শনিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে হত্যা মামলার আসামি ৪ কাউন্সিলর প্রার্থী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৬, ২০২২
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে হত্যা মামলার ৪ আসামি কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। নগরীর চাঞ্চল্যকর যুবলীগ নেতা জিল্লুর রহমান ওরফে জিলানী হত্যা, ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন হত্যা এবং ব্যবসায়ী আক্তার হোসেন হত্যা মামলার আসামি তারা। এসব মামলায় কারাবরণ করে জামিনে মুক্ত আছেন। ইতোমধ্যে ৪ জনকে বৈধ প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনে এসব প্রার্থী প্রভাব বিস্তার করতে পারে বলে অনেকের আশঙ্কা।

২০১৮ সালের ২৬ নভেম্বর রাতে নগরীর বল্লভপুর এলাকায় কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনকে (৪৫) গুলি করে হত্যা করা হয়। ওই হত্যা মামলার আসামি আবদুস সাত্তার এবারও ২৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। আব্দুস সাত্তার আলোচিত যুবলীগ নেতা জিল্লুর রহমান ওরফে জিলানী হত্যা মামলারও আসামি।

২০২০ সালের ১১ নভেম্বর নগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের চৌয়ারা এলাকার বাসিন্দা যুবলীগ নেতা জিল্লুর রহমান চৌধুরী ওরফে জিলানীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ওই হত্যা মামলার ৪ নম্বর আসামি খলিলুর রহমান মজুমদার এবারের নির্বাচনে ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন। একই হত্যা মামলার ২ নম্বর আসামি মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি আবদুস সাত্তার ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে এবং মামলার প্রধান আসামি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসান ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন। এই তিন প্রার্থীই জিল্লুর হত্যা মামলায় কারাগারে ছিলেন। তারা জামিনে বেরিয়ে এসে নির্বাচন করছেন। তিনজনই সাবেক কাউন্সিলর।

স্থানীয়রা জানান, নগরীর ২৫, ২৬ ও ২৭ নং ওয়ার্ডে আধিপত্য বিস্তারের লড়াই রয়েছে। ভারত সীমান্তবর্তী তিন ওয়ার্ডে রয়েছে মাদক ব্যবসায়ীদের আস্তানা। স্থানীয় প্রভাবশালী রাজনৈতিক সিন্ডিকেটের সদস্যরা ওই এলাকায় চাঁদাবাজি, চৌয়ারা বাজার ও সেখানের বড় একটি গরুর হাট, চোরাচালান নিয়ন্ত্রণসহ নানা অপরাধে যুক্ত। এসব নিয়ে বেশ কয়েকটি আলোচিত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এসব হত্যাকাণ্ডের তির এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ প্রভাবশালীদের দিকেই। এর আগে ২০১৭ সালের ৩০ মার্চ অনুষ্ঠিত কুসিক নির্বাচনে ২৫ নম্বর ওয়ার্ড থেকে জিল্লুর রহমান চৌধুরী (নিহত) ও ২৬ নম্বর ওয়ার্ড থেকে দেলোয়ার হোসেন (নিহত) কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করে পরাজিত হন। এবারের নির্বাচনে যাতে তারা প্রার্থী হতে না পারেন, সেজন্য তাদের হত্যা করা হয় বলে ধারণা স্বজনসহ এলাকাবাসীর।

২০২১ সালের ১০ জুলাই জুমার নামাজের পর নগরীর কোটবাড়ি সড়কের চাঙ্গিনি মোড় এলাকায় কুসিকের ২৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ হত্যা মামলায় দীর্ঘদিন কারাগারে থাকার পর সম্প্রতি জামিনে বেরিয়ে এসে ফের ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন আলমগীর হোসেন। স্থানীয়দের অভিযোগ ওই ওয়ার্ড এলাকায় চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত রয়েছেন আলমগীরসহ তার সহযোগীরা।

অভিযোগের বিষয়ে ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী খলিলুর রহমান মজুমদার বলেন, জিল্লুর হত্যায় আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। হয়রানি করার জন্য আমাকে আসামি করা হয়েছে। আমি শান্তিপূর্ণ নির্বাচনে জনতার রায়ে নির্বাচিত হতে চাই।

২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুস সাত্তার বলেন, হত্যাকাণ্ডের শিকার ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন ছিলেন আমার রাজনৈতিক গুরু। আমি কোনোভাবেই দেলোয়ার হত্যায় জড়িত নই। আমাকে পরিকল্পিতভাবে এ হত্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া নিহত জিল্লুর হত্যায়ও আমি জড়িত নই। কিন্তু কী কারণে আমাকে মামলায় জড়ানো হয়েছে তা বুঝতে পারছি না। এ ছাড়া নির্বাচনের মাঠে আতঙ্ক ছড়ানোর মতো কোনো কাজও আমি এবং আমার সমর্থকরা করে না।

২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হাসান বলেন, প্রতিপক্ষের লোকজন পরিকল্পিতভাবে আমাকে জিল্লুর হত্যা মামলায় জড়িয়েছে। রাজনৈতিক মতবিরোধ ও গ্রুপিং দ্বন্দ্বের ফলে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটলেও আমাকে অন্যায়ভাবে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে।

২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর হোসেন বলেন, নির্বাচনি বিধিবিধান মেনেই কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হয়েছি। আমি ও আমার সমর্থকরা কোনো অপরাধে জড়িত নই। জনগণ আমার সঙ্গে আছে। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতেই ভোটে অংশ নিচ্ছি। তিনি বলেন, পূর্ব বিরোধের জেরে আমাকে ব্যবসায়ী আক্তার হত্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে।

সূত্র- যুগান্তর

আর পড়তে পারেন