শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক: আসল যুদ্ধটা করেছিল প্রেস ড. পার্থ চট্টোপাধ্যায়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১২, ২০২০
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ইংরেজি ঐতিহাসিকরা বলেন, ওয়াটারলু যুদ্ধটা না-কি ইংরেজরা আগেই জিতে নিয়েছিল ইটনের মাঠে। তেমনি আমিও বলতে পারি, বাংলাদেশ যুদ্ধটা আগেই জিতে নিয়েছিল কলকাতার প্রেস। এবং প্রেস ক্লাব। সব ক’টা খবরের কাগজ প্লাস দেবদুলাল বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রয়াত দেবদুলাল বাবু তখন আকাশবাণী কলকাতার ঘোষক। যে আকাশবাণী বাতাসের ইথারে ইথারে ভেসে, পূর্ব পাকিস্তান (তখনও বাংলাদেশ হয়নি)-বাসীদের অনুপ্রেরণা জোগাচ্ছে পাসপোর্ট ভিসার তোয়াক্কা না করেই। তাই ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ প্রথম যখন বাংলাদেশের মাটিতে আমরা সাংবাদিকরা পা দিলাম, জনতার মধ্য থেকে গুঞ্জন উঠল, দেবদুলাল বন্দ্যোপাধ্যায় আইছেন? দেবদুলাল বাবুর অবশ্য একজন সহযোগী ছিলেন। তিনি ইডেন গার্ডেন থেকে বেশ কিছু দূরে বালিগঞ্জ সার্কুলার রোডের একটা বাড়িতে বসে স্বাধীন বাংলাদেশ রেডিও চালাতেন। প্রচার করতেন ঢাকার ভাষায় বাঙালদের প্রাণের কথা ‘চরমপত্র’। তিনি মুকুল আখতার। বাংলাদেশের এক জনপ্রিয় সাংবাদিক।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধটা যতটা অসিযুদ্ধ ছিল, তার চেয়েও বেশি ছিল মসিযুদ্ধ। বাংলাদেশের বেশিরভাগ সাংবাদিকই মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশ ছাড়েন নি। দেশে থেকে তো আর ইয়াহিয়া খান কিংবা তার খানসেনাদের বিরুদ্ধে কিছু লেখা যায় না। তাই তাদের হয়ে কাজটা করেছিল, বিবিসি না হয় আকাশবাণী ও স্বাধীন বাংলা বেতার। সেই সঙ্গে ভারতের ছোট বড় মেজো সেজো সব প্রিন্ট মিডিয়া। কানু ছাড়া যেমন গীত নেই, তেমনি বাংলাদেশ ছাড়া সে-সময় খবর নেই। ভারতীয় বাহিনী কতদূর ঢুকল, মুক্তিবাহিনী কত পাকিস্তানি সৈন্য খতম করল, খানসেনারা কোথায় হিন্দু আর আওয়ামী লীগ ক্যাডারকে সাবাড় করল, এসব এমন বিশ্বস্ততার সঙ্গে সে-সময় কৃষ্ণনগর, আগরতলা কিংবা করিমগঞ্জ সীমান্ত থেকে ভারতীয় সাংবাদিকরা লিখতে শুরু করলেন, যেন এইমাত্র তারা ইস্টার্ন ফ্রন্ট থেকে ফিরে এলেন। তাদের মধ্যে অনেক খবর ছিল গঞ্জিকামিশ্রিত। কিন্তু জনসাধারণ পরমহংসের মতো জলমিশ্রিত দুধ থেকে শুধু দুধটুকু ছেঁকে নিয়ে খেতে শিখেছিলেন। তা না হলে সীমান্তের ওপারের যুদ্ধ নিয়ে এপারে জনমনে এক অভূতপূর্ব উন্মাদনার সৃষ্টি হতে পারত না।

১৯৭১ সালের মার্চ থেকে ধীরে ধীরে কলকাতা এই সর্বপ্রথম আন্তর্জাতিক সংবাদ কেন্দ্রে পরিণত হয়। সে-সময় পৃথিবীর যে কোনো প্রথম শ্রেণির নিউজ এজেন্সি থেকে ইউরোপ, আমেরিকা ও জাপানের সংবাদপত্র প্রতিনিধিরা প্রায়ই কলকাতা আসতেন। আমাদের তখনও টেলিভিশন আসেনি, কিন্তু আমেরিকা ও ব্রিটেনের টেলিভিশন কোম্পানিগুলি প্রায়ই আসত কলকাতায় বাংলাদেশ কভারেজের জন্য। বাংলাদেশ তো তখন নিষিদ্ধ নগরী। কলকাতার দরজা সবার জন্য খোলাÑ সংবাদমাধ্যম, ত্রাণপ্রতিষ্ঠান, শরণার্থী, কূটনীতিক, রাজনীতিবিদ, নানা ধরনের আমলা, মন্ত্রী, স্বঘোষিত স্বেচ্ছাসেবী আর গিজগিজ করা স্পাই। এদের সাময়িক আবাস ছিল গ্রান্ড হোটেল থেকে পার্ক স্ট্রিট, পার্ক সার্কাস আর দক্ষিণে বালিগঞ্জ সার্কুলার রোড পর্যন্ত। গ্রান্ড হোটেল তখন হয়ে উঠল রিপোর্টারদের একটি আস্তানা। আর এতসব কিছুর মাঝে ঊষর মরুর পিছনে মরুদ্যান ছিল প্রেস ক্লাব। সে-সময় এখনকার মতো প্রেস ক্লাব এত গুলজার ছিল না। সন্ধ্যার পর অন্ধকারে লনে বসে দু-চারজনকে মাত্র সুরাপান করতে দেখা যেত। আসলে সন্ধ্যার পর যাদের অঢেল সময়, তারা তখনও ক্লাবের মেম্বার হননি। বাংলাদেশ যুদ্ধ প্রেস ক্লাবের নৈশজীবন আবার সুধারসে ভরিয়ে তুলল। কত লোকের তখন আনাগোনা। কেউ আসেন খবর সংগ্রহ করতে। কেউ খবর হতে। বিদেশি সাংবাদিকরা একবার রাতে ঢুঁ মেরে যান। উদ্দেশ্য স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে কিছু টিপস জোগাড় করা। অন্তত মুজিবনগর জায়গাটা কোথায়, সে-সম্পর্কে অবহিত হওয়া। এই টিপস না নেওয়া বিদেশি সাংবাদিকদের করুণ হাল দেখেছিলাম একবার শিকারপুর গিয়ে। এক শ্বেতাঙ্গ সাংবাদিক শিকারপুরকে মুজিবনগর মনে করে এতদূর চলে এসেছেন। আমরা সাংবাদিক জেনে আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন : Where is Muzib Nagar.

আমি তার দুর্দশা দেখে বললাম, আরে আমিও তো খুঁজছি মুজিবনগর। কিন্তু আমিও কি ছাই জানি! তখনও মুজিবনগর শুধু একটি নাম। সত্যি সত্যি মুজিবনগর খুঁজে পেলাম একদিন। আমি একটু অন্যভাবে। কিন্তু কলকাতার সাংবাদিকবাহিনী আর এক ভাবে। আসলে যে যে-পথ ধরেই যাক, ঈশ^রের কাছে পৌঁছনো নিয়ে কথা। তারা এবং আমি দু-দিক থেকে মুজিবনগর পৌঁছেছিলাম। ১৬ এপ্রিল ১৯৭১। পয়লা বৈশাখের পরের দিন, পিআইবি থেকে সব কাগজের অফিসে ফোন গেল, কাল ভোর ৫টায় আপনাদের একজন রিপোর্টার ও ফটোগ্রাফার যেন প্রেস ক্লাবে হাজির থাকে।
কী ব্যাপার?

ব্যাপারটা সিরিয়াস। এখন বলা যাবে না। তবে একটা বড় খবর অপেক্ষা করছে আপনাদের জন্য। আমাদের বাস থাকবে প্রেসের জন্য। অনেকদূর যেতে হবে। সময়টা মেনটেন করবেন। ক্রমে ক্রমে সেই বার্তা রটে গেল গ্রামে। গ্রাম মানে চৌরঙ্গী আর সদর স্ট্রিটের হোটেলে। কিছু বিদেশি সাংবাদিকও ছিলেন। তারাও সশরীরে হাজির। আনন্দবাজারের মালিক সম্পাদক অভীককুমার সরকারও হাজির সেই দলে। সকাল ৬টায় বাস ছাড়ল। কেউ জানেন না কোথায় যাচ্ছেন! শুধু অনুমান। মোটামুটি জানা গেল, গন্তব্যস্থল নদিয়া। সেখানে বাংলাদেশের অনেকটা এলাকা মুক্ত হয়েছে। সেটা দেখানো হবে সাংবাদিকদের। আবার খবর রাখেন এমন কেউ কেউ বললেন : স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার এ দিন শপথ নিতে পারে।

কোথায়? না মুজিবনগরে।

তাহলে মুজিবনগর আরসিনগর নয় বালিগঞ্জ সার্কুলার রোড নয়। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রর দেশ নয় মুজিবনগর। মুজিবনগর কল্পরাজ্য নয় তার সত্যিই অস্তিত্ব আছে। চলো মুজিবনগর।
১৭ এপ্রিল ৯টা, কৃষ্ণনগর। গত দুদিন হলো কৃষ্ণনগর এসেছি। কৃষ্ণনগর মানে সাংবাদিকদের চুয়াডাঙ্গা। চুয়াডাঙ্গা কুষ্টিয়ার একটা শহর। মুক্তিযুদ্ধের কেন্দ্র। চুয়াডাঙা ডেটলাইন দিয়ে সাংবাদিকেরা কৃষ্ণনগর থেকে খবর ছাড়তেন। যারা মুক্তিযোদ্ধা, তারা তখন কৃষ্ণনগর কিংবা করিমপুর বা শিকারপুরে শিবির করে আছেন। সেখানে কেউ সরকারি টাকায় খাচ্ছেন-দাচ্ছেন, হোটেলে আরাম করে আছেন, আবার শিকারপুরে পাটের গোডাউনে মুক্তিযোদ্ধাদের এমন শিবিরও দেখেছি, যেখানে বালিশের অভাবে ১৬-১৭ বছরের ছেলেরা ইট মাথায় দিয়ে শুয়ে আছে।
সাংবাদিকদের আর একটা বড় সোর্স এসপি। কৃষ্ণনগর গিয়ে আমি প্রথমেই তখনকার এসপি মি. গুহর কাছে বডি ফেলে দিলাম। মি. গুহ বিএসএফ-এর কাছ থেকে খবর এনে দেবেন। আর আমি তা চুয়াডাঙা ডেটলাইন দিয়ে ছাড়ব। সবচেয়ে মুশকিল হলো ফোটোগ্রাফারদের নিয়ে। পুলিশ বা বিএসএফ তো আর ফটো তুলে দেবে না। তাই মুক্তিযুদ্ধ ক্যাম্পে গিয়ে রাইফেল-ধরা মুক্তিযোদ্ধাদের নানা পোজের ফটো দিয়ে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে খানসেনাদের সংঘর্ষের ছবি দেখাতে হতো। কোথাও কোথাও মুক্তাঞ্চল তৈরি হয়ে গেলে, তখন বাংলাদেশের ভিতর নির্ভয়ে ঢোকা যেত। এইভাবে আমাদের ফটোগ্রাফাররা বগুড়া পর্যন্ত চলে গিয়েছিল। ষাঁড়া ব্রিজের ওপর কলকাতার দুই সাংবাদিকেরা ঐতিহাসিক সাক্ষাৎকার সবার মুখে মুখে ফিরত। ঢাকা তখনও মুক্ত নয়। কিন্তু সেই সাংবাদিক ষাঁড়া ব্রিজের ওপর থেকে ঢাকার জিঞ্জিরার আগুনের শিখা দেখতে পেয়েছিলেন। ভারতীয় বাহিনী আর মুক্তিফৌজ যখন যশোর ক্যান্টনমেন্টের দিকে এগোচ্ছে, সে-সময় একটি কাগজ লিড স্টোরি করলÑ বুকে হেঁটে হেঁটে যশোর দুর্গের দিকে এগোচ্ছেন ওসমান। সঙ্গে বেগম। ঠিক বঙ্কিমচন্দ্রের দুর্গেশনন্দিনী উপন্যাসের বর্ণনা। ওসমান পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একজন মেজর। ডিফেক্ট বার মুক্তিফৌজে যোগ দিয়েছেন। নায়কোচিত পাঠানসুলভ চেহারা। যদিও নির্ভেজাল বাঙালি। তার বেগম এক সুন্দরী যুবতী। তাকে সবাই দেখেছে। তিনি সর্বত্র স্বামীর সঙ্গে ঘুরতেন। ব্যস, সাংবাদিকরা বেগমকে রণক্ষেত্রে নিয়ে গিয়ে ফেলল। তবে তাদের বুকে হাঁটতে হয়েছিল কি না, সেটা কোনো নির্ভরযোগ্য সূত্র বলতে পারল না।

যশোর ক্যান্টনমেন্ট সম্পর্কে লেখা হলো, সেটা না-কি মাটির নিচে। অজেয়, অপরাজেয়। যুক্তবাহিনী কিছুতেই সেটা কবজা করতে পারছে না। তারপর একদিন কর্নেল রেখি সাহেবের ব্রিফিং-এ গিয়ে শুনলাম, যশোর দুর্গের পতন হয়েছে বিনা বাধায়। আমি ১৯৭১ সালের নভেম্বরে মুক্ত যশোরে দুবার গিয়েছি। একবার গেলাম খুলনার যুদ্ধ কভার করতে। প্রথমে যশোর ক্যান্টনমেন্ট দেখতে গেলাম। দেখি মাটির তলায় নয়, যশোর দুর্গ মাটির ওপরেই। যেমন ক্যান্টনমেন্ট হয় তেমন। তবে সেখানে তখন পাকসেনার বদলে বাস করছে ভারতীয় সেনা। ওখানে এক মেজর দেখলাম মন দিয়ে একটি ইংরাজি থ্রিলার পড়ছেন। তাকে পরিচয় দিয়ে বললাম, যুদ্ধটা এখন কোথায় হচ্ছে একটু বলবেন? তিনি বললেন, আপনি পিআরও-র সঙ্গে কথা বলুন। যুদ্ধ হচ্ছে ফুলতলায়-খুলনার কাছে। একটু পরে পিআরও এলেন। আমায় দেখে বললেনÑ আপনি সমর সম্বাদী? আমার পরনে যুদ্ধ সংবাদদাতার পোশাক। কাঁধে লেখা ব্যাচ-সমর সম্বাদী। আমি বললাম, যুদ্ধ কভার করতে এসেছি।
আপনাদের জন্যই তো আমি বসে আছি। কদিন থেকে একটাও সমর সম্বাদীর দেখা নেই। আপনি প্রথম সমর সম্বাদী, যিনি যুদ্ধ দেখতে এলেন। আপনার সঙ্গে আর কেউ আছেন?
হ্যাঁ, আমাদের ফটোগ্রাফার। তিনি আমাদের জিপে বসে আছেন।

তাহলে আপনাদের গাড়িটা নিয়ে ব্রিগেড হেড কোয়ার্টার পর্যন্ত চলুন। আমি আমার গাড়িতে আগে আগে যাচ্ছি।
আমাদের ফটোগ্রাফার ছিলেন আমার এক সিনিয়র। আমার তখন তরুণ রক্ত। বয়স মাত্র ৩৪। তিনি ৫০ পার করেছেন। তার তখন বনে যাবার বয়স; রণে যাবার নয়। খুব ব্যাজার মুখে বললেনÑ আরও যেতে হবে?
আমি বললাম, খুলনা পর্যন্ত যেতে হবে। যুদ্ধ হচ্ছে সেখানে। আমি এখান থেকেই যুদ্ধের খবর লিখে দিতে পারি। শর্মিলা ঠাকুরের বিয়ে না দেখেই তার ডিটেল বিবরণ লিখে দিয়েছিলাম।
তোরা রিপোর্টাররা সব পারিস। কিন্তু ছবিতে মিথ্যে কথা বলে না।
সেই জন্যই তো আপনাকে নিয়ে যাচ্ছি ফুলতলায়।

সেটা কোথায়?
রবীন্দ্রনাথের শশুরবাড়ির দেশ, চলুন না। সেখানেই যুদ্ধ চলছে এখন। ফুলতলা ব্রিগেড হেড কোয়ার্টার্স থেকে আরও ৩ কিলোমিটার দূরে যুদ্ধ চলছে। আমার মন চাইল না, আমার ফটোগ্রাফারকে বেশি কষ্ট দিতে। তিনি ওখানেই ছবি তুলে নিলেন। ভারতীয় সেনা শত্রুদের উদ্দেশে কামনা দাগছে। আমি বীরদর্পে এগিয়ে গেলাম ফ্রন্টে। জীবনে এই প্রথম ও শেষবারের মতো প্রকৃত যুদ্ধ দেখা। যেখানে গেলাম সেটা ভারতের আর্টিলারি পজিশন। আরও ২ কিলোমিটার দূরে পাকিস্তানের আর্টিলারি। এরা কামান দাগছেন। ওপাশ থেকে গোলা এসে পড়ছে। এক-একটা গোলা এসে এক এক জায়গায় পড়ছে। জায়গাটা পুড়ে বিরাট গর্ত হয়ে যাচ্ছে। আমাদের সেনাদের পজিশন একটা জুট মিলের সামনের বাগান। দেখলাম, গোলার আঘাতে জুট মিলের একটা অংশ ভেঙে পড়ে গেল। পিআরও নিজে একজন মেজর। তিনি বললেন, আমাদের ইনফ্যানট্রি ইউনিট সামনে আছে। আমরা তাদের আর্টিলারি কভার দিচ্ছি। আর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আমরা ওদের ক্যাপচার করে ফেলব। এখান থেকে ১০ কিলোমিটার খুলনা।

তিনি বললেন, আর বেশিক্ষণ আপনার এখানে থাকা উচিত হবে না। এদের টার্গেট কিন্তু জুট গোডাউন নয় টার্গেট আমরা। একটা গোলার স্পিøন্টাল লাগলে আর কলকাতা ফিরে রিপোর্ট জমা দিতে পারবেন না।

অতএব খবরের স্বার্থে মানে লক্ষ লক্ষ পাঠকদের স্বার্থে কলকাতা ফিরতে হলো। অফিসে পৌঁছলাম রাত ১১টা। পাঁচ ঘণ্টার মধ্যে খুলনা থেকে চলে এসেছি। রাত ১১টা ২৫ মিনিট। তাড়াতাড়ি কপি শেষ করে যখন ডেস্কে জমা দিতে গেলাম, তখন ডেস্ক ইনচার্জ বললেন, কী স্টোরি এটা?
আমি বললাম, দারুণ স্টোরি। হিস্ট্রিও বলতে পারেন, মানে ঐতিহাসিক স্টোরি। কাল সকালে লক্ষ লক্ষ পাঠক যার জন্য অপেক্ষা করছে।
বিষয়টা কী? এক কথায় প্রকাশ করো।
খুলনার যুদ্ধ। ব্যাটল অব খুলনা। আমি এইমাত্র যুদ্ধক্ষেত্র থেকে ফিরলাম। আমি আহত নই। রক্তাক্ত নই। শুধু একটু পথশ্রমের ক্লান্তি। তাও অফিসের ঠাণ্ডা ঘরে এসে কেটে গেছে। মনে হলো, দাদার বিশ^াস হলো না। তিনি বললেন, কাল আবার ১২ কলম বিজ্ঞাপন। তার ওপর অন্য খবরের চাপ।
তার হাতে বেয়নেট ছিল, পরে বুঝলাম, ভুল দেখেছি। ওটা লাল কলম। উনি সেই লাল কলম দিয়ে পাতার পর পাতা উড়িয়ে দিয়ে, প্রথম দু-পাতা রেখে দিয়ে বললেন, বাড়ি গিয়ে ঘুমোও বাছা। অনেক পরিশ্রম করেছ।
হ্যাঁ কৃষ্ণনগরের ধান ভানতে গিয়ে খুলনার শিবের গীত গাইছি। ১৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় এসপি মি. গুহ বলেছিলেন, কাল ভোর ৬টায় আপনাকে এক জায়গায় নিয়ে যাবে।
কোথায়? বর্ডারে। ওখানে বিএফ-এর অফিসারদের সঙ্গে দেখা হবে। মুক্তিবাহিনীর মেজর ওসমানের সঙ্গে দেখা হবে। মনে মনে বললাম ওসমান! এবার কি সঙ্গে বেগম থাকবেন?
সকালে উঠে এসপি-র বাড়ি গিয়ে দেখি, তার দুটো জিপ রেডি। একটিতে একদল পুলিশ বসে সাহেবের সঙ্গে যাবার জন্য তৈরি। একটু পরে গুহ সাহেব এলেন। আমাকে দেখে বললেন, এসে গেছেন, চলুন। আমি পিছনের সিটে বসলাম। এসপি সামনের সিটে। জিপ ছাড়ল। কৃষ্ণনগর ফেলে আমরা করিমপুরের পথ ধরেছি। এ-পথে এর আগেও কয়েকবার এসেছি।

আমরা কোথায় যাচ্ছি?
ওসমান সাহেবের সঙ্গে দেখা করতে। তিনি বড় খবর দেবেন বলেছেন। বোধহয় ১০ কিলোমিটার গিয়েছি, দেখি, করিমপুরের দিক থেকে কয়েকটি জিপ এগিয়ে আসছে। প্রত্যেকটি জিপে বাংলাদেশের পতাকা।
ওসমান সাহেব। ওসমান ও গুহ সাহেব জিপ থেকে নামলেন। একটু নিভৃতে গিয়ে ওদের মধ্যে কিছু কথা হলো। গুহ ফিরে এসে বললেন, গাড়ি ঘোরাও। ওসমান সাহেবের জিপ ফলো করো। আমি আবার জিজ্ঞাসা করলাম, আমরা কোথায় যাচ্ছি? মি. গুহ পিছন ফিরে ফিসফিস করে আমাকে বললেন, পার্থবাবু, আজ আপনি বিশে^র এ তাবৎকালের শ্রেষ্ঠ স্কুপ করবেন। শুধু স্কুপ নয়Ñ আন্তর্জাতিক স্কুপ। এইমাত্র ওসমান সাহেব জানালেন, আজ খুব গোপনে একটা ভয়ঙ্কর কাণ্ড হতে চলেছে। আপনি ও আমি, আমরা সেই দুর্লভ ঘটনার সাক্ষী হতে চলেছি।
পার্থবাবু, ইয়্যু আর গোইং টু বি দি নেম ইন হিস্ট্রি ফর ইওর স্কুপ।
এই দেখুন আস্তে আস্তে ভাঙছেন। আমার যে ভীষণ অ্যাংজাইটি হচ্ছে মশায়।
বলছি বলছি। আজ মুজিবনগরে স্বাধীন বাংলা সরকারের মন্ত্রিসভা শপথ নিচ্ছে। বেলা ১০টায়। উফ আর মাত্র ১৫ মিনিট। তাপর থেকে আমার সাংবাদিক জীবনের বিশালতম স্কুপটি আমায় দিয়ে হবে। হ্যাঁ এই আমি, চিফের চোখে যে নকড়া-ছকড়া রিপোর্টার। ‘ওদের’ মতো যে একদম স্মার্ট রিপোর্টার না। গাড়ি বড় রাস্তা ছেড়ে একটা গ্রামের মধ্যে ঢুকে পড়েছে। এবড়ো-থেবড়ো কাঁচা রাস্তা দিয়ে গাড়ি যাচ্ছে। গুহ বললেন, আমরা মুক্ত এলাকায় ঢুকে পড়েছি। তার মানে এটা স্বাধীন বাংলাদেশ। মহকুমা মেহেরপুর।

আর কতদূর মুজিবনগর? বলতে না বলতেই গুপি গাইন বাঘা বাইনের মতো আমরা একেবারে মুজিবনগরের ভিতরে। এক আমবাগানের ভিতর একদিন স্বাধীনতা অস্ত গিয়েছিল। আর এক আমবাগানের মধ্যে, আর এক বাংলার স্বাধীনতা-সূর্য উঠছে। শামিয়ানা খাটিয়ে ডায়াস করা হয়েছে। চারদিকে অ্যান্টি-ওয়ার ক্র্যাফট কামান ফিট করা। বলা যায় না স্বাধীনতা পণ্ড করতে পাকিস্তান এসে বোমা ফেলে যেতে পারে। লোকে লোকারণ্য। আশু ঘোষের বাড়ি থেকে পুরো বাংলাদেশ ক্যাবিনেট মুজিবনগরে হাজির। দেখলাম তাজউদ্দীন সাহেব ও নজরুল ইসলাম সাহেবকে। কামারুজ্জামানকেও। আগেই ঘোষিত হয়েছে আওয়ামী লীগ প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী। চিফ অব দ্য স্টাফ। স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে আনুষ্ঠানিকভাবে সেই মন্ত্রিসভার গোপন শপথ জাতীয় সংগীত ও আমার সোনার বাংলা রেকর্ড বাজিয়ে। আমি ভাবছি, আমি এই মন্ত্রিসভার গোপন শপথ অনুষ্ঠানের একমাত্র সাক্ষী। কিন্তু ওমা এ কী দেখি! জনতার অধিকাংশই ক্যালকাটা প্রেস। কে নেই সেই দলে! যেদিকে তাকাই, সবাই জিজ্ঞাসা করছে, তুমি কী করে এলে? অভীকবাবুও প্রশ্ন করলেন, আপনি?

আমি মৃদু হাসলাম। তারপর বললাম, আজ্ঞে আমি আগেই জানতাম। এক নির্ভরযোগ্য সূত্র আমাকে আগেই জানিয়েছিল। তারপর কৃষ্ণনগর থেকে আসতে যতটুকু সময় লাগে। শপথ গ্রহণের ডিটেল আমার স্মৃতিকথা ‘আমার সময় আমার সাংবাদিকতা’ বইতে লিখেছি। মুজিবনগর অনুষ্ঠানের কতকগুলি লঘু মুহূর্তের কথা বলি। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শেষ। বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট নজরুল ইসলাম তখনও চেয়ারে বসে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছেন। এমন সময় আমাদের এক রিপোর্টার সুখরঞ্জন দাশগুপ্ত ফট করে পকেট থেকে ৫৫৫ সিগারেটের প্যাকেট বার করে প্রেসিডেন্টের সামনে ধরল। প্রেসিডেন্ট একটি সিগারেট বার করে ঠোঁটে দিয়ে দেশলাই হাতড়াচ্ছেন বাংলাদেশ বিশেষজ্ঞ সুখরঞ্জন তার পকেট থেকে লাইটার বার করে, তার সিগারেটটা ধরিয়ে দিল। এক মুখ আরামের ধোঁয়া ছেড়ে প্রেসিডেন্ট নজরুল ইসলাম বললেন, তুমিই আমায় সিগারেট দাও সুখরঞ্জন।

কলকাতার যে কজন রিপোর্টার সে-সময় বাংলাদেশ মুক্তিসংগ্রামের একজন যোদ্ধা হয়ে উঠেছিল, এ অধম তাদের একজন। যোদ্ধা মানে কলমযোদ্ধা। রিপোর্টার তো ইতিহাসের স্রষ্টা নন, তিনি দ্রষ্টা। তা এই চার চোখে (চশমা আছে বলে) গোড়া থেকে শেষ পর্যন্ত কত কী যে দেখলাম। সেই যে ২৪ মার্চ ঘোজাডাঙা বর্ডার কভার করতে গিয়ে, খুলনা থেকে পালিয়ে আসা একটি ছেলেকে নিয়ে বহু নামি লোকের দরজায় দরজায় ঘুরলাম, তার মুখ থেকে ২৪ মার্চ-এর মিলিটারি ক্রাপ ডাউনের ঘটনা শোনাবার জন্য। তারপর ৯০ লক্ষের ওপর উদ্বাস্তু এলো সীমান্ত পেরিয়ে। তাদের নির্গমন দেখলাম বর্ডারে গিয়ে। বুড়ো বাবা-মাকে নিয়ে ছইঢাকা গোরুর গাড়িতে শুইয়ে পুঁটলিপোঁটলা নিয়ে, বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে, আবার উদ্বাস্তু আসছে। যাদরে একদা ১৯৪৮ থেকে ১৯৫২ সালের মধ্যে আসতে দেখেছিলাম।

তারপর ম্যাজিকের মতো কলকাতা বদলে যেতে লাগল। নতুন তৈরি সল্টলেক সিটি তখন এক উদ্বাস্তু উপনিবেশ। প্লেন বোঝাই, মালগাড়ি বোঝাই, জাহাজ বোঝাই ত্রাণ আসছে। আমলারা, সাংবাদিকরা, ডিপলোম্যাটরা প্লেন বোঝাই হয়ে আসছেন। বাংলাদেশের পদস্থ আমলারা চলে আসতে লাগলেন। একদিন দেখি, শিখারপুরের পথে উ™£ান্তের মতো ঘোরাঘুরি করছেন এক ভদ্রলোক। নাম বললেন লুৎফুল হকÑ পাবনার এসডিও। সপরিবারে পালিয়ে এসেছেন। এখন কোথায় যাবেন বুঝতে পারছেন না। তাকে আনন্দবাজারের গাড়িতে করে কলকাতায় নিয়ে এলাম। আমার বাড়িতে বসে একসঙ্গে লাঞ্চ খেলাম। আমার মা পরিবেশন করলেন।

একদিন প্রেস ক্লাবে বসে সাংবাদিকদের বলছিলেন মুকুল আখতার। আগেও কলকাতা এসেছি। মুসলমান বলে, অনেকে আমার সঙ্গে খেত না। এবার এসে দেখি, কোথায় উড়ে গেছে জাতপাত। গঙ্গা ও বুড়িগঙ্গা কী করে মিলে গেল! কী করে রূপনারায়ণ আর পদ্মা একাকার হয়ে গেল? জাতপাত, ছোঁয়াছুঁয়ি, হিন্দু-মুসলমান এক হয়ে গেল! বাংলাদেশের যুদ্ধ যেন এপারেরও মুক্তিযুদ্ধ!
পূর্ববঙ্গে মাত্র কয়েক বছর আগে যে মুসলমানরা বাঙালি হিন্দুদের খুন করেছিল, ঘরে আগুন দিয়েছিল, মেয়েদের রেপ করেছিল, তারাই আবার সেই তাদের স্বাধীনতার জন্য প্রাণ দিচ্ছে। ইতিহাসে এর নজির নেই। এপার বাংলার বাঙালি হিন্দুর উন্মাদনা চোখে না দেখলে বিশ^াস করা যাবে না। দুঃখের বিষয়, এর কোনো ডকুমেন্টারি নেই। এমন কী বাংলাদেশের যুদ্ধ নিয়ে আমার ডেটলাইন ঢাকা ছাড়া প্রত্যক্ষদর্শীর কোনো বিবরণও প্রকাশিত হলো না। আমরা যে একদল বিশ^ সাংবাদিক ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১, কুমিল্লা থেকে ঢাকা যাবার পথে মধ্যরাতে মেঘনার বুকে কামানের গোলায় পদ্মা-মেঘনা সংগমের অতলে ডুবে যাচ্ছিলাম, এখন এসব কথা বললে, লোকে বলবে ব্রজবুলি। কিন্তু সে তো আমার ডেটলাইন ঢাকা লেখা আছে।

বাংলাদেশ নিয়ে কলকাতার বিভিন্ন সাংবাদিকের কভারেজ ইতিপূর্বে আমাদের ক্লাবের জার্নালে ছাপিয়েছি। কিন্তু এসব কেউ পড়তে চায় না। সে-সময়কার দুর্লভ ছবি তুলেছিল বীরেন সিংহ, অলক মিত্র, বিশ^নাথ রক্ষিত, তারাপদ বন্দ্যোপাধ্যায়, অশোক বসু। এদের অনেকে আজ প্রয়াত। ১৯৭১-এর ১৬ ডিসেম্বর থেকে ১৯৭২-এর মে পর্যন্ত আমি ঢাকায় আনন্দবাজারের প্রতিনিধি ছিলাম। যদিও তা প্রবাসে দৈবের বশে। কিন্তু ঢাকা আমার এত ভালো লেগে গিয়েছিল যে, আমি ঢাকায় পাকাপাকিভাবে কিছুকাল থাকতে চেয়েছিলাম। বিবি রাজি কিন্তু বড়সাহেব রাজি হননি। আমাকে না-কি ছাড়া যাবে না।

প্রেস ক্লাবেই আমার আলাপ হয় জাহির রায়হানের সঙ্গে। তার আগে আমি তার একটা উপন্যাস পড়েছিলাম ‘আর এক ফাগুন’। পাঠক হিসাবেই বাংলাদেশের এই ঔপন্যাসিক ও নবতরঙ্গের চিত্রপরিচালক জাহিরের সঙ্গে আলাপ। পরে বন্ধুত্ব। জাহির আমার তখনকার ক্রিস্টোফার রোডের ফ্ল্যাটে অনেকবার এসেছেন। বহু কষ্ট করে সীমান্ত পেরিয়ে কলকাতায় এসে ছিলেন। সে রোমহর্ষক কাহিনি আমায় শুনিয়েছিলেন জাহির। কলকাতায় খুব অর্থকষ্টে পড়েছিলেন। সেটা শুনে, আমার কাছে ছিল আর এক ফাগুনের যে কপিটা, সেটা কলকাতার এক প্রকাশককে দিয়ে ভারত সংস্করণ বের করালাম। কিছু টাকা জাহির পেলেন। জাহির ঢাকায় ফেরার সঙ্গে সঙ্গে মীরপুরে জহ্লাদবাহিনী তাকে হত্যা করে। ঢাকায় পৌঁছে আমি জাহিরের বাড়ি গিয়েছিলাম। জাহির তখন আর নেই। ঢাকায় আমার আলাপ হয় আবদুল গাফফর চৌধুরীর সঙ্গে। সাংবাদিক এবং গীতিকার। আমার ভায়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারিÑ আমি কি ভুলিতে পারি, তিনিই লিখেছিলেন। এক অসাধারণ উদার মানুষ ছিলেন তিনি। ছেলের নাম রেখেছিলেন অনিরুদ্ধ চৌধুরী। স্কুল আপত্তি করেছিল। মুসলমানের ছেলের হিন্দু নাম রাখা যাবে না। গাফফর ফাইট করেছিলেন এবং জিতেও ছিলেন। প্রায়ই আমাদের পূর্বাণী হোটেলের অফিসে আসতেন। প্রচুর আড্ডা হতো। বাংলাদেশ হওয়ার পর ওর অসুস্থ স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য অনেকদিন কলকাতায় এক হোটেলে ছিলেন। আমি প্রায়ই যেতাম ওর কাছে। মাঝে মাঝে প্রেস ক্লাবে নিয়ে আসতাম।

বাংলাদেশ যুদ্ধ এবং তারপর সরকার গঠন এবং সরকারের কাজকর্ম গাফফর সাহেবের পছন্দ হয়নি। মুকুল আখতার লিখেছিলেন : ‘আমি বিজয় দেখেছি’। মুকুল বাংলাদেশ প্রবাসী সরকারের সঙ্গে কাজ করেছেন। এ বইটি বাংলাদেশ যুদ্ধে কলকাতা পর্বের এক মূল্যবান দলিল। গাফফর সাহেব এই বইটির বিরুদ্ধে পালটা বই লেখেন : আমি বিজয় দেখিনি।
গাফফর সাহেব এরপর বাংলাদেশ ছেড়ে লন্ডন চলে যান। সেখান থেকে তিনি একটি বাংলা পত্রিকা প্রকাশ করেন। ১৯৭৮ সালে আমি লন্ডনে তার সঙ্গে দেখা করি। ১৯৮৩ সালেও দেখা হয়। তারপর নব্বইয়ের দশকে তিনি একবার কলকাতা এসেছিলেন। আমার সঙ্গে দেখা হয়। এটাই শেষ দেখা। জিজ্ঞাসা করেছিলেন, প্রেস ক্লাবের খবর কী? আমি বলেছিলাম, ক্লাবের বাইরেটা এখন রং হয়েছে। আসুন না একবার। তার আর আসা হয়নি।

গত ৭৫ বছর ধরে ক্লাব পশ্চিমবঙ্গে যে কোনো ঐতিহাসিক ঘটনার সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করেছে। তবে প্রথম ১০-১২ বছর ক্লাবের পরিসর খুব ছোট ছিল। তখন তো প্রেস কনফারেন্সও ক্লাবে বেশি হতো না। আমি সাংবাদিকতায় ঢুকি ১৯৫৯ সালে। তখন বেশিরভাগ প্রেস কনফারেন্স হতো মেট্রোপল হোটেল, ব্রডওয়ে হোটেল, ফিরপো কিংবা গ্র্যান্ডে। মিট দ্যা প্রেসও তখনও ভালো করে ক্লাবে শুরু হয়নি। ষাটের দশকের মাঝামাঝি থেকে ক্লাবের চেয়ে ভালো।

বাংলাদেশ যুদ্ধের সময় প্রেস ক্লাবের পরিকাঠামো প্রশস্ত হয়ে গিয়েছে। যে কোনো সেলিব্রিটিকে অভ্যর্থনা জানানোর মতো ব্যবস্থা তৈরি হয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশ যুদ্ধের আগে স্বয়ং ইন্দিরা গান্ধী এসে ক্লাবের লনে দোলনায় দোল খেয়ে গেছেন, তখন তিনি ভারতের তথ্য ও বেতারমন্ত্রী।
আবার ফিরে আসি বাংলাদেশ যুদ্ধ প্রসঙ্গে। কলকাতা থেকে ১৯১১ সালে যখন ভারতের রাজধানী দিল্লি চলে গেল, তখন থেকেই কলকাতা জাতীয় রাজনৈতিক গুরুত্ব হারায়। শুধু ভারতীয় কংগ্রেস কমিটির অধিবেশন, ’৪২-এর আন্দোলন, দাঙ্গা, মাঝে মাঝে গান্ধীজির কলকাতা আগমন ও দেশ বিভাগের দিনগুলি ছাড়া কলকাতার সর্বভারতীয় সংবাদের গুরুত্ব সাধারণভাবে হ্রাস পায়। কলকাতা একটি আঞ্চলিক শহরে পরিণত হয়। কলকাতার বাইরে কোথাও গেলে, সর্বভারতীয় খবরের কাগজে কলকাতা ডেটলাইনে কদাচ কোনো খবর চোখে পড়ে।

১৯৭১-৭২-এই দু-বছর কলকাতা রিপ ভ্যান ইউঙ্কলের মতো ঘুমঘোর থেকে জেগে উঠেছিল। সেই মহা প্রলয়ের মধ্যে Fire broke out at Jute go down মার্কা খবর করা রিপোর্টারও সর্বভারতীয় রিপোর্টারের সেই স্বর্ণযুগে প্রতিদিন কিছু-না-কিছু ডাবল কলাম স্টোরি করার সুযোগ পেত। প্রেস ক্লাব ছিল সাংবাদিকতার সেই রেনেসাঁসের পটভূমি। তখন বিকেলে একবার প্রেস ক্লাবে এলে শুধু ফল বিক্রেতা সমিতির প্রেস কনফারেন্স করে, চা মিষ্টি খেয়ে হ্যান্ড আউটে মুখ মুছে অফিসে ফিরতে হতো না, কিছু-না-কিছু খবরের মালমশলা জুটে যেত, যা কোনো অন্যমুখো সাব-এডিটর ছেঁড়া কাগজের ঝুড়িতে ফেলে দিতে পারত না। হায় সো হি দিবসা গতা। কলকাতার রিপোর্টারদের সে স্বর্ণযুগ আর ফিরবে না।

আর পড়তে পারেন