Tag Archives: কুমিল্লা সিভিল সার্জন

ভিক্টোরিয়ার শিক্ষার্থী কিডনি রোগে আক্রান্ত সাদিয়া বাঁচতে চায়, প্রয়োজন ৩৫ লাখ টাকা

 

স্টাফ রিপোর্টার:
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পেয়েছেন জি.পি.এ ৫ ।  ভর্তিও হয়েছিলেন প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে। কিন্তু জটিল কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে হারিয়েছেন দুটি কিডনি। বর্তমানে মুমূর্ষ  অবস্থায় চিকিৎসাধীন রয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইংরেজি ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী সাদিয়া আফরিন(২১)।

গৌরীপুর শায়েস্তানগর গ্রামের জহিরুল হক ভূঞা ও মেহেরুন্নেসা বকুলের সন্তান সাদিয়া আফরিন এর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হন নিজ জেলা শহর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগে।

সাদিয়াকে বাঁচাতে  কুমিল্লার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আর্থিক অনুদান সংগ্রহ শুরু করছেন তার সহপাঠীরা। লক্ষ্য একটাই যে করে হোক সহপাঠীকে আবার শিক্ষাঙ্গনে সুস্থ্য  অবস্থায় দেখতে চায় তারা।

পিতা জহিরুল হক ভূঞা বলেন, আমার সন্তান নবাব ফয়জুন্নেসা স্কুল থেকে ২০১৬ সালে মাধ্যমিকে গোল্ডেন জিপিএ ৫ পেয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজে ভর্তি হয়, সেখান থেকে ২০১৭ সালে পুনরায় জিপিএ ৫ পেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি হয়েছিলো। ২০১৭ সালে কিডনি রোগ ধরা পড়ে। চিকিৎসার খরচ চালাতে চালাতে আমি নিঃস্ব প্রায়। আর্থিক দুরাবস্থার কারণে আর খরচ চালাতে পারছিনা। ডাক্তার জানিয়েছে কিডনি প্রতিস্থাপন করতে ৩৫ লাখ টাকা প্রয়োজন। এতো টাকা কোথায় পাবো। এই শহরের বিত্তবান মানুষরা যদি একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতো আমার মেধাবী মেয়েটা হয়তো জীবন ফিরে পেতো।

সাদিয়া আফরিন এর সহপাঠী ফাতেমা জান্নাত বলেন, শুধুমাত্র অর্থের জন্য আমরা আমাদের সহপাঠী কে হারালে মানবিকতার কাছে আমরা হেরে যাবো৷ তাই সবাই মিলে আর্থিক সাহায্য সংগ্রহ করছি। যে করেই হোক মেধাবী এ সহপাঠীকে আবার আমরা সুস্থ্য  অবস্থায় শ্রেণীকক্ষে দেখতে চাই।

ইংরেজি চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মহসিন আলম বলেন, কলেজে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য বড় কোন ফান্ড নেই। তাই সমাজের বিত্তবান ও দানশীল মানুষদের নিকট আকুল আবেদন একটু এগিয়ে আসুন দেশের মেধাবীমুখ সাদিয়াকে বাঁচাতে। সাহায্য পাঠাতে বিকাশ ০১৮৯৬০৭৯১৮৮, ব্যাংক একাউন্ট নং ১৩০৯৪৩৪১৮৩৫৫৯ (সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখা কুমিল্লা ) অথবা সরাসরি ভিক্টোরিয়া কলেজের ইংরেজি বিভাগেও সাহায্য দিতে পারেন।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আবু জাফর খান বলেন, সাদিয়া আফরিন এর চিকিৎসা খরচ সংগ্রহের জন্য ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রত্যেক বিভাগীয় প্রধান, হল তত্বাবধায়ক ও সকল সংগঠনকে দায়িত্ব দিয়েছি। আশা করছি সকলের সাড়া পাবো। সমাজের বিত্তবান মানুষদের এগিয়ে আসা ছাড়া হয়তো এতো বিশাল অনুদান আমাদের একার পক্ষে সম্ভব হবে না।

বুড়িচংয়ের আধুনিক হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় আধুনিক হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় রোজিনা বেগম (৩২) নামের এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

৯ অক্টোবর সন্ধ্যায় কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার শিবরামপুর এলাকার মৃত. আ: মালেক ভূইয়ার ছেলে মো: নাছির ভূইয়া (৪২) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন।

লিখিত অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন- ৮ অক্টোবর দিবাগত রাত সাড়ে ১২ টায় আমার প্রসূতি স্ত্রী রোজিনা বেগমকে সুস্থভাবে ডেলিভারি করানোর জন্য বুড়িচং উত্তর বাজারের আধুনিক হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এনে ভর্তি করাই। ৯ অক্টোবর ভোর ৬ টার দিকে ডা: সাইফুল নামের একজন ও তাঁর সহযোগিরা আমার স্ত্রীর সিজার অপারেশন করে। কণ্যা সন্তান প্রসব করে। কিন্তু সিজারের পর প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকা অবস্থায় তারা সেলাই করে। পরে আবার ডাক্তার বলে আমার স্ত্রীর জরায়ুর অপারেশন করা লাগবে। পরে আবার জরায়ুর অপারেশন করে। বিকেলে অবস্থার অবনতি হলে ডাক্তার বলে দ্রুত আমার স্ত্রীকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে। তাই অ্যাম্বুলেন্সে করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে আমার স্ত্রীর মৃত্যু হয়। মূলত হাসপাতালের ডাক্তার ও কর্তৃপক্ষের অবহেলার জন্য বিকেল ৪ টায় আমার স্ত্রী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এই হাসপাতালে সিজারে অনেক রোগির সমস্যা হয়েছে। অপারেশনের সময় ৫/৬ জন শিশুর মাথা কেটে ফেলছে। আবার অনেকের জরায়ু কেটে ফেলছে। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলে টিউমার ছিল। এই বিষয়ে কেউ কিছু ভয়ে প্রতিবাদ করারও সাহস পায় না।

হাসপাতালটির বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় অভিযোগ হল, তারা ট্রেনিংরত ডাক্তার (কম বেতনে) ও নার্স, ডিপ্লোমা করা চিকিৎসক দিয়ে সিজার করায়। হাসপাতালটির আয়তন ছোট এবং পরিবেশ সুবিধার নয়। তবে রোগী যাওয়ার অন্যতম কারণ হল- উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দালাল চক্র এবং হাসপাতালের কমিশন বাণিজ্য।

এই বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কেউ কথা বলতে চায় নি।

দাউদকান্দিতে চিকিৎসক সংকটে তৃণমূল পর্যায়ে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যসেবা

 

দাউদকান্দি প্রতিনিধি :
কুমিল্লার দাউদকান্দিতে তৃণমূল পর্যায়ে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যসেবা। উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ ইউনিয়ন পর্যায়ের স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোর অবস্থা বেহাল। সরকারের পক্ষ থেকে চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়া হলেও সেখানে থাকতে চান না অনেকেই। ইউনিয়ন পর্যায়ের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে তো দেখাই মেলে না চিকিৎসকদের। ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র গুলো পদায়ন থাকলেও চিকিৎসক নেই কোন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের বহিঃবিভাগে নেই কোন চিকিৎসক। স্যাকমো দিয়ে চলছে চিকিৎসা সেবা। সব মিলিয়ে চিকিৎসা সেবার হযবরল অবস্থা এখানে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও ১০টি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র রয়েছে। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো সিভিল সার্জন কার্যালয় এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র গুলো পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় থেকে তদারকি করা হয়। মূলত উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো থেকে রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র থেকে পরিবার পরিকল্পনা এবং প্রাথমিক চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়।

প্রতিটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে একজন মেডিকেল অফিসার থাকলেও একবছর যাবৎ এদের কাউকে কর্মস্থলে দেখেনি বলে এলাকার লোকজন জানান। পদায়ন দাউদকান্দি হলেও প্রেষনে ঢাকা এবং কুমিল্লায় চলে গেছেন মেডিকেল অফিসাররা । এর মধ্যে স্বপাড়া উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাঃ বিথী আজিজ ও ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডাঃ ফাহমিদা ইস্কান্দার তুরিন একবছর যাবৎ কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। এছাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অসিার, জুনিঃ কনসালটেন্ট (সার্জারী), জুনিঃ কনসালটেন্ট (এনেসথেসিয়া), জুনিঃ কনসালটেন্ট(শিশু), দোনারচর ২০ বেড হাসপাতলের জুনিঃ কনসালটেন্ট (মেডিসিন), জুনিঃ কনসালটেন্ট (সার্জারী) শুন্য থাকায় কাক্সিক্ষত সেবা পাচ্ছেন না এলাকার সাধারণ রোগীরা। এ ছাড়া প্রয়োজনের তুলনায় ওষুধ সংকটও রয়েছে।

সরেজমিনে গেলে উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের মোবারকপুর গ্রামের বাসিন্দা কবির হোসেন জানান, আমাদের ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে বেশির ভাগ সময়ই চিকিৎসক থাকেন না। আর প্রায় সময়ই বন্ধ থাকে, তাই বাধ্য হয়েই গ্রাম্য চিকিৎসকদের কাছে যেতে হয়। এ স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে পদায়নকৃত মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইমাম মেহেদি হাসান খান একবছর যাবৎ প্রেষনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে সংযুক্ত আছেন। তিনি বলেন, আমাদের ইচ্ছা গ্রামের মানুষদের সঠিক চিকিৎসা সেবা দেয়া, কিন্তু সরকারী চাকরী করি তাই সরকার যখন যেখানে পাঠাবে সেখানেই যেতে হবে। এর বেশি কিছু বলবো না।
সুন্দলপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের সহকারী সার্জন কুমিল্লা সদর উপজেলা বাসিন্দা ডাঃ অভিষেক দেবনাথ তিন মাস আগে এখানে যোগদান করার পরপরই প্রেষনে সংযুক্তি নিয়ে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে চলে যান।

দোনারচর ২০ বেড হাসপাতালে দেখা যায়, এক বছর আগে ডাঃ ফাবলিনা নওশিন নামে একজন মেডিকেল অফিসার এখানে পদায়ন হলেও এলাকার কোন লোজন তাকে দেখেননি বলে জানান। কথা হয় আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ সিনথিয়া তাসনিম এর সাথে। তিনি বলেন, অল্প কয়েকদিন আমি এখানে যোগদান করেছি। এর মধ্যে এখানে সমস্যার শেষ নেই। মানুষের অতি প্রয়োজনীয় পানি বিদ্যুৎ না থাকায় এখানে কেউ থাকতে চায় না। আমি প্রতিদিন বাসা থেকে চার্জার ফ্যান নিয়ে আসি। শুনেছি মেডিকেল অফিসার ফাবলীনা নওশীন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গৌরীপুরে ডিউটি করেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সম্প্রতি ওএসডি হওয়া দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ শাহীনুর আলম সুমন থাকাকালিন সময়ে ১৫টি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ও সহকারী সার্জনগন প্রেষনে জেলা সদর ও রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতলে চলে যান। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের চিকিৎসকদের অনুপস্থিতিতে গ্রাম চিকিৎসকদের সাথে শাহীনুর আলম সুমন মাসোহারা চুক্তি করেন বলে বিশ্বস্থ সূত্রে জানাযায়। দাউদকান্দি সদর, গৌরীপুর বাজার, ইলিয়টগঞ্জ বাজার, শহিদনগর, সুন্দুলপুর এলাকার গ্রাম্য চিকিৎসকদের সংগঠন করান তিনি। সংগঠনের সভাপতি গৌরীপুরের মহসিন এবং সাধারণ সম্পাদক দাউদকান্দি সদরের সুমন সাহার মাধ্যমে মাসোহারা কালেকশন করা হতো। গ্রাম্য চিকিৎসকদের কাছ থেকে শাহীনুল আলম সুমনের মাসোহারা গ্রহনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর তাকে ওএসডি করেন। গ্রাম্য চিকিৎসক সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং কোন কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।
ওএসডি হওয়া শাহীনুর আলমের স্থলে নতুন দায়িত্ব নেন ২৫তম বিসিএসের (স্বাস্থ্য) কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম। তিনি বলেন, উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে মেডিকেল অফিসার না থাকার বিষয়টি নজরে এসেছে, এবিষয়ে শীগ্রই উর্ধŸতন কতৃপক্ষের সাথে কথা বলবো। আর গ্রাম চিকিৎসকদের সাথে পূর্বের স্বাস্থ্য কর্মকর্তার ভিডিও ভাইরালের বিষয়টি শুনেছি, এটি মোটেই কাম্য নয়। গ্রাম্য চিকিৎসকরা কোন ভাবেই গ্রাজুয়েট চিকিৎকদের সমতুল্য বা প্রতিযোগী হতে পারে না। তবে অনেক ক্ষেত্রে তাদের সহযোগিতাও প্রয়োজন হয়। কিন্ত কোন কোন ক্ষেত্রে গ্রাম্য চিকিৎসকদের দৌরাত্ম এমন জায়গায় পৌছে যে কোন একটা পর্যায়ে ওরা প্রফেশনাল হিসেবে ধরেনা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম খান বলেন, পূর্বে কি হয়েছে সেটা ডিপার্টমেন্ট দেখবে। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলোর মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসা সেবা পৌছে দেয়ার ব্যাপারে ইতিমধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ সদ্য যোগদানকৃত স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করেছি।

জেলা সিভিল সার্জন মোঃ মোবারক হোসেন বলেন, গত বছর করোনাকালীন সময়ে চিকিৎসকদের শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। তাছাড়া কিছু লোকবল সংকটও রয়েছে যা সমাধানের চেষ্টা চলছে।

 

কুমিল্লার হাসপাতালগুলোতে কোম্পানির প্রতিনিধি আর দালালদের উৎপাতে অতিষ্ঠ রোগীরা

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের বহির্বিভাগে ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের দৌরাত্ম্য। আন্তঃবিভাগে দালালদের পাদচারণা। এই দুই চক্রের কাছে জিম্মি রোগীরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, পাঁচশ’ শয্যার এ হাসপাতালে এখন রোগী ভর্তি রয়েছেন ৮৪২ জন। রোববার বহির্বিভাগে টিকিট বিক্রি হয়েছে এক হাজার ৫১৯টি। ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি আর দালালদের খপ্পরে পড়ে সাধারণ রোগী ও তার স্বজনরা বিরক্ত। পড়েন বিভ্রান্তিতেও।

সরেজমিনে দেখা যায়, রোববার সকাল ১১ থেকে ১টা পর্যন্ত হাসপাতালে ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের ব্যাপক উপস্থিতি। রোগী দেখার মূল সময়ে চিকিৎসকদের সঙ্গে দেখা করছেন তারা। এ সময়ে তারা চিকিৎসকদের উপহারও দিচ্ছেন। এতে করে চিকিৎসা সেবায় ঘটছে ব্যাঘাত।

চান্দিনার বাতাকান্দি গ্রাম থেকে মাওলানা আবু নোমান ছেলেকে নিয়ে এসেছেন এ হাসপাতালে।

ভোগান্তির কথা জানিয়ে তিনি বলেন, দুর্ঘটনায় শিশু ছেলে মোস্তফিজুর রহমানের হাত ভেঙে যায়। এ হাসপাতালে ১১ দিন ভর্তি ছিল। তখন ওয়ার্ডের ভেতরে প্রবেশ করে দালালরা তাদের ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরীক্ষা করানোর জন্য বলে। আবার দোকান থেকে কম দামে তাদের ওষুধ কেনার জন্য বলে। টাকা পরে দিলেও হবে এমন কথাও বলে। শেষে তারাই অতিরিক্ত দামে ওষুধ বিক্রি করে। ছাড়পত্র দেয়ার পর গত ১৫ দিন বাড়ি থেকে আনা নেয়া করে ছেলেকে বহির্বিভাগে ডাক্তার দেখাই। ডাক্তার দেখিয়ে বের হতেই ঘিরে ধরেন ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিরা। তারা ছবি তুলেন। এসব কাজে রোগীর কষ্ট বাড়ে। আমাদেরও ভোগান্তি হয়।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে হাসপাতালের একজন কর্মকর্তা বলেন, হাসপাতালের সামনে আটটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। প্রতিটি সেন্টারের দালালরা এখানে কাজ করেন। যে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে রোগী পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে সেখান থেকে ডাক্তার ৪০ শতাংশ কমিশন ভোগ করেন। প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ডাক্তারদের এ কমিশন দেয়া হয়। দেখা যায়, একজন ডাক্তার ৩০ থেকে ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত কমিশন পেয়ে থাকেন। ওষুধ কোম্পানিও ডাক্তারদের বড় বড় অনুষ্ঠানে নিয়ে সহযোগিতা করে। যার কারণে দালাল ও কোম্পানির প্রতিনিধিদের কিছু বলতে লজ্জা পান ডাক্তাররা।

বাংলাদেশ মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ অ্যাসোসিয়েশন (ফারিয়া) কুমিল্লা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মো. রমিজুল হক ভুঁইয়া বলেন, প্রতিটি ওষুধ কোম্পানি তাদের প্রতিনিধিদের মাসিক বিক্রির টার্গেট দেয়। যদি তা না করতে পারে, তাহলে বেতন কমে যায়। কখনও চাকরিও চলে যায়। যার কারণে ডাক্তারদের কাছে বারবার যেতে হয়। কথা বলতে হয়। যেহেতু মার্কেটে নতুন নতুন প্রোডাক্ট আসছে, তাই ডাক্তারদের নিকট সে বার্তা পৌঁছানোর জন্য আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিছু প্রতিনিধি নিয়ম ভঙ্গ করে কাজ করে কোম্পানির টার্গেট পূরণ করার জন্য। আর ছবি তোলার বিষয়টি হলো, কোম্পানির ওষুধ ডাক্তার লিখছে কি-না, তা কোম্পানির নিকট প্রমাণ হিসেবে ছবি দিতে হয়।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. মহিউদ্দিন বলেন, রোব ও বৃহস্পতিবার কোম্পানির প্রতিনিধিদের ভিজিটিং টাইম। সেটা হবে বেলা ১টার পর। আর দালাল আগের তুলনায় অনেক কমেছে। যদি আমরা অভিযোগ পাই, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের হাতে দিয়ে দেব। রোগীদের সঙ্গে প্রতি মাসে আমরা একবার সভা করে থাকি। এছাড়াও হাসপাতালে অভিযোগ বক্স আছে, যেকোনো অভিযোগে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

সূত্র: জাগো নিউজ।

সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন কুমিল্লায় পৌছেছে

স্টাফ রিপোর্টার:

করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ওয়েভ মোকাবেলায় কুমিল্লার মানুষের জন্য সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন আজ বুধবার  কুমিল্লা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে এসে পৌছেছে।

আজ দুপুর ১ টায় ৫৬ কার্টুনে ৩৩ হাজার ৬০০পিস সিনোভ্যাক ভ্যাকসিন গ্রহণ করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন ডাঃ মীর মোবারক হোসাইন, ডেপুটি সিভিল সার্জন শাহাদাত হোসাইন, কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ আবু সাঈদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) আফজাল হোসেন, মেডিকেল অফিসার সৌমেন রায়, ড্রাগ সুপার শফিক আহমেদসহ অন্যান্যরা।

কুমিল্লার হিউম্যান হসপিটালের ফার্মেসীতে ডায়াবেটিক হাসপাতালের ব্যবস্থাপত্র ও ডাক্তারের সিলমোহর !

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লা নগরীর রেইসকোর্সে অবস্থিত হিউম্যান ডায়াগনষ্টিক এন্ড হসপিটালের ভিতরে এন এস ফার্মেসীতে কুমিল্লা ডায়াবেটিক হসপিটালের ডাক্তারের সিলমোহর, ডায়াবেটিক হাসপাতালের ব্যবস্থাপত্র এবং নমুনা ঔষধ পাওয়া যাওয়ায় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসন জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীরের নির্দেশনায় মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) বিকাল ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের এ মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন নির্বাহি ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ মাজহারুল ইসলাম ।

এ সময় এন এস ফার্মেসীতে অভিযান চালিয়ে কুমিল্লা ডায়বেটিক হসপিটালের চিকিৎসক ডাঃ জয়ন্ত সরকার, ডাঃ লুবনা ইয়াছমিন, ডাঃ নাজলী ইয়াছমিন, ডাঃ সাইফুর রহমান, ডাঃ তৌফিকুর নবী খান, ডাঃ মোঃ বদরুদ্দোজা (ছোটন), ডাঃ মোঃ খালিদ হাছান, ডাঃ ফেরদৌছি বেগম, ডাঃ মোঃ সালে জহর (বাদল), ডাঃ জাহানারা বেগমসহ মোট ১০ জন ডাক্তার এর সিলমোহর এবং ব্যবস্থাপত্র ও সেম্পলের মেয়াদহীন ঔষধ পাওয়া যাওয়ায় এন এস ফার্মেসী মালিককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় ।

এ অভিযানে সহযোগিতা করেন কুমিল্লা সিভিল সার্জন অফিয়াল টিম ।

কুমিল্লা নগরীর হিউম্যান ডায়াগনষ্টিক  এন্ড হসপিটালে নানা অনিয়ম: ১ লক্ষ টাকা জরিমানা

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা নগরীর রেইসকোর্সে  অবস্থিত হিউম্যান ডায়াগনষ্টিক  এন্ড হাসপাতালে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) বিকাল ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত জেলা প্রশাসন এ মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন । এ সময় নির্ধারিত বেড থেকে বেশি বেড পাওয়ায় এবং ওপারেশন থিয়েটার অপরিচ্ছন্ন থাকায় ও বিভিন্ন পরীক্ষার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত মূল্য রাখায় হিউম্যান হসপিটাল মালিক পক্ষকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীরের নির্দেশনায় অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট  মোঃ মাজহারুল ইসলাম । এ সময় সহযোগিতা করেন কুমিল্লা সিভিল সার্জন অফিয়াল টিম।

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট বলেন,হাসপাতালগুলোতে ভাল মানের সেবা দেওয়ার জন্য এবং গুণগত মান সঠিক রাখার জন্য কুমিল্লায় জেলা প্রশাসনের এ ধরনের অভিযান চলমান থাকবে।

কুমেক হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে অস্ত্রোপচার বন্ধ, বন্ধ হওয়া অক্সিজেন চালু করতে লাগবে ৬৯ লাখ টাকা

মনির হোসেন:
কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অক্সিজেন না থাকায় সার্জারি, গাইনি ও অর্থোপেডিকস বিভাগে অস্ত্রোপচার চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হচ্ছে। গত ৩০ জানুয়ারি থেকে অক্সিজেন পাইপ বিকল হলে এ সমস্যা দেখা দেয়। সেন্ট্রাল অক্সিজেন চালু করতে ৬৯ লাখ টাকা লাগবে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা য়ায়।

জানা যায়,১১ দিন সেন্ট্রাল অক্সিজেন বন্ধ থাকায় ছোট অক্সিজেন বোতল কিনে হাসপাতালের বিভিন্ন ওটিতে অপারেশনের কাজ করা হয়। গত ৭ জানুয়ারি একটি ছোট অস্ত্রোপচারে অক্সিজেনের কারনে এক জন রোগী মৃত্যু হওয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়। শনিবার নারায়ণগঞ্জ থেকে অক্সিজেন না আসায় হাসপাতালে সার্জারি, গাইনি ও অর্থোপেডিকস বিভাগে অস্ত্রোপচার চিকিৎসাসেবা বন্ধ হয়ে যায়। এ কারণে জরুরি চিকিৎসা নিতে আসা অনেক রোগীকে ফিরে যেতে হয়েছে। অনেকে অস্ত্রোপচারের অপেক্ষায় হাসপাতালের শয্যায় দিন গুনছে।

এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন রোগী বলেন, শ্বাসকষ্ট হচ্ছে কিন্তু অক্সিজেন নেই। বাধ্য হয়ে স্বজনকে শহরের বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাচ্ছেন। সরকারি হাসপাতালের এমন অবস্থা আগে কখনো দেখেননি। কুমিল্ল মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের কয়েকজন ডাক্তার বলেন, অক্সিজেনের অভাবে কোনো অস্ত্রোপচার করা যাচ্ছে না। এদিকে কাজী ফেরদৌস হক নামে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী বলেন কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটি অসুস্থ হয়ে গেছে,মনে হচ্ছে হাসপাতালের চিকিৎসা করাতে হবে। এখানে প্রয়োজনীয় লোকবলের যেমন ঘাটতি আছে, তেমনি অতি জরুরি যন্ত্রপাতিও অকেজো হয়ে পড়ে আছে। কোনো কোনোটি চলছে ধুঁকে ধুঁকে। হাসপাতাল ঘুরে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মেডিকেল কলেজের নতুন ভবনের মাটির ভু গর্ভে  পি কাস্ট পাইল ড্রাইভ করার সময় অক্সিজেন পাইপ বিকল হয়ে গেলে গত ৩০ জানুয়ারি সন্ধ্যা থেকে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ৩০ জানুয়ারি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের নতুন ভবনের মাটির ভু গর্ভে  পি কাস্ট পাইল ড্রাইভ করার সময় অক্সিজেন পাইপ বিকল হয়ে যায়।