Tag Archives: দক্ষিণ আফ্রিকায় ডাকাতের গুলিতে নাঙ্গলকোটের যুবক নিহত

দক্ষিণ আফ্রিকায় ডাকাতের গুলিতে বাংলাদেশির যবুক নিহত

ডেস্ক রিপোর্ট:

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে রিগান ইসলাম (৩৫) নামে এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে।

তার বাড়ি নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায়।

সোমবার (২৬ জুন) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে ফ্রি-স্টেট প্রদেশের বুসাবেলোতে নিজ প্রতিষ্ঠানের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রিগান ইসলাম কবিরহাট উপজেলার বাটইয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম শ্রীনদ্দি গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে। দুই ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।

নিহতের ছোটভাই ফাহিম মাহমুদ মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার রাত ১১টার দিকে সেদেশে অবস্থান করা আত্মীয়-স্বজনরা রিগানের মৃত্যুর বিষয়টি আমাদের পরিবারকে নিশ্চিত করেন।

বাড়িতে রিগানের মা-বাবা, স্ত্রী, ভাই-বোনসহ রোহান নামে তিন বছর বয়সী এক ছেলে সন্তান রয়েছে।

প্রবাসী আত্মীয়দের বরাত দিয়ে নিহতের পরিবারের আরেক সদস্য মো. শিপন বলেন, সোমবার রাতে দোকানের জন্য মালামাল কিনে ফেরার পর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনেই আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা রিগানকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি ছোড়ে। এতে তার মাথায় ও শরীরে ছয়টি গুলি লাগে। রিগানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, পরিবারে স্বচ্ছলতা ফেরাতে ১৫ বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমান রিগান। সেখানে নিজে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালু করে ভালোই উপার্জন করছিলেন তিনি। ২০২১ সালে সর্বশেষ দেশে এসে ৫ মাস ছুটি কাটিয়ে কর্মস্থলে ফিয়ে যান রিগান। আগামী দুই মাস পর তার দেশে আসার কথা ছিল। সেই আশা আর পূরণ হলো না তার।

নিহতের স্ত্রী সাথী আক্তার (২৫) স্বামীর মৃত্যুর সংবাদে এখন পাগলপ্রায়। বারবার মুর্ছা যাচ্ছেন আর ছেলেকে কোলে নিয়ে কাঁদছেন। তার একটাই বিলাপ কাকে নিয়ে কীভাবে বাঁচবো? স্বামীর মরদেহ দেশে আনতে সরকারের সহযোগিতাও কামনা করেছেন তিনি।

দক্ষিণ আফ্রিকায় ডাকাতের গুলিতে নাঙ্গলকোটের যুবক নিহত

 

মোঃ কামাল হোসেন জনি :

দক্ষিণ আফ্রিকায় কুমিল্লা নাঙ্গলকোট উপজেলার মোঃ ইসমাইল হোসেন (৩২) নামের এক যুবককে গুলি করে হত্যা করেছে ডাকাতরা।

নিহত মোঃ ইসমাইল হোসেন  উপজেলার পানকরা গ্রামের মোঃ আবুল কালামের বড় ছেলে ।

শুক্রবার (২৪ আগষ্ট) বাংলাদেশ সময় রাত ১০ টার সময় দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গ সিটিতে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় ও পরিবার সুত্রে জানা যায়, ইসমাইল ২০১১ সালের ৩রা ফেব্রুয়ারি জীবিকার তাগিদে দক্ষিণ আফ্রিকা যান। শুক্রবার বাংলাদেশ সময় রাত ১০টার সময় ইসমাইলের দোকানে ডাকাত হামলা করে । ওই সময় তার বাবাও দোকানে উপস্থিত ছিল। বাবার সামনেই তার ছেলে ইসমাইলকে গুলি করে হত্যা করে ডাকাতরা। লুট করে নিয়ে যায় মালামাল। ওই সময় অজ্ঞান হয়ে যান নিহতের পিতা আবুল কালাম।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, ইসমাইল দীর্ঘ ৮ বছর যাবত দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে ইলিয়াসবেগ ইলেকট্রনিক্সের দোকান পরিচালনা করে আসছেন। আগামী কয়েকমাসের মধ্যে দেশে ফিরে বিয়ে করার কথা ছিল ইসমাইলের।

নিহত হওয়ার ২ ঘন্টা আগে অর্থাৎ রাত ৮ টায় ইসমাইল তার মায়ের সাথে শেষ কথা বলেন।

নিহতের ছোট মামা মামুনুর রশিদ দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে মুঠোফোনে ভাগিনার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মরদেহ স্থানীয় থানায় রয়েছে । মরদেহ দেশে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।