রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

সমকালীন ভাবনা: বৌভাত, সুন্নতে খৎনা এবং ব্যবসায়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৭, ২০২২
news-image

সাইদুল হাসান:

বৌভাত। বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ে চালু হওয়া প্রচলিত অনুষ্ঠানটির নাম ‘বৌভাত’। বর্তমান সময়ে শুধু হিন্দু সম্প্রদায়ে নয়, মুসলিম সম্প্রদায়েও এটি খুবই পপুলার একটি অনুষ্ঠানের নাম। এই সেগমেন্টটি ছাড়া আজকাল বেশিরভাগ বিয়েই হচ্ছে না। অর্থাৎ এসময়ে বিয়ের ক্ষেত্রে এই অনুষ্ঠানটির গুরুত্ব ব্যাপক। যদিও ইসলামী রীতি রয়েছে বিয়ে ও বিয়ের অনুষ্ঠানকে ঘিরে। সাধারণত বিয়ের এক দিন কিংবা দুই দিন পর বরের বাড়িতে বৌভাত অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যে প্রোগ্রামে বরের শ্বশুরবাড়ির মানুষজনসহ নিজের আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীদের দাওয়াত দেওয়া হয়ে থাকে এবং নানারকম সুস্বাদু খাবারের সমারোহ ঘটে। প্রোগ্রামটির অন্য নাম ‘প্রীতি ভোজ’। অতিথিরা এসব অনুষ্ঠানে এটেন্ড করেন এবং হরেক রকম উপহার প্রদান করে থাকেন কনে’কে। এসব অনুষ্ঠানের সবচে’ বৈচিত্র্যপূর্ণ দৃশ্যটি হচ্ছে ‘প্যান্ডেলের পাশে অথবা সামনে চেয়ার-টেবিল বসিয়ে, খাতা-কলম নিয়ে টাকা আদায় করা’। এই পার্ট’টির মানে কি? মানে হচ্ছে যেহেতু দাওয়াত খেতে এসেছেন, সুতরাং দাওয়াত খাওয়ার পর টাকা কিংবা উপহার দিয়ে যান। একজন বসে থাকেন ‘ক্যাশিয়ার’ হিসেবে। যিনি প্রাপ্ত উপহার কিংবা টাকার পরিমাণ ও প্রদানকারীর নাম খাতায় লিপিবদ্ধ করেন। টেবিলটিতে সাজানো থাকে পান-সুপারি, জর্দা এবং টিস্যু। অর্থাৎ হাত মুছার জন্য হলেও ঐ টেবিলের সম্মুখে আপনাকে দাঁড়াতে হবে। তখন হাত মুছে কিছু না দিয়ে চলে আসবেন? চক্ষুলজ্জ্বার কারণে এমনটা করতে সক্ষম হবেন না। অর্থাৎ টাকা না দিয়ে আসা মানে মানসম্মান বিলিয়ে দিয়ে আসা, বরপক্ষ এটা নিয়ে সমালোচনা করবে। অনেক দরিদ্র মানুষ আছেন যারা তিন বেলা খাবার যোগাড় করতে হিমশিম খান। তাদেরকেও ঐসব অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রণ করা হয়। অথচ অর্থকড়ির অভাবে উনারা এসব দাওয়াত থেকে বঞ্চিত হোন। (সকল বৌভাত প্রোগ্রামে কিন্ত এমন নিয়ম ফলো করে না।)

এবার আসি, সুন্নতে খৎনা অনুষ্ঠান বিষয়ে। বাঙালিসহ সারা বিশ্বের মুসলমান পুরুষদের মধ্যে এই রীতির প্রচলন। সুন্নতে খৎনা’কে ঘিরে নানান দেশে নানান ভোজের আয়োজন করা হয়ে থাকে। এদেশে যদিও বৌভাত এবং সুন্নতে খৎনার বিষয় কিংবা ঘটনা ভিন্ন তবুও দাওয়াতের পরিবেশ অনেকটা মিল। অর্থাৎ বৌভাত অনুষ্ঠানের মতো এটাতেও আত্নীয়স্বজন এবং পাড়াপড়শিদের আমন্ত্রণ করা হয়। যেখানে প্যান্ডেল কিংবা বাসার গেইটে টেবিল-চেয়ার বসিয়ে টাকা তোলা হয়। টেবিলে পান-সুপারি, জর্দা, খয়ার ও টিস্যু রাখা হয় এবং একটি খাতা রাখা হয় যা ইউজ করা হয়ে থাকে টাকা এবং উপহারের হিসেব রাখতে। উপহার প্রদানকারী এবং টাকা প্রদানকারীর নামও লেখা থাকে সিরিয়ালে। তারমানে এখানেও সেইম কাহিনী ঘটে বৌভাত অনুষ্ঠানের মতো। দাওয়াত খেয়ে টাকা কিংবা উপহার দিয়ে যান। কিছু না দিয়ে মাথা নিচু করে কোথায় যান?

এবার জানব ব্যবসায় সম্পর্কে। প্রথমে জানা দরকার ব্যবসায় কী? সাধারণত মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্য বৈধ উপায়ে পণ্য বা সেবাকর্ম ক্রয়-বিক্রয়ের কাজ-ই হলো ব্যবসায়। অর্থাৎ ব্যবসায় প্রথম এবং প্রধান উদ্দেশ্যই হচ্ছে মুনাফা অর্জন। এই একটি লক্ষ্য কিংবা উদ্দেশ্যকে ঘিরেই পৃথিবীর প্রতিটি ব্যবসায় পরিচালিত হয়ে থাকে। প্রাচীনকালে দ্রব্যের সাথে দ্রব্য আদান-প্রদানের মাধ্যম ব্যবসায় সংগঠন হতো। মানুষ তখন ঢালের সাথে শাকসবজির বিনিময় করতো। অর্থাৎ যার যেটা দরকার ছিল সে সেটা অন্যের থেকে নিতো তার কোনো একটি দ্রব্য প্রদানের মাধ্যমে। এর আগেও স্বর্ণমুদ্রার বিনিময় হতো ব্যবসায় কারবারে।

এবার আসি মূল কথায়, বৌভাত এবং সুন্নতে খৎনা অনুষ্ঠানে চেয়ার-টেবিল বসিয়ে টাকা তোলাকে আপনি কিসের অন্তর্ভুক্ত হিসেবে বিবেচনা করবেন? প্রোগ্রাম শেষে সন্ধ্যা কিংবা রাতে প্রাপ্ত উপহার ও টাকার হিসেব করা হয় এবং লাভ-ক্ষতির পরিমাণও বের করা হয়। যদিও লস বা ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। অনুষ্ঠানে যত টাকা খরচ হয় তারচে’ প্রায় দ্বিগুণ পরিমাণের টাকা ওঠে এসব অনুষ্ঠানগুলোতে। তাছাড়া প্রতিটি পরিবারে এক জন করে ইনভাইট করে অনেকগুলো পরিবারের সদস্যকে ইনভাইট করা হয়ে থাকে। যেখানে একজন খেতে এসেও সর্বনিম্ন পাঁচশত প্রদান করেন। আসুন একটু হিসেব করি। মনে করি, একজন মেহমান সর্বোচ্চ ২০০ টাকার খাবার ভক্ষণে সক্ষম হলেন কিন্তু তিনি টাকা কিংবা উপহার দিলেন ৫০০-৫০০০ টাকার। এক্ষেত্রে লাভবান কে হলেন? অর্থাৎ খরচের চেয়ে দ্বিগুণ, তিনগুণ কিংবা চারগুণ হারে মুনাফা অর্জিত হয় এসব অনুষ্ঠানে। তাছাড়া পরিকল্পনা করেই এসব হিসেব কষে বরপক্ষ এবং সুন্নতে খৎনা অনুষ্ঠানের আয়োজনকারীরা চেয়ার-টেবিল, খাতা-কলম নিয়ে টাকা ওঠায়। এখানে আমি চমৎকার একটি কৌশলগত ব্যবসায় লক্ষ্য করলাম। যেখানে লস হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম তবে লাভ হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। এসব ব্যবসায়ে মান-মর্যাদায় কোনো কমতি ঘটে না। ভদ্রবেশে হাজার-লাখ টাকা উপার্জন করা যায়। তাছাড়া সম্পর্কেরও কোনো ব্যাঘাত ঘটে না। সবদিক মিলিয়ে একটি কৌশলগত ব্যবসায়ের উৎকৃষ্ট উদাহারণ হিসেবে বিবেচনা করা যায় বৌভাত এবং সুন্নতে খৎনা নামক ব্যবসায়কে। যেখানে পূর্বানুমান, পরিকল্পনা, সংগঠন ও কর্মীসংস্থানের মতো ব্যবস্থাপনার কার্যাবলীও সংগঠিত হয়। পরিশেষে বলা যায়, বৌভাত, সুন্নতে খৎনাসহ অন্যান্য সামাজিক অনুষ্ঠানে চেয়ার-টেবিল বসিয়ে খাতা-কলম নিয়ে টাকা তোলা ভদ্রবেশে কৌশলগত ব্যবসায়ের অন্তর্ভুক্ত।

এগুলো সামাজিক অনুষ্ঠানের নামে ন্যাক্কারজনক ব্যবসায়। তবে আসুন, আমরা স্ব স্ব অবস্থান থেকে এসব সামাজিক অনুষ্ঠান বর্জন করি এবং নিজেরাও এরকম ব্যবসায় থেকে বিরত থাকি। কারণ এসব ব্যবসায়ে আমাদের মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত মানুষেরা টিকে থাকতে পারে না। অর্থের অভাবে গরিবরা এসব অনুষ্ঠানে দাওয়াত খাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়।

বি.দ্র. যে ব্যক্তির নগদ অর্থ কিংবা অন্যান্য উপহার দেওয়ার সামর্থ্য আছে, তিনি অবশ্যই নিজ থেকে বরপক্ষ এবং যার সুন্নতে খৎনা হয়েছে তাকে খোঁজে উপহার প্রদান করবেন। এটাই তো সুন্দর নিয়ম। সামর্থ্যবানরা এগিয়ে আসবেন। তাছাড়া গরিবরা নির্দ্বিধায় দাওয়াত খাবেন। এমন সুন্দর নিয়ম চালু হোক প্রতিটি সামাজিক অনুষ্ঠানে।

আর পড়তে পারেন