বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার ব্রিটানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বেসরকারি ২৪ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে ইউজিসির নিষেধাজ্ঞা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৫, ২০১৮
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:

দেশের ২৪ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। বুধবার দুপুরে ইউজিসির অতিরিক্ত পরিচালক (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়) জাফর আহম্মদ জাহাঙ্গীর এ সংক্রান্ত একটি সতর্কবার্তা জারি করেন।

সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, এ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে কয়েকটির বিরুদ্ধে অবৈধ ক্যাম্পাসে কার্যক্রম চালানোর অভিযোগ রয়েছে। কোনোটির বিরুদ্ধে অননুমোদিত প্রোগ্রাম চালানোর অভিযোগ, শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধের নির্দেশপ্রাপ্ত, সনদ বাণিজ্যসহ নানা অপরাধে কয়েকটি অভিযুক্ত এবং বন্ধ ঘোষিত। কিন্তু উচ্চ আদালত থেকে স্থগিতাদেশ নিয়ে এগুলো পরিচালিত হচ্ছে। আবার মালিকানা নিয়ে দ্বন্দ্বের অভিযোগ আছে কয়েকটির বিরুদ্ধে।

এতে আরও বলা হয়েছে, দেশে বর্তমানে ১০১টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আছে। এর মধ্যে ৯২টি কার্যক্রম শুরু করেছে। এর মধ্যে ২৪টির ব্যাপারে ভর্তি সতর্কতা বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ৮টি আছে নতুন। এগুলো এখনও কার্যক্রম শুরু করেনি। ভর্তি হয়ে শিক্ষার্থীরা যাতে প্রতারিত না হয়, সেজন্য সতর্ক করতে সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ইউজিসিকে বিজ্ঞপ্তি দিতে নির্দেশনা দেয়া হয়।

এর আলোকে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। এই বিজ্ঞপ্তিতে ভিসি, প্রো-ভিসি ও কোষাধ্যক্ষ না থাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ব্যাপারেও শিক্ষার্থীদের সতর্ক করা হয়েছে। কেউ অনুমোদনহীন কোনো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বা অনুমোদিত বিশ্ববিদ্যালয়ের অননুমোদিত ক্যাম্পাস বা অননুমোদিত কোনো প্রোগ্রাম বা কোর্সে ভর্তি হলে তার দায়-দায়িত্ব শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা ইউজিসি নেবে না বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। ইবাইস ইউনিভার্সিটি ( ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্যরা দুই গ্রুপে বিভক্ত হয়ে একে অন্যের বিরুদ্ধে আদালতে একাধিক মামলা করেছে), আমেরিকা বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি (৫৪/১ প্রগতি সরণী, বারিধারা, নর্দ্দা, পুলিশ স্টেশন, গুলশানের ঠিকানা শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার কোনো সুযোগ-সুবিধা নেই।

ফলে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অবৈধ ক্যাম্পাস উচ্ছেদ করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরকে অনুরোধ করা হয়েছে), ইউনিভার্সিটি অব কুমিল্লা ( ২০০৬ সালের ২২ অক্টোবর এই বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দেয় সরকার। বর্তমানে মামলা রয়েছে), সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এই বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে দুটি মামলা আদালতে বিচারাধীন আছে), গণ বিশ্ববিদ্যালয় ( মামলা রয়েছে), দারুল ইহসান বিশ্ববিদ্যালয় (সব আউটার ক্যাম্পাস বন্ধ ঘোষণা), কুইন্স ইউনিভার্সিটি (বিশ্ববিদ্যালয়টি শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করতে পারেনি) ৪ বিশ্ববিদ্যালয়ের অননুমোদিত ক্যাম্পাস : ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির ফয়’স লেক, খুলশী, চট্টগ্রামের ক্যাম্পাসকে অনুমোদিত স্থায়ী ক্যাম্পাস জানিয়ে ইউজিসি বলছে, ধানমন্ডির ৬৩ সেন্ট্রাল রোডে বিশ্ববিদ্যালয়টির অনুমোদিত ক্যাম্পাস) দি পিপলস ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের (ঢাকার উত্তরার আব্দুল্লাহপুরে বিশ্ববিদ্যালয়টির অননুমোদিত ক্যাম্পাস), ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়ার (বাড়ি-৭২, রোড-১৭, ব্লক-সি, বনানী, ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয়টির একটি অননুমোদিত ক্যাম্পাস), অতীশ দীপঙ্কর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয়ের (ঢাকার উত্তরায় ১২ নম্বর সেক্টরের বাড়ি-৫১, শাহ মখদুম রোড এবং বাড়ি-০২, সোনারগাঁও রোডে দুটি অননুমোদিত ক্যাম্পাস) ট্রাস্টি বোর্ড নিয়ে দ্বন্দ্ব-মামলা ৫টি বিশ্ববিদ্যালয় : ঢাকার ইবাইস ইউনিভার্সিটি, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, কুমিল্লার ব্রিটানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রামের প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটি ও সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের ট্রাস্টি বোর্ড নিয়ে দ্বন্দ্ব এবং আদালতে মামলা বিচারাধীন।

শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়নি ৮টি বিশ্ববিদ্যালয় : রবীন্দ্র সৃজনকলা বিশ্ববিদ্যালয়, রূপায়ন এ কে এম শামসুজ্জোহা বিশ্ববিদ্যালয়, আনোয়ার খান মডার্ন ইউনিভার্সিটি, জেড এন আর এফ ইউনিভার্সিটি অব ম্যানেজমেন্ট সায়েন্সেস, আহছানিয়া মিশন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, শাহ মখদুম ম্যানেজমেন্ট ইউনিভার্সিটি, খুলনা খান বাহাদুর আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয় এবং বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনও শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়নি। তাই এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি না হতে সর্তকতা জারি করা হয়েছে। সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

আর পড়তে পারেন