Tag Archives: লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ আবদুল মতিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্বাস্থ্য বিভাগের গঠিত রেপিড রেসপন্স টিমের অন্যতম সদস্য ডাঃ আবদুল মতিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২১ মে) এই চিকিৎসকের করোনা শনাক্ত হয়।

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লকডাউন

 

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স লকডাউন করা হয়েছে। কেবলমাত্র জরুরি বিভাগে চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যতীত অন্যান্য সকল বিভাগের কার্যক্রম অবরুদ্ধ (লকডাউন) রাখা হয়েছে। এই হাসপাতালের মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) এর করোনা শনাক্ত হওয়ায় এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

 

 

 

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকায় করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে মঙ্গলবার থেকে বহিরাগত ও সর্বসাধারণের প্রবেশে কঠোর সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ করেনা ভাইরাস সনাক্তকরণে নমুনা সংগ্রহ এবং চিকিৎসা দিতে একটি বিশেষ দল গঠণ করা হয়। ওই দলেরই একজন সদস্য স্বাস্হ্য কর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এতে হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক, নার্সসহ সকল বিভাগের কর্মচারীদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়।

 

এদিকে ওই স্বাস্হ্য কর্মীর সংস্পর্শে থাকা দলের অন্যান্য সদস্য ছাড়াও হাসপাতালের প্যাথলজি বিভাগে কর্মরতদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল (কুমেক) ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

 

 

এই ব্যাপারে লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আবদুল আলী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মানবিক দিক বিবেচনায় সর্বোচ্চ সতর্কতায় জরুরি বিভাগে রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়া হচ্ছে। তবে অন্যান্য কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে।

 

 

লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত

 

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ
কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি স্থানীয় স্বাস্থ্যবিভাগ কর্তৃক গঠিত ‘করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিম’ এর সদস্য।

আজ রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

জানা যায়, লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এমটি (ল্যাব) হিসেবে ওই স্বাস্থ্যকর্মী দীর্ঘদিন থেকে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

দেশে করোনার প্রভাব শুরু হওয়ার পরপরই স্থানীয় স্বাস্থ্যবিভাগ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সমন্বয়ে গঠিত হয় ‘করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিম’। করোনা রোগীদের চিকিৎসা ও নমুনা সংগ্রহে টিমের তৎপরতা ছিল সাড়া জাগানো। করোনা উপসর্গ আছে এমন শতাধিক ব্যক্তির মধ্যে বেশিরভাগ নমুনাই সংগ্রহ করেন টিমের অন্যতম সদস্য ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এমটি (ল্যাব) হিসেবে কর্মরত ওই স্বাস্থ্যকর্মী।

টিমের কয়েকজন সদস্যের ইতোপূর্বে নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হলেও সকলের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। দ্বিতীয় দফায় ওই স্বাস্থ্যকর্মীর নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হলে আজ রবিবার তার রিপোর্ট পজেটিভ আসে। এতে লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। লাকসামে এ পর্যন্ত একই পরিবারের ৮ জনসহ সর্বমোট ১১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

করোনা র‌্যাপিড রেসপন্স টিমের সদস্য ডা. আবদুল মতিন জানান, আমাদের র‌্যাপিড রেসপন্স টিমের একজন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় পুনরায় সকলের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আবদুল আলী এক স্বাস্থ্য কর্মীর করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাসা-বাড়িতে অবস্থানের পরামর্শ দেন।