শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ভ্লাদিমির পুতিন: আনপ্রেডিক্টবল পাওয়ারফুল ম্যান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৮, ২০১৭
news-image

 

রেজাউল হক রিয়াজ :

ভ্লাদিমির পুতিন। বর্তমান বিশ্বের ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের কাতারে প্রথম স্থানেই তার নাম। কে.জি.বির অখ্যাত গোয়েন্দা কর্মকর্তা থেকে রাশিয়ার ফাষ্ট পারসনের চেয়ারে আসীন করতে খুব বেশী সময় নেননি। বিশাল সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পরে ভঙ্গুর রাশিয়াকে পুনর্গঠন করে স্থিতিশীল অবস্থায় রূপ দিতে ভ্লাদিমির পুতিনের ভূমিকায় রাশিয়ার জনগন আস্থা রাখে বারবার। তার অর্থনৈতিক ও কুটনৈতিক ক্ষেত্রে সাহসী ও সঠিক সিদ্ধান্তের কারণে রাশিয়া হয় হারানো শক্তির নতুন শক্তিধর আর তিনি হন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর ব্যক্তি। নতুন কিছু করা আর নতুন কিছুর সন্ধ্যানে থাকার অদম্য চেষ্টা ডানপিঠে সাধারণ তরুণকে কিভাবে সারা পৃথিবী গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিতে পরিণত করে ভøাদিমির পুতিন তার উজ্জল দৃষ্টান্ত। সারা বিশ্বে যার পরিচয় এখন “আনপ্রেডিক্টবল পাওয়ারফুল ম্যান” সেই ভ্লাদিমির পুতিনের জন্ম ১৯৫২ সালের ৭ অক্টোবর  আজকের এই দিনে।

১. পূর্বসূরীরা:

খুবই সাধারণ পরিবারের সন্তান ভ্লাদিমির পুতিন। ভ্লাদিমির দাদা ও বাবার জন্মস্থান সেন্ট পিটার্সবার্গে। দাদা পেশায় ছিলেন একজন বাবুর্চি। সাধারণ মানুষ হলেও অসাধারণ রান্নার হাতের সুবাদে লেলিনের মৃত্যুর পরে ষ্ট্যালিলের বাড়ীতে কাজ পানতিনি। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ১৯১১ সালে জন্ম গ্রহণ করেন পুতিনে বাবা ভ্লাদিমির স্পিরিন্দোনোভিচের। কিশোর বয়সে তখনকার দুঃর্ভিক্ষের কারণে মায়ের সাথে পমিনোভোতে পাড়ি জমান পুতিনের বাবা। সেখানেই পুতিনের বাবা-মায়ের সাক্ষাৎ হয় এবং উভয়ের ১৭ বছর বয়সে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। মা মারিয়া ইভানোভার ৪১ বছর বয়সে ১৯৫২ সালে ৭ অক্টোবর জন্ম হয়পুতিনের।১৯৩২ সালে পুতিনের বাবা মা সেন্ট পিটার্সবাগে এসে পিটারহফের শহরতলীতে বসাবাস শুরু করেন। তার বাবা সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে সাবমেরিনের দায়িত্ব পালন করেন এবং তার মা একটি ফ্যাক্টরীতে কাজ করেন। এসময় তার এক ভাই জন্মের কয়েক মাসের মধ্যেই মারা যান।

পুতিনের বাবার চাকরী শেষ হয়ে গেলে তিনি আবার স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে যোগ দেন এবং তার অন্যান্য সকল ভাইও যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন। অর্থাভাবে পিটারহফে জীবন চালানো অসম্ভব হয়ে পড়ায় পুতিনের মা তার ভাইয়ের নিকট বেশ কিছুদিন থাকেন যিনি একজন নৌ কর্মকর্তা ছিলেন। কিন্তু পুতিনের মামা অন্যত্র বদলী হওয়ায় আবার কষ্টে পতিত হন পুতিনের মা। খাবার যোগান দিতে না পারায় অবস্থা এতো শোচনীয় হয় যে, খাবারের অভাবে কয়েকদিন অনাহারে থাকার কারণে অজ্ঞান হয়ে পড়েন তিনি। আশেপাশের লোকজন তিনি মারা গেছেন ভেবে শেষকৃত্যের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন কিন্তু মা হঠাৎ জ্ঞান ফিরে পেয়ে আর্তনাদ শুরু করলে সে যাত্রায় পুতিনের মা বেঁচে যান। এখানে তিনি রাতে বেকারির ডেলিভারীর কাজ করতেন আর দিনে ল্যাবরেটরিতে টেস্টিউব পরিস্কার করতেন। তিনি এখানে ষ্টোরের গার্ড হিসেবে কাজ করেও অতি কষ্টে জীবন চালাতেন। ওদিকে জার্মানসীমান্তে স্যাবোটাজের কাজ করতে গিয়ে দুই দফা আটকা পড়েন পুতিনের বাবা। ২৮ জনের মাঝে বেঁচে আসা মাত্র ৪ জনের একজন তিনি হলেও গুরুতর আহত হয়ে দীর্ঘদিন হাসপাতালে কাটিয়ে চিরদিনের জন্য পঙ্গু হয়ে যান। পুতিনের মা দীর্ঘদিন পর তার স্বামীকে হাসপাতালে খুঁজে পান। পরবর্তীতে পুতিনের বাবা টুলমেকার হিসেবে কাজ করতেন। ইয়েলগোরোভ ট্রেইন ফ্যাক্টরী কাজের সুবাদে পুতিনের বাবা পিটার্সবার্গের বাস্কোভ লেনের একটি এপার্টমেন্ট থাকার একটি রুম পান এবং এখানেই তারা বসবাস করতে থাকেন।

২. স্কুল বয় ভলদয়া:

১৯৬০ সালে আট বছর বয়সে ধূসর রংয়ের মিলিটারী ইউনিফর্মের মতো পুরোনো দিনের ইউনিফরম পড়ে ১৯৩ নং স্কুলে যাওয়া শুরু করেন ভ্লাদিমির পুতিন। ছোটবেলায় কাছের মানুষেরা তাকে ভলদয়া নামে ডাকতো। ষষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত ভলদয়া স্কুলে যাওয়ার বদলে খেলাধূলা করতে ভালোবাসতেন। তার বাড়ীর সামনের চত্ত্বর ছিলো তার কৈশর কাটানোর প্রিয় স্থান। বাড়ীর রাস্তায় মাত্র সাত মিনিট দূরত্ব হওয়ায় ভলদয়া সবসময় স্কুলে দৌড়াতে দৌড়াতে দেরিতে স্কুলে গিয়ে ক্লাসের পিছনের বেঞ্চে বসতেন, এমনকি শীতের দিনে প্রচন্ড ঠান্ডার মাঝেও জ্যাকেট পড়তে দেরি হয়ে যাবে বলে জ্যাকেট ছাড়াই দৌড়িয়ে যেতেন। ষষ্ঠ শ্রেনী পর্যন্ত পড়ালেখায় গোছালো না থাকলেও তার স্মৃতিশক্তি ও প্রশংসনীয় শিখতে পারার ক্ষমতা ছিলো। স্কুলের অঘোষিত নেতা হওয়ায় সামাজিক কারণে তাকে রেজাল্ট ভালো করতে হতো। বহু বারণ সত্ত্বেও প্রতিবেশী কভসভ ব্রাদার্সদের সাথে সারাদিন বাঁদরামি করে বেড়াতো এবং চেষ্টা করেও তাদের আলাদা করা যায়নি। কিন্তু ষষ্ঠ শ্রেণীতে ভলদয়ার মাঝে দ্রুত পরিবর্তন ঘটতে থাকে। সে তার লক্ষ্য নির্ধারণ করে ফেলে। বুঝতে পারে তাকে জীবনে কিছু করতে হবে। তখনই তার শিক্ষিকা ভেরা দিমিত্রিভেনা গুরেভিচ উপলদ্ধি করেন, এই ভ্লাদিমির বড় হয়ে অনেক নাম করবে। যা তিনি তার পরবর্তীতে সাক্ষাৎকারে বলেন।

ভ্লাদিমির গিটার বাজাতে ভালোবাসতেন। তার প্রিয় গান ছিলো ভস্তকি‘র ভার্টিকাল এ্যালবামের গান। অধিকাংশ ছাত্রছাত্রীদের নাচ পছন্দ থাকলেও তাকে নাচে অংশগ্রহন করাতেজোর করতে হতো। খেলাধূলাকেই ছিলো তার কাছে প্রিয়। ছোটবেলায়ই সে নিজের প্রতিরক্ষায় মার্শাল আর্ট শিখে। বক্সিং শেখা শুরু করলেও বেশী দূর এগুতে পারেননি বক্সিং শিখতে গিয়ে নাক ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে। এরপর প্রথমে সেসাম্বো ওপরে জুডো শেখায় মনোনিবেশ করে। তাকে সাম্বো প্রশিক্ষণ দেন তার প্রিয় প্রশিক্ষক অ্যানাটোলি রাখলিন। এ খেলাধূলার কারণেই তাকে বিভিন্ন শহরে ভ্রমন করতে হতো আর এতেই তার রাস্তায় দাবড়িয়ে বেড়ানো বন্ধ হয়েছিলো। ভলদয়া নিজেই তার সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘‘ আমি যদি খেলাধুলায় মনোনিবেশ না করতাম তাহলে কোন পথে থাকতাম তা আমার জানা নেই।’’ তিনি জুডোকে মনে করতেন একটি দর্শন। ভ্লাদিমির খেলাধূলার ব্যাপারে মন্তব্য করেন, ‘‘খেলাধূলা তখনই খেলাধূলা হবে যখন আপনার গায়ের রক্ত ও ঘাম ঝড়াতে হবে।’’ জুডো শুরু করার দুই বছরের মধ্যেই সে সাফল্য পেয়েছিলো।

অষ্টম শ্রেণী পাশ করে ভলদয়া রসায়নে ভালো এমন স্কুল বেছে নেন। সে আর তখন লেখাপড়া নিয়ে হেয়ালি করে না। পড়ালেখার পাশাপাশি স্কুলে জার্মান শিখতে থাকে। স্কুল গ্রাজুয়েশন শেষ করে অন্যান্যদের মতো টেকনিক্যাল ইন্সষ্টিটিউটে ভর্তি না হয়ে তার বদলে সে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার সিদ্ধান্ত নেন। সবাই যদিও তাকে টেকনিক্যাল ইনিষ্টিটিউটে বা আর্মিতে যোগ দিতে বলেন কিন্তু সে তার সিদ্ধান্তে অটল, সে বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পড়বে। তার পিতা ও প্রশিক্ষকরা চেষ্টা করেও তাকে আইন পড়া থেকে বিরত রাখতে পারেননি। তার বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন পড়তে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি ইন্টেলিজেন্সে কাজ করবেন বলে।

গুপ্তচরদের বই ছিলো তার সবচেয়ে প্রিয়। তিনি ভেবে বিস্মিত হতেন, মাত্র একজন লোকের প্রচেষ্টায় কীভাবে এমন কিছু অর্জন করা সম্ভব হতো যা পুরো আর্মিরপক্ষেও সম্ভব ছিলো না। নবম শ্রেণীতে থাকাকালীন তিনি সরাসরি কেজিবির ডিরেক্টরের রুমে গিয়ে ইন্টেলিজেন্স এ যোগ দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেন। সেদিন তিনি জানতে চেয়েছিলেন কোন ধরনের লেখাপড়াকে স্পাই হওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেয়া হয়। ডিরেক্টর বলেছিলেন ‘‘আইন”। এই ছিলো সে মূহুর্ত যখন তিনি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিলেন তাকে আইন পড়তে হবে এবং ইন্টেলিজেন্টে যোগ দিতে হবে। ভøাদিমির তার স্বপ্নের কথা এভাবে, ‘‘এটা আমার স্বপ্ন ছিল। যদিও তখন এই স্বপ্ন বাস্তবায়নের কোন পথ আমার জানা ছিলো না।”

৩. বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ :

১৯৭০ সালে কঠিন প্রতিযোগিতার মাঝে লেলিনগ্রাদ ষ্টেট ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার সুযোগ করে নেন পুতিন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পেয়ে ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে তিনি প্রচুর পড়ালেখা করতেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকাকালীন সময় তিনি পড়ালেখার বাহিরে তিনি কোন কাজেই জড়িত হননি। এর ফলাফলও তিনি পেয়েছেন রেজাল্টের ক্ষেত্রে।

পুতিনের পারিবারিক অর্থনৈতিক অবস্থা খুব ভালো ছিলোনা। তাকে ফ্যামিলি থেকে পড়ালেখার খরচ নেয়ার প্রয়োজন হতো। একবার পারিবারিক অবস্থা শোচনীয় হয়ে পড়ায় তাকে খরচ চালাতে কন্সট্রাকশন কর্মীর কাজে যোগ দিতে হয়েছিলো। কোমিতে গিয়ে লাম্বার ইন্ডাস্ট্রির হয়ে গাছ কাটেন, বাড়িঘর মেরামত করেন এবং কাজ শেষে ১০০০ রুবেলও ইনকাম করেন। তবুও তিনি অন্যান্য তরুণদের মতো কন্সট্রাকশনে আর কাজ করতেন না শুধুমাত্র তার পড়ালেখায় মনযোগ দেয়ার কারণে। পুতিন মনে করেন, তিনি সেখানে কাজ করলে আরো কিছু অর্থ উপার্জন করতে পারতেন কিন্তু তাতে লক্ষ্য পূরণে আদৌ কি কোন লাভ হতো?

বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকাকালীন পুতিন পড়ালেখার ওপর সর্বাধিক মনযোগ দেন, পাশাপাশি সে খেলাধূলায়ও গুরুত্ব দেন। পড়ালেখার পর দ্বিতীয় স্থানে ছিলো তার অ্যাথলেটিক্স। অভ্যাসবশত প্রতিদিন সে ব্যায়াম করতো এবং সবল অল ইউনিয়ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিতো। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির কিছুদিনের মধ্যে তিনি সাম্বো মাস্টারে “ব্লাক বেল্ট” লাভ করেন এবং দুই বছরের মাঝে সে জুডোতে মাষ্টার হন।প্রচন্ড পরিশ্রম করতে হতো তাকে এসব প্রতিযোগিতায়। ১৯৭৬ সালে পুতিন জুডোতে সিটি চ্যাম্পিয়ন হন। তার প্রতিপক্ষরা খুব সহজ প্রতিপক্ষ ছিলোনা। সাম্বো ও জুডোতে স্থানীয়রা ছাড়াও পেশাদার ও অলিম্পিক বিজেতারাও অংশ নিত এমনকি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরাও অংশ নিতো। যেসব প্রতিযোগিতায় সে বিজয় অর্জন করেছিলো সেগুলোতে ম্যাচ শেষে তার শ্বাস নিতে কষ্ট হতো এমনকি খুব অল্প ব্যবধানে সে বিজয় অর্জন করতো। প্রতিযোগিতার সুবাদে সে দেশব্যাপী ঘুরে বেড়াতো। ব্যায়াম ও প্রতিযোগিতার জন্য সে খুব বেশী মদ পান করতো না বা পার্টিতেও যোগ দিতো না। পুতিন কোন জুয়া অংশ নিতো না যদিও তার বন্ধুরা তার নিকট থেকে টাকা নিয়ে জুয়ায় অংশ নিতো। সে বিশ্ববিদ্যালয় পড়াকালীন নিজেকে ধীরে ধীরে বদলে নেন। তার দ্রুত কথা বলার অভ্যাস সে পরিবর্তন করেন। সুন্দর করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে গুছিয়ে আবেক দিয়ে কথা বলায় নিজেকে অভ্যস্ত করে নেন একটু একটু করে।

বিশ্ববিদ্যালয় রোমান্সের উপযুক্ত সময় ও স্থান। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ার সময় পুতিন একজন মেডিকেল স্টুডেন্টের প্রেমে পড়েছিলেন। তাদের মাঝে খুব ভালো সম্পর্ক ছিলো এবং তারা বিয়ের সিদ্ধান্তও নিয়েছিলো। তাদের বাবা মা বিয়ের আংটি কিনেছিলেন, কোট গাউন তৈরী করেছিলেন, সব কিছু প্রস্তুত করেছিলেন। কিন্তু কোন এক অজানা কারণে বিয়ে আর শেষ পর্যন্ত গড়ায়নি। পুতিন ফিরে এসেছিলেন বিয়ে সিদ্ধান্ত থেকে। কিন্তু কখনো তিনি বলেননি কেন তারা আলাদা হয়েছিলেন, কেনই বা তারা বিয়ের সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হটেছিলেন। যদিও পুতিনের জন্য এ সিদ্ধান্ত ছিলো অত্যন্ত কষ্টের ও কঠিন তবু সে নিজেকে সামলে নেয়।

৪. গোয়েন্দা:

বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকালীন পুতিন তার  লালিত স্বপ্ন সদা জাগরুক রেখেছেন। অপেক্ষা করতেন কখন তাকে কে.জি.বি তে তার ডাক পড়বে। চারটি বছর পার হয়ে গিয়েছিলো বিশ্ববিদ্যালয়ের কিন্তু কে.জি.বিতে প্রবেশ করার কোন উপায় তৈরী হয়নি তার নিকটে। আইন পড়ালেখার সুবাদে পড়ালেখার শেষ পর্যায়ে প্রসিকিউটর অফিস বা এটর্নী হিসেবে কাজ শুরু করার চিন্তা ভাবনা করেন। কিন্তু তখনই তার লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নের দ্বার উম্মুক্ত হয়।

৪র্থ বর্ষে একজন লোক এসে তাকে কে.জি.বির কর্মকর্তার সাথে সাক্ষাৎ করতে বললে সে বুঝতে পারে তার কাঙ্খিত সময় তার নিকটে হাজির হয়েছে। কে.জি.বি কর্মকর্তা তাকে আমন্ত্রন জানান কে.জি.বিতে কাজ করার করার জন্য। তিনি নিজের পুরাতন আগ্রহ সম্মুখে প্রকাশ না করে কাজ করার সম্মত্তি প্রদান করেন। এসময় তাকে দেমিত্রি গান্টসেরভের থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পারসোনাল ডিপার্টমেন্টে চাকুরী করার আমন্ত্রন জানানো হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ থেকেও চাকুরীতে নিয়োগ দেয়ার কথাও বলা হচ্ছিল কিন্তু কে.জি.বির কর্মকর্তা তাকে নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে কনফার্ম করলে অন্য চাকুরীতে আর যোগদান করা হয়নি। সপ্তাহ খানেকের মাঝে সে ফরম ফিলাপ করে নিয়োগপ্রাপ্ত হন এজেন্সীতে।

পুতিন কে.জি.বিতে সর্বপ্রথম ডিরেক্টরের সেক্রেটারী হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। পরবর্তীতে নিয়োগ পান কাউন্টার ইন্টেলিজেন্স ডিভিশনে। ইন্টেলিজেন্সে যোগ দেয়ার জন্য তাকে কমিউনিষ্ট পার্টিতে যোগ দিতে হয়েছিলো।নিয়মটা এমনই ছিলো কারণে পার্টিতে যোগ না দিলে কারো সুপারিশ পাওয়া যাবে না। আর সুপারিশ না পেলে ইন্টেলিজেন্সে চাকুরীর সমাপ্তি ঘটবে। পুতিন কে.জি.বির সকল কাজ পছন্দ করতেন না। জনগনের স্বার্থ বিরোধী এবং অপ্রয়োজনীয় কাজে তিনি ঘোর বিরোধীতা করতেন। জুনিয়র অফিসার হওয়ায় অনেকেই তাকে থামিয়ে দেয়ার চেষ্টা করতো কিন্তু তিনি আইন, জনস্বার্থ বিরোধী কাজের ঘোর বিরোধীতা করতেন। এজেন্সীর সকল ইন্টেলিজন্টদের নিকটই ফরেন ইন্টেলিজেন্সে কাজ করাটা স্বপ্নের মতো ছিলো। অনেকে এর সুযোগ নিয়ে বৈদেশিক পন্য পাচারের সুযোগ নিলেও পুতিন তার নতুন কিছু শেখার আগ্রহের কারণেই ফরেন ইন্টেলিজেন্সে যোগ দিয়েছিলেন।

ভ্লাদিমির পুতিনের চারিত্রিক বৈশিষ্টগুলি খুবই শক্তিশালী। অত্যন্ত ধৈর্যশীল মানুষ তিনি। যখন তিনি কোন কিছু করেন তখন তিনি সে কাজ অত্যন্ত মনযোগ দিয়ে করেন। ফুটবল খেলতে নামলে প্রতিপক্ষের সাথে তিনি জয়ী হতেন শুধু মাত্র ধৈর্য্য আর মনযোগের কারণে। তার এ চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য তার সকল কার্যক্রমে প্রকাশিত হয়। তিনি ছিলেন প্রচন্ড সাংগঠনিক দক্ষতা ও লিডারশীপ সম্পন্ন মানুষ। নিজস্ব কৌশল, সততা, দেশপ্রেমে তিনি একজন প্রশ্নাতীত ব্যক্তিত্ব। তুখোর বুদ্ধির অধিকারী ও যেকোন পরিস্থিতি মোকাবিলায় তিনি সদা প্রস্তুত। তার প্রশিক্ষকগন তার অত্যাধিক জ্ঞান বুদ্ধিতে ছিলেন বিস্মিত। অন্যান্য প্রশিক্ষনার্থীদের সাথে ব্যালেন্স করার জন্য তার মূল্যায়ণ রিপোর্টে তাদের তার ব্যাপারে নেতিবাচক মন্তব্য লিখতে হতো। ফরেন এজেন্ট হিসেবে প্রশিক্ষন শেষ হলে ভ্লাদিমির পুতিনকে কেজিবির প্রতিনিধি হিসেবে জার্মানীতে পাঠানো হয়।

এজেন্সীর ট্রেনিং স্কুলে থাকার সময় পুতিনের স্ত্রী লুডামিলা শ্রেবনেভা সাথে প্রথম স্বাক্ষাৎ হয় আর্কাডি রাইনকিনের দেখার থিয়েটারে। তৃতীয়বার সেই থিয়েটারে গিয়ে কেলিনিনগ্রাদের মেয়ে লুডার সাথে স্বাক্ষাৎ হয়। লুডামিলা তখন ডমেস্টিক ফ্লাইটে স্টিউড্রেস হিসেবে কাজ করতেন। উভয়েই বন্ধুদের আমন্ত্রনে সাড়া দিয়ে থিয়েটার দেখতে গিয়েছিলেন। প্রথম স্বাক্ষাতে খুব ভলদয়াকে খুব একটা ভালো লাগেনিলুডার কাছে কিন্তু দুই এক দিনের মাঝেই তাদের ভালো বন্ধুত্ব তৈরী হয়।অন্যরা ভøাদিমিরের সুপ্ত যে আকর্ষন শক্তির কারণে আকৃষ্ট হয় ঠিক একই ভাবে লুডামিলা ধীরে ধীরে আকৃষ্ট হন। বিয়ের আগে তাদের সাড়ে তিন বছর প্রণয়ের সম্পর্ক ছিলো। বন্ধুদের বারণ স্বত্ত্বেও ৩০ বছর বয়সে ভ্লাদিমির পুতিন লুডার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। লুডামিলা তার জীবনের সবকিছু বদলে দিয়েছিলেন। ভ্লাদিমির পুতিন ও লুডামিলা পুতিনের সংসারে মারিয়া পুতিনা মাশাও  ইয়েকাতেরিনা পুতিনা কাটিয়ানামে দুইটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। ভ্লাদিমির কখনো তার স্ত্রীকে তার জব এর ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলেননি। শুধু বলেছেন পুলিশের চাকুরী করেন। লুডাও কিছু জানতে চাননি। ৩০ বছর পুতিন ও লুডামিলা সংসার করার পর ২০১৪ সালে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে।

১৯৭৫ থেকে ১৯৯১ পদত্যাগ পর্যন্ত ভ্লাদিমির পুতিন ১৬ বছর কে.জি.বি তে কর্মরত ছিলেন, এর মাঝে ১৯৮৫ সাল থেকে তিনি জার্মানী ছিলেন বার্লিন প্রাচীর পতন পর্যন্ত। কে.জি.বি তে কর্মরত থাকাকালীন তিনি ইন্টেলিজেন্স এ কাজ করাটা তিনি খুব উপভোগ করতেন। ইন্টেলিজেন্সে কাজের ক্ষেত্রে মুক্ত চিন্তার অধিকার ও এখতিয়ার ছিলো। এজন্য তিনি কাজকে নিজের সাজিয়ে নিতেন। স্পাই হিসেবে তার কাজ ছিলো রাজনৈতিক ব্যক্তিদের ব্যাপারে তথ্য সংগ্রহ ও সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্ধিদের পরিকল্পনা বের করার চেষ্টা করতেন। পুতিন নিজের সার্বক্ষনিক তার কাজ নিয়ে খুব ব্যস্ত থাকতেন। জার্মানীতে তিনি ছিলেন সিনিয়র কেস অফিসার। পরবর্তীতে ডিপার্টমেন্ট এ্যাসিসটেন্ট হেড হিসেবে কর্মরত ছিলেন। কর্মরত থাকাকালীন তাকে একজন ‘‘সুপার স্পাই” হিসেবে ধরা হতো। খুব অল্প সময়ে পারদর্শিতা প্রদর্শণ করে তথ্য সংগ্রহ করতে পারতেন তিনি এবং দ্রুত কাজের ফলাফল এনে দেয়ার জন্য তিনি এ খ্যাতি অর্জন করেছিলেন।

তিনি কখনো তার পরিচয় গোপন করেননি। যদিও কে.জি.বির মূলনীতি অনুযায়ী তার স্ত্রীর সাথেও কাজের কোন বিষয় আলোচনা করতেন না।  জার্মানীতে কাজের শেষদিকে কাউন্টার ইন্টেলিজেন্সের নিকট সব কার্যক্রম জেনে যাওয়ার কারণে সোর্সদের সাথে সকল যোগাযোগ বন্ধ করে দেন।সব তথ্য উপাত্ত নষ্ট করে ফেলেন এবং গুরুত্বপূর্ন তথ্য উপাত্ত রাশিয়ায় পাঠিয়ে দেন। বার্লিন প্রাচীর পতনের সময় জার্মান আন্দোলনকারীরা তাদের অফিসকে জার্মান গোয়েন্দা অফিস মনে করে ভাঙচুর করে। ভøাদিমির পুতিনের দক্ষতায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সংরক্ষিত হয় ও তারা রক্ষা পায়, পরে মিলিটারী এসে তাদের উদ্ধার করে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

৫.আন্ডারকভার সিভিল অফিসার:

জার্মানী থেকে ফিরে দেশের অবস্থার কোন পরিবর্তন দেখতে না পেয়ে ভ্লাদিমির কে.জি.বি ছেড়ে দেয়ার ব্যাপারে মনস্থির ফেলেন। তাকে প্রধান কার্যালয়ে কাজের প্রস্তুাব দেয়া হলেও তিনি সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন। কারণ, তিনি বুঝতে পারেন কে.জি.বির কাজের আর কোন ভবিষ্যৎ নেই। শুধু বেতন পাওয়ার জন্য কে.জি.বিতে যোগ দেননি। যখন তিনি বুঝতে পারেন তার কাজের কোন মূল্য নেই তখন তিনি কে.জি.বি ছেড়ে নতুন কিছু খুঁজতে লেগে যান।

ভ্লাদিমির পুতিন ভিন্ন চিন্তা না করে কেজিবির আন্ডারকভার হিসেবে লেলিনগ্রাদ ইউনিভার্সিটিতে ভ্যালেরি আব্রাম অভিচ মুসিন এর অধীনে ডক্টরেট শুরু করেন। কাজ শুরু করেন প্রাইভেট ইন্টারন্যাশনাল ল’ নিয়ে। তিনি ইনিভার্সিটির প্রেসিডেন্টের সহাকারী হিসেবে ইন্টারন্যাশনাল রিলেশন ডিপার্টমেন্টে যোগ দেন।এখানে বেশ কিছুদিন কাজ করার পর পুরাতন বন্ধুদের পরামর্শে লেলিনগ্রাদ সিটি কাউন্সিলের চেয়ারম্যান র সাথে সাক্ষাৎ করেন, সাবচ্যাক তাকে ডেপুটি হিসেবে নিয়োগদেন। সুবিবেচক, জনপ্রিয় অ্যানাটলি সাবচ্যাক ভ্লাদিমির পুতিনের উপরে সকল বিষয়ে যথেষ্ট আস্থা রেখেছিলেন, তিনি পুতিনের নিকট থেকেও সম্মান অর্জন করেছিলেন। তিনি ভ্লাদিমির পুতিনের বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষকও ছিলেন বটে। সাবচ্যাক পুতিনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজ থেকে রিজাইন দিতে বললেও কে.জি.বি কর্মকর্তাদের অনুমতি পাওয়ায় তাকে কে.জি.বি থেকে রিজাইন দিতে হয়নি এমনকি তাকে কোন অপারেশনেও নিয়োগ দেয়া হয়নি।

ভ্লাদিমির পুতিন কে.জি.বি র কর্মকর্তা ও মেয়রের আস্থাভাজন হওয়ায় সাথে অফিসের অন্যদের চক্ষুসূল হন। তারা তাকে ব্লাকমেইল করে ঝামেলায় ফেলার চেষ্টা করছিলো। তিনি এজেন্সীর চাকরী স্থিতিশীল থাকা সত্ত্বেও চাকরী থেকে রিজাইন দেয়ার কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়ে নেন এবং লেলিলগ্রাদে টেলিভিশনে সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে জনসম্মুখে তার অতীত নিয়ে প্রশ্নের জবাব দেন। তিনি কে.জি.বি থেকে রেজিগনেশন লেটার জমা দিলেও তার রেজিগনেশন আটকে ছিলো বলে ১৯৯১ সালের ১৮ ও ১৯ তারিখের আগষ্ট কপের সময় সিদ্ধান্ত নিয়ে ২০ তারিখ পুনরায় ২য় বার পদত্যাগ পত্র জমা দেন এবং সে সময় তার পদত্যাগ পত্র অনুমোদন হয়েছে।

কেজিবি কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব শেষ করে পুরোদস্তুর রাজনীতিতে জড়িত হয়ে যান। সাবচ্যাক তার উপরে আস্থা রাখছিলেন বলে তখনো তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র লেগেই ছিলো কারণ তিনি প্রাক্তন কে.জি.বির এজেন্ট। ‘ফুট ডেলিভারী স্ক্যান্ডেল’ এর মাধ্যমে তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হলেও তিনি ভালোভাবেই সে ষড়যন্ত্র থেকে উৎড়ে যান। তাকে অনেকেই পথের কাটা মনে করতো কারণ তার দৃঢ়তায় অনেকের অবৈধ বাড়তি আয় সম্ভব হতো না।

৬. ফাস্ট পারসনের পথে নতুন যাত্রা:

ভ্লাদিমির পুতিন তার চাকরী ছেড়ে পিটার্সবার্গে নির্বাচনে অংশ নেন এবং নির্বাচনে হেরে বেকার হয়ে পড়েন। নতুন চাকরীর সন্ধানে বেশ কিছু দিন কেটে যায় কিন্তু জীবিকা নির্বাহের জন্য পেশা খুঁজে পান না তিনি। কিছুদিন পর প্রেসিডেন্সিয়াল প্রশাসনের প্রধান নিকোলাই মস্কো ডেকে তার ডেপুটি হিসেবে নিয়োগ দেন কিন্তু এর তিনদিনের মাথায় তিনি অপসারণ হলে পুতিনের সে চাকরীতে আর যোগ দেয়া হয়নি। চাকরী শুরু করার পূর্বেই তিনি আবার বেকার হয়ে হয়ে যান, আরো বেশ কিছু দিন  বেকার অবস্থায়ই অতিবাহিত হয়ে যায়। চাকরী না থাকায় সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছিল তাকে।

ভ্লাদিমির পুতিন কর্মঠ ও নিষ্ঠাবান অফিসার হিসেবে সকলের নিকট বেশ সমাদৃত ছিলেন। এসময় হঠাৎ করেই তার কর্মজীবনে দ্রুতই পরিবর্তনের হাওয়া লাগলো। প্রেসিডেন্টের মেইন কন্ট্রোল চীফ অ্যালক্সই কুরডিন তাকে ডেকে গনসংযোগ ডিরেক্টরেটের প্রধান হিসেবে কাজ করার প্রস্তাব দেন। অভিজ্ঞতা না থাকলেও পাবলিকের সাথে কাজ করার চাকরীর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়ে নেন তিনি। কিন্তু আরো নতুন কিছু সংবাদ তার অপেক্ষা করছিলো। নিয়োগ লাভ করে অ্যালেক্স কুরডিনের সাথে গাড়ীতে মস্কো ত্যাগ করার জন্য এয়ারপোর্টে যাওয়ার পথে তিনি ফাস্ট ডেপুটি পদে প্রমোশন পাওয়ায় বোরোডিনকে অভিনন্দন জানানোর জন্য ফোনে কথা বলেন। বোরডিন অভিনন্দন গ্রহণ করে তাকে ৩০ মিনিট পর ফোন দিতে বলেন। প্লেনে উঠার শেষ মুহুর্তে বলশাকোভ তাকে ফোন করলেন এবং তাকে কিছুদিন মস্কো থাকতে বলে পরের দিন বোরডিনের সাথে সাক্ষাতের এপোয়েন্টমেন্ট ঠিক করেন। পরের দিন ফাস্ট ডেপুটি বোরডিনের সাথে সাক্ষাৎ করলে তিনি ভ্লাদিমির পুতিনকে তার ডেপুটি হিসেবে কাজ করার প্রস্তাব দেন। অবশেষে দীর্ঘদিন বেকার থাকার পর বহু ঘটনার পরে ১৯৯৬ সালের আগস্টে মস্কোর ওল স্কয়ার এ প্রেসিডেন্টের জেনারেল অ্যাফেয়ার্স ডিপার্টমেন্টের ডেপুটি হিসেবে যোগ দেন।

মস্কোতে নিয়োগ পেয়ে ভ্লাদিমির পুতিন তার স্ত্রীলুডা, দুই মেয়ে সহ স্বপরিবারে পিটার্সবার্গ ত্যাগ করে মস্কোতে ঠিকানা করেন। দেশের বাহিরে থাকা ছাড়া পিটারের বাহিরে কোথাও তারা ছিলেন না বলে প্রথমে কষ্ট হলেও মস্কোর পরিবেশ ও ব্যস্ততার মাঝে অল্পদিনেই নিজেদের মানিয়ে নেন।

কর্মস্পৃহা, আস্থা ও নিষ্ঠার সুফল পেতে ভ্লাদিমির পুতিনের খুব বেশী সময় লাগেনি। বেশ কিছুদিন চাকরী শূন্য থাকার পরে চাকুরীতে জয়েন করে দ্রুতই উন্নতি করেন তিনি। মাত্র ৪ বৎসরের মাঝে ডিপার্টমেন্টের ডেপুটি অফিসার হিসেবেশুরু করেএকেবারে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদ প্রেসিডেন্টহিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৬ সালে তিনি প্রেসিডেন্টের জেনারেল এ্যাফেয়ার্সের ডেপুটি অফিসার হিসেবে নিয়োগ পান, ১৯৯৭ সালে তিনি মেইন কন্ট্রোল ডিরেক্টরের প্রধান হিসেবে প্রমোশন পান। ১৯৯৮ সাল তার জন্য আরো গুরুত্বপূর্ণ, প্রথমে প্রেসিডেন্সিয়াল প্রশাসনের প্রধানের মর্যাদা লাভ করেন ও দেশের সকল অঞ্চলগুলোর সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং পরবর্তীতে তিনি রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সিকিউরিটি এজেন্সী এফ.এস.বি’র ডিরেক্টর হলেন। সে বছরইসিকিউরিটি কাউন্সিলের সেক্রেটারী হলেন। ১৯৯৯ সাল তার জন্য আরো গুরুত্বপূর্ন হয়ে উঠে, প্রথমে তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী হন এবং বরিস ইয়েলিৎসিন আকস্মিকভাবে পদত্যাগ করলে বছরের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর থেকে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্টেরে দায়িত্ব ভার গ্রহন করেন।

ভ্লাদিমির পুতিন চাকরীবিহীন বেকার ছিলেন। মাত্র কয়েক বছরে একজন সাধারণ কর্মকর্তা থেকে দেশের ফাস্ট পারসনের আসন অলংকৃত করেছেন অথচ তিনি প্রেসিডেন্সিয়াল প্রশাসনের কাজের সৃজনশীলতা না থাকায় চাকরী ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন। তবে যখন তিনি চাকরী ছেড়ে দেয়ার কথা ভাবছিলেন তখন তাকে ফাস্ট ডেপুটি হিসেবে প্রেসিডেন্সিয়াল প্রশাসনে নিয়োগ দেয়া হয়। সকল অঞ্চলের দায়িত্ব তার হাতে আসে এবং সকল গভর্নরদের সাথে কাজ করার সুযোগ তৈরী হয়। তিনি এ কাজে বেশ আগ্রহী ছিলেন কারণ দেশ সম্পর্কে তার আরো বেশী জানার আগ্রহ ইতিমধ্যেই তৈরী হয়েছিলো এবং তিনি এ কাজে নতুনত্ব খুঁজে পাবার আশা করছিলেন।

নতুন করে হঠাৎ তাকে নিয়োগ দেয়া হয় ফেডারেল সিকিউরিটি অর্থাৎএফ.এস.বির ডিরেক্টর হিসেবে। এখানে তার নিয়োগটাও বেশ চমকপ্রদ। প্রধানমন্ত্রী কিরিয়েঙ্কো কারোলিয়া থেকে অবকাশযাপন শেষে বিমানবন্দরে নামেন, পুতিন যান তাকে রিসিভ করতে আর সেখানেই তাকে এফ.এস.বি. র ডিরেক্টর হিসেবে নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে তাকে অবগত করেন। যদিও ভ্লাদিমির এ কাজে খুব একটা আগ্রহী ছিলেন না কারণ মিলিটারী ধাঁচের সংস্থার কাজেপুনরায় কাজ করার আগ্রহ ছিলো না আর এখানে নজরদারী থাকায় ও পর্যাপ্ত স্বাধীনতার না থাকায় তখন এ জাতীয় সংস্থায় কাজ করা তার নিকট বেশ পীড়াদায়ক ছিলো। এফ.এস.বি র জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের জন্য এফএসবির ডিরেক্টরের অফিসে যান তখন পূর্বের ডিরেক্টর নিকোলাই কোভালভ তাকে গোপন নোটবুক খুলে দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন।

যেহেতু তিনি পূর্বের অফিসার ছিলেন তাই তাকে সতর্কতার সাথে স্বাগতম জানানো হয় কারণে দশ বছর আগে তিনি লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে সার্ভিস শেষ করেন এবং পুনরায় সর্বপ্রথম ব্যক্তি হিসেবে একজন সিভিলিয়ান হিসেবে প্রেসিডেন্সিয়াল প্রশাসনের চীফের ফাস্ট ডেপুটির মর্যাদা নিয়ে ফিরে আসেন। তিনি খুব সতর্কতার সাথে পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে প্রয়োজনীয় স্থানে সংস্থার টপ লিডারশীপে পরিবর্তন আনায়ন করেন। তিনি স্পোশাল সার্ভিসগুলোতে বিভাজন আনার চেষ্টা করেন। তিনি মনে করেন, “যদি একজন নীতি নির্ধারকের প্রেক্ষাপট থেকে বিবেচনা করি তবে আমাকে বলতে হবে, “একটি মাত্র উৎস থেকে তথ্য পাবার চেয়ে একাধিক উৎস থেকে তথ্য প্রাপ্তি অধিক সুবিধাজন।”

প্রেসিডেন্ট ইয়েলিৎসিনের ২/৩ মাসের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন স্টোপাশিনে। হঠাৎ বোরিস ইয়েলৎসিন ভ্লাদিমিরকে তার অফিসে ডেকে পাঠান এবং তাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান। কয়েকদিনের মাঝে একদিন সকালে ইয়েলিৎসিন, স্টোপাশিন, নিকোলাই আকজেনেঙ্কো এবং ভ্লাদিমির পুতিন একত্রিত হলেন এবং ইয়েলিৎসিন প্রধানমন্ত্রী স্টোপাশিনকে পদত্যাগ করতে বলেন। ভ্লাদিমির পুতিনকে ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষনা দেন। পরবর্তীতে বরিস ইয়েলিৎসিন টেলিভিশনে সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে পুরো দেশের সামনে ঘোষনা করেন।

২০০০ সাল অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তিনি জয়লাভ করেন। ২০০৪ সালে ২য় মেয়াদের জন্য পুনরায় রাষ্ট্রপতি হিসেবে নির্বাচিত হন। তার এ মেয়াদ শেষ হয় ৭ মে ২০০৮ সালে। কিন্তু সাংবিধানিক বাধ্যবাধ্যকতার কারণে পুতিন ধারাবাহিকভাবে ৩য় মেয়াদের জন রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি।  পরিবর্তীতে ২০০৮ সালের রাষ্ট্রপত নির্বাচনে তার উত্তরসূরী হিসেবে দিমিত্রি মেদভেদেভ বিজয় লাভ করলে তিনি ভ্লাদিমির পুতিনকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মনোনীত করেন। ২০০৮ সালের ৮ মে পুতিন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দাপ্তরিক দায়িত্ব গ্রহন করেন। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি ঘোষনা দেন তিনি ৩য় মেয়াদের জন্য রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে অংশ নিবেন। ২০১২ সালের নির্বাচনে অংশ নিয়ে নিয়ে তিনি পুনরায় রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন।

৭.সিম্পল ম্যান:

ভ্লাদিমির পুতিন এর ক্যারিয়ার বিদ্যুৎবেগে এগিয়ে চলছিলো এতে অবাক হননি তার সাবেক সহধর্মীনি লুডামিলা পুতিন। ডিভোর্সের পূর্বের সাক্ষাৎকারে তার ভাষ্য,‘‘ কিছুদিন আগেও সে ছিল সেন্ট পিটার্সবার্গের অজ্ঞাত ডেপুটি মেয়র। আর আজ সে দেশের প্রধানমন্ত্রী, তবে আমার এটুকু বিশ্বাস ছিল যে, ভলদয়ার পক্ষে সকল কিছুই করা সম্ভব। আমি ওকে নিয়ে গর্বিত। আর এ কারণে ওর প্রশংসা আমাকে করতেই হবে। ও একজন নিষ্ঠাবান লোক। ও বরাবরই নিজের লক্ষ্য অর্জনের জন্য কঠোর পরিশ্রম করে গেছে। প্রত্যেকেই কোন না কোন উদ্দেশ্যে কাজ করে। অনেকে কাজ করে টাকা কামানোর উদ্দেশ্যে।  তবে ভলদয়া সবসময়ই নিজের দর্শনের জন্য কাজ করে গেছে। আর ও নিজের কাজর প্রক্রিয়া নিয়ে সন্তুষ্ট। আর এ ধরনের লোকেরা অনেক দূরে এগুতে পারে।”

প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ পাবার কিছুদিনের মাথায় তার পিতা মারা যান। প্রচন্ড ব্যস্ততার মাঝে প্রতি সপ্তাহেই সাপ্তাহিক ছুটির দিনে সে তার বাবাকে দেখতে যেতেন। তিনি ভয় করতেন শেষ সময়ে বিদায় জানাতে বাবার পাশে থাকতে পারবেন কিনা। তবে তার সৌভাগ্য হয়েছিলো তার বাবার মৃত্যুর সময় তার পাশে থাকার।

একজন নিষ্ঠাবান সফল ব্যক্তির আড়ালে ভ্লাদিমির পুতিন ভিন্ন ধারার একজন মানুষ। প্রচুর পরিশ্রম করতে পারেন তিনি। প্রখর স্মৃতি শক্তি তার। তিনি নিরব প্রকৃতির মানুষ নন। ভালো জোকস বলে সবাইকে হাসাতে পারেন আর অবসরে আড্ডা দিতে ভালোবাসেন। তিনি নারীদের প্রতি খুব একটা মনযোগী নন। তিনি কখনোই তার সমস্যা পরিবারের সাথে আলোচনা করেন নাই বা পরিবারকে জড়াননি। খুব বেশী মদ্যপান কখনোই করেন নাই। ঘুরে বেড়ানো তার শখ থাকলেও রাষ্ট্র প্রধান হওয়ার আগে খুব একটা ঘুরতে তিনি পারেননি। প্রতিদিন সকাল ব্যায়াম করেন এবং সন্ধ্যায় নিয়মিত সাঁতারকাটেন। তার গোপন বিষয় হলো তার দুই কন্যা, তার সমসময় সবার চোখের আড়ালেই ছিলো। পরিবার পরিচালনা ও পারিবারিক খরচ নিয়ন্ত্রনের ভার সবসময় স্ত্রী লুডামিলার হাতে থাকতো। তিনি কখনো সঞ্চয়ের চিন্তা করেন নাই। তিনি বলেন,‘‘ টাকা সঞ্চয় করে কি হবে? আমার মনে হয় আপনার নিজের আয় দিয়ে সব সময়ই একটি ভালো জীবনযাত্রার মান রাখা উচিত। ভালো খাবার, পোশাক-আশাক, মাঝে মাঝে সপরিবারে ঘুরতে বের হওয়া। এই কাজগুলোর জন্য অর্থের প্রয়োজন। এছাড়া আমার কাছে আর অর্থেও কোন প্রয়োজনীয়তা নেই।”

৮. দ্যা প্রেসিডেন্ট:

ভ্লাদিমির পুতিন প্রধানমন্ত্রী হওয়া পর সেখানেই তার ক্যারিয়ার সমাপ্তির সম্ভবনা তৈরী হয়। ড্যাগস্ট্যান বিদ্রোহীদের কারণে পরিস্থিতি প্রতিকূলে চলে যাচ্ছিল। তিনি বিদ্রোহ দমন করতে প্রয়োজনে নিজের ক্যারিয়ারের সমাপ্তির জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করেন। তিনি ড্যাগস্ট্যান ও চেচনিয়ায় প্রথমত কাউকে আঘাত না করে সমাধানের চেষ্টা করেন কিন্তু যখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রয়নের বাহিরে যাওয়ার উপক্রম হয় তখন রাশিয়াকে টিকিয়ে রাখতে বিদ্রোহ দমনে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। বিদ্রোহ দমনের মাধ্যমের রাশিয়ার ২য় প্রেসিডেন্ট হিসেবে এবং বরিস ইয়েলিৎসিনের যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে নিজেকে কার্যকরীভাবে প্রতিষ্ঠিত করেন।

পুতিন তার সময়কালে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এনেছেন। অঙ্গরাজ্যগুলোর অখন্ডতা বজায় রাখতে সক্ষম হয়েছেন। পুতিনের দীর্ঘ শাসনামলে জিডিপি বৃদ্ধি পেয়েছে ৭২%। দারিদ্রতা কমেছে অর্ধেক পরিমান। জনগনের গড় মাসিক বেতন $৮০থেকে $৬৪০ বৃদ্ধি পেয়েছে। লভ্যাংশের উপর কর হ্রাসসহ ১৩% হারে আয়কর ধার্য্যরে বিষয়ে আইন পাশ করেন। জ্বালানী নীতি ঘোষনার পর রাশিয়া বৃহৎ জ্বালানী শক্তিতে আবির্ভূত হয়। আনবিক শক্তি ব্যবহার করে জ্বালানী খাতে নবজাগরণ সৃষ্টি করে। ইস্টার্ন সাইবেরিয়া-প্যাসিফিক ওসান অয়েল পাইপলাইন তৈরী মাধ্যমে শক্তিশালী করেন জ্বালানী খাত।

ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার অন্তর্ভূক্তকরণ, আইএস এর পৃষ্টপোষকদের মুখোশ উম্মোচন, জি-৮ থেকে বহিস্কৃত হয়েও রাশিয়ার অর্থনীতির চাকা সচল রাখাসহ বিভিন্ন কার্যকরী পদক্ষেপ নিয়ে সারা বিশ্বে হৈ চৈ ফেলে দিয়েছেন এ বিশ্বনেতা।

যদিও পশ্চিমা রাষ্ট্র ও পর্যবেক্ষক এবং দেশের অভ্যন্তরে বিরোধীরা তাকে অগনতান্ত্রিক হিসেবে আখ্যায়িত করেন কিন্তু তিনি দেশের আইনের শাসন প্রবর্তন ও স্থিতিশীলতা আনায়নের প্রেক্ষাপটে রুশ সমাজব্যবস্থায় তিনি জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। ফোর্বস ম্যাগাজিনের তালিকায় সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি তিনি। তিনি শুধু ম্যাগাজিনের করা তালিকাতেই নন, বাস্তবিক অর্থেই তিনি বর্তমান বিশ্বের “আনপ্রেডিক্টবল পাওয়ারফুল ম্যান” বা সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি বটে।

তথ্যসূত্রঃ

১. উইকিপিডিয়া ২. ফাস্ট পারসন বাই ভ্লাদিমির পুতিন ৩. বিভিন্ন ব্লগপোষ্ট ৪. জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পত্রিকা ৫. ভ্লাদিমির পুতিনের সাক্ষাৎকার

 

লেখক: আইনজীবী

আর পড়তে পারেন