের বিত্তবান মানুষরা যদি একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতো আমার মেধাবী মেয়েটা হয়তো জীবন ফিরে পেতো।

সাদিয়া আফরিন এর সহপাঠী ফাতেমা জান্নাত বলেন, শুধুমাত্র অর্থের জন্য আমরা আমাদের সহপাঠী কে হারালে মানবিকতার কাছে আমরা হেরে যাবো৷ তাই সবাই মিলে আর্থিক সাহায্য সংগ্রহ করছি। যে করেই হোক মেধাবী এ সহপাঠীকে আবার আমরা সুস্থ্য  অবস্থায় শ্রেণীকক্ষে দেখতে চাই।

ইংরেজি চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মহসিন আলম বলেন, কলেজে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য বড় কোন ফান্ড নেই। তাই সমাজের বিত্তবান ও দানশীল মানুষদের নিকট আকুল আবেদন একটু এগিয়ে আসুন দেশের মেধাবীমুখ সাদিয়াকে বাঁচাতে। সাহায্য পাঠাতে বিকাশ ০১৮৯৬০৭৯১৮৮, ব্যাংক একাউন্ট নং ১৩০৯৪৩৪১৮৩৫৫৯ (সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখা কুমিল্লা ) অথবা সরাসরি ভিক্টোরিয়া কলেজের ইংরেজি বিভাগেও সাহায্য দিতে পারেন।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আবু জাফর খান বলেন, সাদিয়া আফরিন এর চিকিৎসা খরচ সংগ্রহের জন্য ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রত্যেক বিভাগীয় প্রধান, হল তত্বাবধায়ক ও সকল সংগঠনকে দায়িত্ব দিয়েছি। আশা করছি সকলের সাড়া পাবো। সমাজের বিত্তবান মানুষদের এগিয়ে আসা ছাড়া হয়তো এতো বিশাল অনুদান আমাদের একার পক্ষে সম্ভব হবে না।

২ যুগ ধরে জলাবদ্ধতায় ভিক্টোরিয়া কলেজের খেলার মাঠ ! থমকে আছে ভরাট কাজ

বিশেষ প্রতিবেদন:

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ ডিগ্রি শাখার খেলার মাঠ ভরাট কাজ থমকে যাওয়ায় ক্রীড়া চর্চা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা।

ডিগ্রি শাখায় প্রায় ২২ হাজার শিক্ষার্থীর ক্রীড়া চর্চার একমাত্র মাঠ এটি। দুই যুগেরও বেশি সময় এ মাঠ সংষ্কার না হওয়ায় খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত শিক্ষার্থীরা।

এদিকে মাঠে জলাবদ্ধতার কারণে দিনদিন মশার উপদ্রব বাড়ছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে সাপ ও বিষাক্ত পোকা-মাকড়ের ভয়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলেছে, এ সমস্যার স্থায়ী সমাধানের চেষ্টা চলছে।

কুমিল্লা নগরীর প্রাণকেন্দ্র কান্দরপাড়ের রানীর দিঘীর পাশে ১৮৯৯ সালে ভিক্টোরিয়া কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৬০ সালে মূল শাখা থেকে তিন কিলোমিটার দূরে ধর্মপুর এলাকায় ডিগ্রি ক্যাম্পাস স্থাপন করা হয়। ৩২ একর জমির এ কলেজে উচ্চমাধ্যমিক শাখার শিক্ষার্থীদের একটি খেলার মাঠ রয়েছে। তবে স্নাতক-স্নাতকোত্তর ও ডিগ্রি অধ্যয়নরত ২২টি বিভাগে প্রায় ২২ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য খেলার মাঠ নেই।

কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ও কবি কাজী নজরুল হলের বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন অনিক জানান, কলেজে খেলার মাঠ না থাকায় ঘরোয়া খেলাধুলা আর মোবাইল নিয়ে সময় অতিবাহিত করতে হয়। বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুধু আনুষ্ঠানিকতা। জলাবদ্ধতার কারণে মশার উপদ্রব দিনদিন বাড়ছে। এ পঁচা পানিতে সাপ ও বিষাক্ত পোকার ভয় আছে।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ সাংবাদিক সমিতির (কুভিকসাস) সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান রাসেল জানান, ঐতিহ্যবাহী এ কলেজের ক্রীড়া চর্চা ও অর্জনের গৌরবান্বিত ইতিহাস রয়েছে। দুই যুগের বেশি সময় খেলার মাঠে জলাবদ্ধতা। এ মাঠটি মূল ভূমি থেকে নিচু, সারা বছর এ মাঠে পানি থাকে। খেলার মাঠটি সংস্কার হলে ২২ হাজার শিক্ষার্থী ক্রীড়া চর্চার সুযোগ পাবে।

কলেজের শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক মো. শাহজাহান জানান, ২০১৯ সালের জুনে বর্তমান অধ্যক্ষ যোগদানের পর খেলার মাঠে জলাবদ্ধতাকে অন্যতম সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেন। সে লক্ষ্যে গেল বছর আংশিক কাজও করেছেন। মাঠের পশ্চিম-উত্তরাংশ ভরাট করা হয়েছে। করোনা মহামারির কারণে কাজটি থমকে গেছে। শিক্ষাকার্যক্রম চালু থাকলে হয়তো ইতেমধ্যে মাঠটি ভরাট হয়ে যেত।

এ বিষয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. রুহুল আমিন ভূঁইয়া বলেন, ‘খেলার মাঠে জলাবদ্ধতার এ সমস্যাটি বহু বছর ধরে। গেল বছর আংশিক ভরাট কাজ করেছি। প্রায় এক বছর কলেজ ফান্ডে নতুন অর্থ যোগ হচ্ছে না। দুই শতাধিক বেসরকারি কর্মচারীর বেতন প্রতি মাসে পরিশোধ করতে হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘ধর্মপুর এলাকায় অপরিকল্পিত বাড়ি ঘরের কারণে এ সমস্যাটি হচ্ছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করেছি। দীর্ঘ দিনের সমস্যা সমাধানে দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা প্রয়োজন। এলাকাবাসীর সাথে সমন্বয় প্রয়োজন। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চিঠি পাঠানো হয়েছে। আশা করি স্থায়ী সমাধান হবে।’

সূত্র: ইউএনবি।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া ডিগ্রী কলেজ পরিদর্শন করলেন জেলা প্রশাসন ও সেনাবাহিনী

স্টাফ রিপোর্টার:
বিদেশ ফেরত প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতের লক্ষ্যে উপযুক্ত স্থান নির্ধারণে বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শন করছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও জেলা প্রশাসন।

এরই ধারাবাহিকতায় রোববার (১৯ এপ্রিল) নগরীর ধর্মপুরের কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া ডিগ্রী কলেজের ক্যাম্পাস পরিদর্শন করেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর ও কুমিল্লা সেনাবাহিনীর ৩১ বীরের অধিনায়ক লে.কর্ণেল মাহাবুব আলম।

এ সময় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ রুহুল আমিনের সাথে আলোচনা করেন জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর ও লে.কর্ণেল মাহাবুব আলম।