Tag Archives: কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনকে আধুনিক সিটি করতে চাই : নিজাম উদ্দিন কায়সার

শাহ ইমরান:

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের উপনির্বাচনের বিএনপির সাবেক নেতা ও মেয়র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সারের আমি বিজয়ী হলে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনকে আধুনিক সিটিতে পরিণত করবো।

এদিন সকালে চকবাজার থেকে প্রচারণা শুরু করেন এই প্রার্থী পরে পাশের, শুভপুর, চাঁদপুর, জামতলা, গর্জন খোলা, চকবাজার দীঘির পাড়সহ ৬ নম্বর ওয়ার্ডের অনেক এলাকায় গণসংযোগ করেন।

এ সময় ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী বলেন, সরকার যে ডামি নির্বাচন করেছে জনগণ তা বর্জন করেছে। কিন্তু এখন বিএনপি আবার টেস্ট কেস হিসেবে আমাকে পর্যবেক্ষণ করছে। তাই এই নির্বাচনে বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীরা আমার সঙ্গে মাঠে নামে। তারা আবার ভোটের মাঠে আসতে শুরু করেছে। তাই জনগণের অংশগ্রহণে নির্বাচন আরও উৎসবমূখর হয়ে উঠেছে।

এ সময় এই প্রার্থীর প্রচারণায় ছিলেন বিএনপির সদস্য সচিব শাহ আলম, মো. মিজান, মো. কাউসার, মো. জাহাঙ্গীর, মো. শাহ আলম, ওয়াব মিয়াসহ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

মেয়র পদে উপ-নির্বাচন: আলোচনায় এক ডজন প্রার্থী

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

আগামী ৯ মার্চ কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের মেয়র পদে উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মেয়র আরফানুল হক রিফাতের মৃত্যুর পর এই পদটি শূন্য ঘোষণা করা হয়। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোটের রেশ কাটতে না কাটতেই আবারও কুমিল্লা মহানগরের রাজনীতিতে ভোটের উৎসব শুরু হচ্ছে। ইভিএমে এ ভোট অনুষ্ঠিত হবে জানা গেছে।

নৌকার মনোনয়ন পেতে কেন্দ্রে লবিংয়ে ব্যস্ত একাধিক প্রার্থী। সূত্রমতে, দলীয় মনোনয়ন চাইতে পারেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য ও সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আঞ্জুম সুলতানা সীমা , দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি শফিকুল ইসলাম সিকদার, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. জহিরুল হক সেলিম, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আতিক উল্লাহ খোকন, মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি নুর-উর রহমান মাহমুদ তানিম, মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ সহিদ, কুসিকের প্যানেল মেয়র হাবিবুর আল আমিন সাদী, জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা কবিরুল ইসলাম শিকদার এবং মেয়র রিফাতের স্ত্রী অধ্যাপিকা ফারহানা হক শিল্পী।

এদিকে বিএনপি দলগতভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত থাকলেও বহিষ্কৃত দুই নেতা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন বলে জানা গেছে। তারা হলেন দুই বারের নির্বাচিত কুসিক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু ও বিগত নির্বাচনে ভোটে অংশগ্রহণ করে সবাইকে চমকে দেওয়া যুবদল নেতা নিজাম উদ্দিন কায়সার।

উল্লেখ্য যে, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের আয়তন প্রায় ৫৩ দশমিক ৮৪ বর্গ কিলোমিটার । এই সিটিতে ২৭টি ওয়ার্ড রয়েছে যেখানে ১০ লক্ষাধিক মানুষ বসবাস করে। এর আগে এখানে কুমিল্লা পৌরসভা ও কুমিল্লা সদর দক্ষিণ পৌরসভা নামে দুটি পৌরসভা ছিল। ২০১১ সালের ১০ জুলাই বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এক অধ্যাদেশ জারি করে প্রশাসন পৌরসভা দুটিকে একটি সিটি কর্পোরেশনের মর্যাদা দেয়। বর্তমানে কুমিল্লা সিটিতে প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার ভোটার রয়েছে।

২০১২ সালে কুমিল্লার প্রথম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ২৯ হাজার ৩০৬ ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আফজল খানকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন সম্মিলিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু ।তিনি মোট ৬৫ হাজার ৭৭৭ ভোট পেয়েছেন।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট আফজল খান পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৪৭১ ভোট।২০১৭ সালের ৩০ মার্চ কুসিকের নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মত মেয়র নির্বাচিত হন মনিরুল হক সাক্কু। ধানের শীষ প্রতীকে সাক্কু পেয়েছেন ৬৮ হাজার ৯৪৮ ভোট এবং নৌকা প্রতীকে আঞ্জুম সুলতানা সীমা পেয়েছিলেন ৫৭ হাজার ৮৬৩ ভোট। ২০২৩ সালের কুসিকের তৃতীয়বারের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুকে হারিয়ে প্রথমবারের মত মেয়র নির্বাচিত হন নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত। কারচুপির মাধ্যমে তার বিজয় ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেন সাক্কু।ওই নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত ৫০ হাজার ৩১০ ভোট এবং মনিরুল হক সাক্কু পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৯৬৭ ভোট।

বিগত ২০২৩ সালের ১৩ ডিসেম্বর কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র আরফানুল হক রিফাত সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন ।এরপর থেকে প্যানেল মেয়র হাবিবুর আল আমিন সাদী ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সরকারের ‘ইভ্যালি কৌশল’ কুসিক নির্বাচনে ব্যর্থ

ডা. জাহেদ উর রহমান:

এখন কুমিল্লায় যেভাবে প্রশ্ন উঠে গেল নির্বাচন কমিশনের সক্ষমতা নিয়ে, যেভাবে প্রশ্ন আসলো মাত্র একজন সংসদ সদস্যকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারা নিয়ে, সরকারের প্রতিও প্রশ্ন উঠলো কেন একজন দলীয় এমপিকে তারা সামলালো না, তারপর কি সরকারের দিক থেকে আর কোনোভাবে বলা সম্ভব দলীয় সরকারের অধীনে একটা জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হতে পারে?

কুমিল্লার নির্বাচনের ফলাফলে সরকারের প্রতি কুমিল্লা শহরের জনগণের এক বিরাট অনাস্থা প্রমাণিত হয়েছে। নির্বাচনের ফলাফলে খুব স্পষ্টভাবেই দেখা যায় দুই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রায় একই সমান ভোট পেয়েছেন কিন্তু তৃতীয় হওয়া প্রার্থী প্রায় ৩০ হাজার ভোট পেয়েছেন যিনি বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত। বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত দুই প্রার্থীর মোট ভোট সরকারি দলের প্রার্থীর চেয়ে ৩০ হাজারের মতো বেশি। সত্যি বলতে পার্থক্যটা আরও অনেক বড়। বিএনপি’র বহিষ্কৃত দুই প্রার্থী স্বভাবতই ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচন করেননি। যদি একজন মনোনয়ন পেয়ে সেটা করতেন, তাহলে সেটার সাড়া আরও অনেক বেশি হতো। শুধু সেটাই নয়, বিএনপি’র এই দুই জনকে বহিষ্কার করার পর দলের হাইকমান্ড খুব শক্ত হুমকি দিয়ে বলেছিল এই দু’জনের পক্ষে যেন বিএনপি’র কোনো নেতাকর্মী প্রচারণা এবং অন্যান্য নির্বাচনী কাজে অংশগ্রহণ না করেন। অথচ বিএনপি আনুষ্ঠানিকভাবে এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে স্থানীয় তো বটেই কেন্দ্রীয় নেতারাও সেখানে প্রচারণায় যেতে পারতেন। তাহলে ফল আরও কতোটা ধানের শীষের পক্ষে আসতো সেটা নিশ্চয়ই বুঝি আমরা।

ওদিকে সরকারি দলের ক্ষেত্রে একজন স্থানীয় প্রভাবশালী নেতা এবং সংসদ সদস্য জনাব বাহাউদ্দিন বাহারসহ আওয়ামী লীগের সকলের মরিয়া চেষ্টার পরও তাদের প্রার্থী খুব ভালো কিছু করেননি। আওয়ামী লীগের প্রার্থীর একটি তুলনামূলক সুবিধাও ছিল। জনাব সাক্কু পরপর দুইবার মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন।
বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে পর পর দুইবার দায়িত্বে থাকা তার বিরুদ্ধে এন্টি-ইনকাম্বেন্সি ফ্যাক্টর উস্কে দেয়ার কথা। মজার ব্যাপার সেই হিসাবও আওয়ামী লীগের পক্ষে যায়নি।

অনেকে বলেন- স্থানীয় নির্বাচনে স্থানীয় নানা বিষয় প্রধান চালিকাশক্তি, জাতীয় ফ্যাক্টর নয়। আমি বরং বলতে চাই, বাংলাদেশে এখন ঘটে ঠিক উল্টোটা- দীর্ঘদিন জাতীয় পর্যায়ে সত্যিকার নির্বাচনের স্বাদ না পাওয়া মানুষ নির্বাচনের স্বাদ মেটানোর চেষ্টা করেন স্থানীয় নির্বাচনে। জাতীয় পর্যায়ে সরকারের প্রতি ক্ষুব্ধতার প্রতিক্রিয়া এসে পড়ে স্থানীয় নির্বাচনে। আমি তাই, নিশ্চিতভাবে মনে করি এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সরকারকে লালকার্ড দেখিয়েছে কুমিল্লার মানুষ।

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মোটাদাগে দুইটি খুঁত পাওয়া গেছে। এর একটি হলো নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার শেষ পর্যায়ে ৪৫ মিনিটের জন্য ফলাফল ঘোষণা বন্ধ রাখা এবং তারপর সরকারদলীয় প্রার্থী খুব ন্যূনতম ব্যবধানে জয়ী হওয়া। বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্র প্রার্থী জনাব মনিরুল হক সাক্কুর অভিযোগ মতে কোনো একটা ফোন পেয়ে রিটার্নিং অফিসার এ কাজটি করেছেন। রিটার্নিং অফিসার এর ব্যাখ্যা দিয়েছেন তবে আমরা এর বিস্তারিত আলোচনায় ঢুকছি না।

এই নির্বাচনে সবচেয়ে বড় যে খুঁতটি তৈরি হয়েছে সেটি হলো নির্বাচন আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে একজন সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের কিছু করতে একেবারেই ব্যর্থ হওয়া। জনাব সাক্কুর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন তদন্ত করে প্রমাণ পায় জনাব বাহার নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করেছেন। তাই তারা সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিধিমালা অনুযায়ী তাকে সেখান থেকে চলে আসতে বলেন।

জনাব বাহার এই চিঠির বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন। হাইকোর্ট সেটার কারণ দর্শানোর জন্য নির্বাচন কমিশনকে বলেন। কিন্তু হাইকোর্ট সেই চিঠির কার্যকারিতা স্থগিত করেননি। হাইকোর্টের রায়ের পর নির্বাচন কমিশনের প্রধান আইনজীবী স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন বাহারকে দেয়া চিঠির কার্যকারিতা ঠিক আছে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া যাবে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন সেই ব্যবস্থা নেয়নি। কেন সেই ব্যবস্থা নেয়নি শেখার জন্য বরং উদ্ভট সব বক্তব্য আমাদের সামনে এসেছে।

নির্বাচন কমিশনের পিছু হটা নিয়ে এক কমিশনার রাশেদা সুলতানা কুমিল্লায় গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘আইনি কাঠামো যেভাবে আছে, সেভাবে কাজ করছে নির্বাচন কমিশন। উনি (বাহাউদ্দিন) আইন মানেন না, আইনপ্রণেতা। আমাদের ব্যর্থ বলেন কেন আপনারা? একজন সম্মানিত লোককে টেনেহিঁচড়ে নামানো কমিশনের কাজ নয়।’

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল জনাব বাহারের এলাকায় থেকে যাওয়া নিয়ে বলেন, ‘ইসির নির্দেশনা পাওয়ার পর একজন সংসদ সদস্য এটাকে অনার না করলে কমিশনের তেমন কিছু করার নেই। আমাদের এমন কোনো ক্ষমতা নেই যে, কাউকে জোর করতে পারি। আমরা তো আর কাউকে কোলে করে নিয়ে যেতে পারি না।’

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নির্বাচন কমিশন কী করতে পারতো তার একটা চমৎকার দিকনির্দেশনা দিয়েছেন এক-এগারোর সময়কার নির্বাচন কমিশনের একজন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন। তিনি বলেন, ‘‘বাহারকে নির্বাচনী এলাকার বাইরে পাঠাতে নির্বাচন কমিশন যথেষ্ট ব্যবস্থা নেয়নি। তাদের ক্ষমতা প্রয়োগ করেনি। বাহার যদি না যান, তাহলে কমিশন চাইলে নির্বাচন স্থগিত করে দিতে পারতো। সেটা করেনি। আমরা কমিশনে যখন ছিলাম, তখন কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকে এই প্রক্রিয়ায় এলাকার বাইরে পাঠাতে সক্ষম হয়েছিলাম। তিনি সেখানে গিয়ে দরবার বসিয়েছিলেন। তাকে বলেছিলাম, আপনি সরে না গেলে নির্বাচন স্থগিত করে দেবো। তিনি সরে যেতে বাধ্য হন। তখন তো এই সরকারই ছিল।’’

যে পরিস্থিতিতে বর্তমান নির্বাচন কমিশন পড়েছিল তার হুবহু একটি পরিস্থিতির নজির আছে যেটা তারা খুব সহজেই অনুসরণ করতে পারতেন। কিন্তু বাজেভাবে ব্যর্থ হয়েছেন তারা।

আরেকটি ব্যাপার অনেকের কাছেই অবিশ্বাস্য ঠেকবে- জনাব বাহারকে তো ক্ষমতাসীন দলের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে চাপ দিয়ে এলাকা থেকে আসতে বাধ্য করা যেত। সেটা বরং আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে সরকারি দলের কৌশলের পক্ষে থাকতো। ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল করে দলীয় সরকার ক্ষমতাসীন থাকার সময়ে নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের পক্ষে যুক্তি তৈরি করার জন্য যে কৌশল নিয়েছিল সেটাকে আমি বলছি ‘ইভ্যালি কৌশল’। সাম্প্রতিককালে ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জসহ বেশ কিছু তথাকথিত ই-কমার্স সাইট দেশে তুমুল আলোচনা তৈরি করেছিল। ব্যবসা বলা হলেও এগুলো আদতে কোনো ব্যবসাই ছিল না, এগুলো আসলে স্রেফ প্রতারণা- পঞ্জি স্কিম। এর আগে আমরা একই রকম প্রতারণা ডেসটিনি, ইউনিপে টু-ইউ’র মতো আরও অনেক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে দেখেছি।

একেবারে সাম্প্রতিক বিষয় বলে ইভ্যালি নিয়েই আলোচনা করা যাক। এই প্রতিষ্ঠানটি মানুষকে অবিশ্বাস্য কম দামে নানা পণ্য দিতে শুরু করেছিল। বাজার মূল্যের তুলনায় দুই-তৃতীয়াংশ, এমনকি অর্ধেক দামে মানুষ ফ্রিজ, টিভি, মোবাইল ফোন, মোটরসাইকেলসহ নানা পণ্য কিনতে পারছিল। বাস্তবেই বেশ কিছু মানুষ এমন পণ্য হাতে পেয়েছিল। এভাবে পাওয়া পণ্য একটা সময়ে শুধু ব্যক্তিগত ব্যবহার না, পরিণত হয়েছিল ব্যবসায়। মানুষ ইভ্যালি থেকে পণ্য পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে বাজারে বিক্রি করে দিলেই বেশ কিছু নগদ টাকার লাভ পেয়ে যাচ্ছিল।

এভাবে পণ্য পাওয়া নতুন নতুন মানুষকে ইভ্যালির কাছে অগ্রিম টাকা দিয়ে পণ্য পেতে আগ্রহী করেছিল। শুধু নতুন মানুষ নয়, একবার যারা পণ্য পেয়েছিলেন, তারা আরও পণ্য কিনতে আগ্রহী হয়েছেন। আগেই যেমন বলেছি এভাবে পণ্য কেনা একটা বেশ লাভজনক ব্যবসার হাতছানি হয়েছিল অনেকের কাছে। সেসব মানুষ কষ্টের সঞ্চয় এনে, ঋণ করে, স্বর্ণালঙ্কার এমনকি জমি বিক্রি করে ইভ্যালির হাতে টাকা তুলে দিয়েছিলেন অবিশ্বাস্য কম মূল্যে পণ্য পাবার জন্য। এরপর কোম্পানিটি বন্ধ হওয়া এবং মালিক গ্রেপ্তারের অনেক আগেই শুরু হয়েছিল পণ্য সরবরাহ করা নিয়ে অবিশ্বাস্য গড়িমসি। শুধু সেটাই না, মানুষ পণ্য পাবার আশা বাদ দিয়ে টাকা ফেরত চাইলে সেটাও দেয়া হচ্ছিল না।

মানুষকে শুরুতে ভীষণ বড় টোপ দিয়ে, শুরুতে সেই টোপ গ্রহণকারীর আস্থা অর্জন করে তার এবং আরও অনেকের কাছ থেকে কিছুদিন পরেই বিরাট দাঁও মেরে কেটে পড়া সারা পৃথিবীর ইতিহাসে প্রতিটা পঞ্জি স্কীম তাদের প্রতারণাটি করে ঠিক এই নীতিতে। পন্থার কিছুটা ভিন্নতা থাকে মাত্র।

দলীয় সরকারের অধীনে সব দলকে নির্বাচনে আনার জন্য বর্তমান সরকার এই ‘ইভ্যালি কৌশল’ নিয়েছিল এই দফায় প্রথমবার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই। নির্বাচন কমিশন গঠন করে জাতীয় নির্বাচনের আগে সেই কমিশনের অধীনে কিছু স্থানীয় সরকার নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলকভাবে করে দেখানোর চেষ্টা করা যে দলীয় সরকারের অধীনেও নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে।

২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর প্রথম আওয়ামী সরকারের সময় নির্বাচন কমিশন ছিল জনাব রকিব উদ্দিনের নেতৃত্বে। দলীয় সরকারের অধীনেই সেই কমিশন দেশের অনেকগুলো সিটি করপোরেশন নির্বাচন করে। ভালোভাবে হওয়া সেই নির্বাচনগুলোর প্রত্যেকটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা হেরে যায়। ফলে সরকারের পক্ষে জোর গলায় দাবি করা সম্ভব ছিল যে, দলীয় সরকারের অধীনেই এতই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হওয়া সম্ভব যে, তাতে একের পর এক সিটি করপোরেশনে সরকারসমর্থিত প্রার্থীরা হেরে যায়। উদ্দেশ্য স্পষ্ট, এমন নির্বাচন দেখে প্রলুব্ধ হয়ে বিএনপি সহ বিরোধী দল আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে সংসদ নির্বাচনে যাবে। এরপর ইভ্যালি এবং ডেসটিনি’র মতো প্রতিষ্ঠান যা করে, বড় দাঁও মারার সুযোগ আসার পর, (এই ক্ষেত্রে সংসদ নির্বাচন) সেটা মেরে দেবেন।

আমি খুব অবাক হয়ে দেখি দেশের মিডিয়া এবারকার কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের আগে ‘নির্বাচন কমিশনের প্রথম পরীক্ষা’ জাতীয় শিরোনাম করছিল। এটা অবিশ্বাস্য। প্রথম শ্রেণির প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়ে কি এসএসসি পাস করা যায়? প্রথম শ্রেণির প্রশ্নে ১০০ পরীক্ষা দিয়ে তাতে অসাধারণ ফল করা কেউ এসএসসি পাস করবেনই, সেই নিশ্চয়তা কীভাবে দেয়া যায়?

নির্বাচন কমিশনকে সরকার যদি অনেকগুলো স্থানীয় সরকার নির্বাচন বিনা বাধায় করতে দেয়, এমনকি সরকার যদি চাপ দেয় সঠিকভাবে করার জন্য, তাতেও কি এই নিশ্চয়তা কোনোভাবে দেয়া যায় যে, সরকার জাতীয় নির্বাচনটি সঠিকভাবে করতে দেবেন? নূরুল হুদা কমিশনের মতো একটি নির্বাচন মিশন যারা বাংলাদেশের নির্বাচন ব্যবস্থাকে একেবারে তছনছ করে ফেলেছে, তাদের অধীনেও তো কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মনিরুল হক সাক্কু আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে হারিয়েছিলেন। সেই নির্বাচন দিয়ে কি বোঝা গিয়েছিল ২০১৮ সালের সংসদ নির্বাচনে কী হতে যাচ্ছে? এত কিছুর পরও এই নির্বাচন কমিশনের আচরণ পর্যবেক্ষণ করে নির্বাচন করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার আলাপ সরকারের দিক থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এবং আমরা অনেকেই সেটা বুঝে, কিংবা না বুঝে এই অর্থহীন আলাপে যুক্ত হয়েছি।

২০১৮ সালে নির্বাচনের নামে যা হয়েছে সেই পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে এবারকার সংসদ নির্বাচনের প্রতি নানা আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং উন্নয়ন সহযোগীদের কঠোর দৃষ্টি থাকার কথা। র‌্যাব এবং এর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পর সরকারের ভেতরেও নিশ্চয়ই কিছুটা নড়চড় হয়েছে। আমেরিকা চরম প্রশ্নবোধক নির্বাচনের ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে। নিকারাগুয়ার চরম কারচুপিপূর্ণ নির্বাচনের কারণে কয়েক মাস আগে অনেকের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আমেরিকা।

সরকারের কৌশল হওয়ার কথা সিটি করপোরেশন নির্বাচনগুলো নির্বাচন কমিশনের অধীনে ভালো হলে সেটা বিদেশিদের দেখিয়ে তাদের আশ্বস্ত করে তাদের দিয়ে সরকারের অধীনে নির্বাচনে আসার জন্য বিরোধীদের চাপ দেয়ানোর চেষ্টা করতে পারতেন। আর বিএনপি সহ বিরোধী দলগুলো নির্বাচনে আসলে ২০১৮ সালের মতো এত বড় ‘ডাকাতি’ না করে তুলনামূলকভাবে সহনীয় কিছু করে ফেলতে পারতো সরকার।

এখন কুমিল্লায় যেভাবে প্রশ্ন উঠে গেল নির্বাচন কমিশনের সক্ষমতা নিয়ে, যেভাবে প্রশ্ন আসলো মাত্র একজন সংসদ সদস্যকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারা নিয়ে, সরকারের প্রতিও প্রশ্ন উঠলো কেন একজন দলীয় এমপিকে তারা সামলালো না, তারপর কি সরকারের দিক থেকে আর কোনোভাবে বলা সম্ভব দলীয় সরকারের অধীনে একটা জাতীয় নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হতে পারে?

‘ইভ্যালি কৌশল’ এবার সরাসরি কাজ করার কথা ছিল না। বিএনপি সাফ জানিয়ে দিয়েছিল, নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার ছাড়া তারা কোনোভাবেই নির্বাচনে যাবে না। তারা সঠিক। ২০১৮ সালের পর দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের প্রশ্ন আসার কি আর কোনো প্রশ্ন আসে? তবে এটা বিশ্বাস করার যথেষ্ট কারণ আছে যে, বিদেশিদের কথা মাথায় রেখে সরকার এগিয়ে যাচ্ছিল ‘ইভ্যালি কৌশল’ নিয়েই। কিন্তু কুমিল্লায় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যা ঘটলো, তাতে এই কৌশল যে মাঠে মারা গেল, সেটা বলাই বাহুল্য।

কুসিক নির্বাচন: নৌকার মনোনয়ন ঘিরে নানা সমীকরণ

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র মনিরুল হক সাক্কু নির্বাচন করবেন তা নিশ্চিত। সেই সাথে বিএনপি নির্বাচনে না এলেও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হিসেবে কুমিল্লা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। তবে আ’লীগের মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন নিয়ে নানা সমীকরণ চলছে। কে পেতে পারে দলীয় মনোনয়ন-এ বিষয়ে বেশ সরগরম কুমিল্লার রাজনীতি। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত করছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের অতীত-বর্তমানের ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিক নিয়ে। আওয়ামীলীগ দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই সর্বশেষ সিদ্ধান্ত নিবেন দলীয় মনোনয়ন নিয়ে।

কুমিল্লা আ’লীগের রাজনীতিতে দুটি গ্রুপ বিদ্যমান। এক গ্রুপ হল প্রয়াত প্রবীণ রাজনীতিবিদ অধ্যক্ষ আফজল খানের পরিবারের দুই সন্তান এমপি আনজুম সুলতানা সীমা এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য মাসুদ পারভেজ খান ইমরান। অপর গ্রুপটি সদর সাংসদ হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের। এই দুই গ্রুপের দ্বন্দ্ব চরমে রয়েছে প্রায় ১৪ বছর ধরে। বিগত দুটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আফজল খান ও আনজুম সুলতানা সীমা যথাক্রমে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছিলেন। দলীয় অর্ন্তকোন্দলের ফলে দুইজনের পরাজয় হয়। টানা ২ বার মেয়র নির্বাচিত হন মনিরুল হক সাক্কু। মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর সাথে সদর সাংসদ হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের সু-সম্পর্ক রয়েছে। ফলে আ’লীগের মনোনয়ন যে গ্রুপেরই পাবে, বিজয়ী হওয়ার পথে অনেক প্রতিবন্ধকতা থাকবে। যদি দলীয় অর্ন্তকোন্দল নিরসন না হয় তাহলে তৃতীয়বারের মত পরাজয় বরণ করতে হবে আ’লীগকে। এবার আ’লীগের মনোনয়ন নির্ভর করবে ভবিষ্যত রাজনীতির নানা সমীকরণের উপর। আজকের কুমিল্লার পাঠকদের জন্য কিছু সমীকরণ তুলে ধরা হল:

আনজুম সুলতানা সীমা:
আনজুম সুলতানা সীমা এখন সংরক্ষিত সাংসদ। পারিবারিক সূত্রমতে, এমপি সীমা দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি নয়, তাঁর পরিবারের সমর্থণ ইমরান খানের প্রতি। তারপরও যদি সীমা দলীয় মনোনয়ন পান, তাহলে সাংসদ পদ থেকে পদত্যাগ করতে হবে। ফলে অনেকটা চাপ নিয়ে সীমাকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে হবে। সীমা মনোনয়ন পেলে আ’লীগের অপর গ্রুপ বিরোধীতা করবে – তৃণমূলের বিভিন্ন সূত্র এটাই দাবি করে। যদি সীমা পরাজিত হয়, তাহলে তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার হুমকিতে পড়বে। এছাড়া আফজল খান গ্রুপও রাজনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। অপরদিকে আরো শক্তিশালী হবে এমপি বাহার গ্রুপ। আর সীমা যদি দলীয় মনোনয়ন পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন তাহলে কুমিল্লার রাজনীতিতে নয়া মেরুকরণ হবে। শক্তিশালী হয়ে উঠবে আফজল খান গ্রুপ। আ’লীগের দুগ্রুপের রাজনীতিতে সেয়ানে সেয়ানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

মাসুদ পারভেজ খান ইমরান:
মাসুদ পারভেজ খান ইমরান বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য এবং এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক । ইমরান খান দলীয় মনোনয়ন পেলে আ’লীগের অপর গ্রুপ যেমন বিরোধীতা করবে, তবে তাঁর বোন এমপির সীমার সহযোগিতাও পাবে। তবে ইমরান খান যদি পরাজিত হয়, তারপরও তার পরিবারের রাজনীতি টিকে থাকবে। কারণ সীমা এমপি হিসেবে থাকবে। অন্তত রাজনীতিতে টিকে থাকবে আফজল খানের পরিবার। আর যদি ইমরান খান দলীয় মনোনয়ন পেয়ে মেয়র নির্বাচিত হন তাহলে কুমিল্লার রাজনীতিতে অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠবে আফজল খান গ্রুপ।

আরফানুল হক রিফাত:
আরফানুল হক রিফাত কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক। কুমিল্লা জেলা ক্রীড়া সংস্থারও সাবেক সাধারণ সম্পাদক। এমপি বাহারের অন্যতম স্নেহভাজন সহযোদ্ধা। গতবার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন। এবারও এমপি বাহার গ্রুপ থেকে একক মনোনয়ন প্রত্যাশি। রিফাত দলীয় মনোনয়ন পেলে আ’লীগের অপর গ্রুপের সমর্থন পাবে না-এটা অনেকেই মনে করেন। তবে তিনি যদি মেয়র নির্বাচিত হন তাহলে কুমিল্লার রাজনীতিতে এমপি বাহার আরো শক্তিশালী হয়ে উঠবে । অন্যান্য গ্রুপের রাজনীতিতে নিষ্ক্রিয় পরিবেশের সৃষ্টি হতে পারে। এমনিতেই কুমিল্লা সদরের বর্তমান রাজনীতিতে এমপি বাহার এক শক্তিশালী নাম।

নুর উর রহমান মাহমুদ তানিম:
কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের ত্রান ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক । কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি। এক সময় এমপি বাহারের খুব আপনজন ছিলেন। এমপি বাহার সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার কয়েক বছরের মধ্যেই তাদের মধ্যে সর্ম্পকের অবনতি হয়ে আলাদা হয়ে যান তানিম। বিভিন্ন জাতীয় দিবসগুলোতে তানিম নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশাল শোডাউন করেন। আবার আফজল খান গ্রুপের সাথেও তানিমকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখা যায়। তানিম প্রথম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। দ্বিতীয় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন। এবার তানিম যদি দলীয় মনোনয়ন পান তাহলে মহানগর আ’লীগের একটি অংশ তাঁর বিরোধীতা করবে। যদি তানিম বিজয়ী হন তাহলে কুমিল্লার আ’লীগের রাজনীতিতে তৃতীয় শক্তির আর্বিভাব ঘটবে। আর তানিম মনোনয়ন পেয়ে পরাজিত হলে রাজনৈতিকভাবে ক্যারিয়ার হুমকিতে পড়বে।

কবিরুল ইসলাম শিকদার:
বাংলাদেশের ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি । কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগেরও পদ বহন করছেন। কবির শিকদারের সাথেও এমপি বাহার গ্রুপের সর্ম্পক ভাল নয়। ভাল সম্পর্ক রয়েছে আফজল খান গ্রুপের সাথে, তবে সর্বশেষ আফজল খান ফাউন্ডেশনের ইফতার মাহফিলে কবির শিকদারকে দেখা যায়নি। বিভিন্ন জাতীয় দিবসগুলোতে কবির শিকদার নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশাল শোডাউন করেন। কবির শিকদার যদি দলীয় মনোনয়ন পান তাহলে মহানগর আ’লীগের একটি অংশ তাঁর বিরোধীতা করবে। যদি কবির শিকদার বিজয়ী হন তাহলে কুমিল্লার আ’লীগের রাজনীতিতে নয়া মেরুকরণ হবে। বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও কবির সিকদার দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন।

আনিছুর রহমান মিঠু:
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও মহানগর আ’লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক । মিঠু প্রথম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন। দ্বিতীয় সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন। তিনি প্রথম আফজল খান গ্রুপের রাজনীতি করতেন। পরে সাবেক রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিবের বিরোধীতা করে এই গ্রুপ থেকে সরে এমপি বাহার গ্রুপের রাজনীতিতে জড়িত হন আনিছুর রহমান মিঠু। কয়েক মাস আগে এমপি বাহার গ্রুপ থেকে আবার সরে গেছেন মিঠু। সম্প্রতি আফজল খান ফাউন্ডেশনের ইফতার মাহফিলে উপস্থিত হন আনিছুর রহমান মিঠু। স্থানীয় সূত্র বলছে- এমপি সীমার সাথেই রাজনীতি করবেন আনিছুর রহমান মিঠু। মিঠু যদি দলীয় মনোনয়ন পান তাহলে মহানগর আ’লীগের এমপি বাহার গ্রুপ তাঁর বিরোধীতা করবে- এটা অনেকেই মনে করছেন। মিঠু যদি মেয়র নির্বাচিত হন তাহলে তিনি কোন গ্রুপে থাকবেন নাকি নিজেই নতুন শক্তিতে আর্বিভূত হন তা সময়েই বলে দিবে।

আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ সহিদ:
কুমিল্লা মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান । যদিও তিনি কখনো মুখে বলেননি নির্বাচনের কথা। তবে তাঁর অনুসারি অনেকেই বলেছিলেন- এমপি বাহারের সমর্থন থাকলে জিএস সহিদ দলীয় মনোনয়ন চাইবেন। তবে এমপি বাহারের গ্রুপ থেকে একক প্রার্থী হিসেবে রিফাতের নাম কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। ফলে দলীয় মনোনয়ন চাওয়ার সুযোগ তেমন নেই জিএস সহিদের। তবে তিনি বিগত ৩ বছর ধরে মহানগরের ২৭ ওয়ার্ডজুড়ে কাজ করে গেছেন। বিশেষ করে করোনা মহামারিতে জিএস সহিদের ইতিবাচক কর্মকান্ড সকলের প্রশংসা কুড়িয়েছে। তিনি যদি দলীয় মনোনয়ন পেয়ে বিজয়ী হন, তাহলে এমপি বাহারের গ্রুপের শক্তি অনেকগুণ বেড়ে যাবে।

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন হওয়ার পরে পরপর দুইবার আ’লীগ দলীয় প্রার্থী এড.আফজল খান ও আনজুম সুলতানা সীমা বিএনপির প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর কাছে পরাজিত হয়। আ’লীগের দুইবারের পরাজয়ের পেছনে দলীয় অর্ন্তকোন্দলই বড় ভূমিকা পালন করেছে বলে নেতৃমূল নেতারা মনে করেন। এবারো কি বিএনপি নগর পিতার আসন ধরে রাখবে নাকি প্রথম বারের মত আ’লীগ নগর পিতার আসনে বসবে, তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরো এক মাস।

বড় বড় সৎ নেতারা আজ শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন – আনিছুর রহমান মিঠু

আনিছুর রহমান মিঠুর ফেসবুক থেকে:
সামান্য বৃষ্টিতেই হাটু পর্যন্ত পানি উঠে কুমিল্লা মহানগরীতে। ড্রেন আর রাস্তা একাকার হয়ে যায় ময়লা-আর্বজনা আর পানিতে মিশে। ভোগান্তির শেষ নেই এই শহরে। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের দুর্ভোগ আর নেতাদের শত কোটি টাকার মালিক হওয়া নিয়ে নিজের ফেসবুকে লিখেছেন মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা এড. আনিছুর রহমান মিঠু। পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হল-

“ এক ঘন্টার বৃষ্টিতেই তলিয়ে গেছে কুমিল্লা শহর, জমে থাকা পানির জন্য রাস্তা গুলোকে মনে হচ্ছে নদী। শহরের হাজার হাজার মানুষের ঘরের ভেতর হাটু পানি। রাতে সাপের কামরের আশংকা নিয়েও আনন্দে ঘুমিয়েছেন বহু মানুষ ।

জমে থাকা পানির কারনে নতুন রাস্তাগুলোও আবার নস্ট হবে দ্রুত, সমস্যা কিছু নাই আবারো টেন্ডার হবে। আগের ঠিকাদারই আবার কাজ করবেন, কারন তারা ইতিমধ্যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন।

ময়লা কাঁদা পানিতে থৈথৈ করছে চারিদিক, ডাস্টবিনের ময়লা পলিথিন ভাসছে শহরময়,কেউ কেউ মনের আনন্দে মাছ ধরছে উঠানে, স্কুল মাঠে, ড্রেনে- উন্নত বিশ্বের দেশেও এতো আনন্দ সাধারণত দেখা যায়না মানুষের মনে। কারো কোন অভিযোগ নেই, বৃষ্টি দিছে আল্লায়, অন্যেরে দোষ দিয়া কি লাভ ?
আগে পিছে কিছু নাই , হঠাৎ একটু জায়গায় ফুটপাত এবং সে ফুটপাত অনেক উচু, যা টাইলস করা চমৎকা। ভাবতাম হঠাৎ হঠাৎ এ ধরনের ফুটপাত করার কি মানে আছে? আজ পানি আসায় বুঝলাম , এগুলো করা হয়েছে বন্যা পরিস্থিতিতে যেনো মানুষ একটু উচুতে দাড়িয়ে সৌন্দর্য দেখতে পারে সেজন্য !
এ ধরনের সমস্যা, ভালো সমাধানের পথও তৈরী করে। অনেকেই বাসার নিচতলাকে উচু করে কার পার্কিং করার কথা ভাবছেন। এতে করে যানজটও কমবে ভবিষ্যতে। তাছাড়া এ পানিতে ধুয়ে মুছে যাচ্ছে রাস্তা ঘাট , রাস্তায় পরে থাকা কাগজ, প্লাস্টিক বোতল,ডাষ্টবিনের ময়লা আবর্জনা , এটা খারাপ নাতো!

বিশ্বের অন্যতম ধুলিময় শহরে আজ ধুলা বালি নেই। রেস্টুরেন্ট এর খাদ্যের সাথে আজ রাস্তার বালি না মেশার কারনে, রেস্টুরেন্ট এর খাদ্যের মান সামান্য খারাপ হতে পারে, এছাড়া সব ভালোই হচ্ছে- নতুন ভাবে নির্মাণ ও সরু করা ড্রেন গুলোতে সিমেন্ট কম দেয়ায়, সেগুলো সিমেন্ট এবং তিন নাম্বার সুর্কিতে ভরাট হয়ে যাওয়ায়, জনগণ এই লক ডাউনেও জোয়ার ভাটা দেখে বিমলান্দ লাভ করছে ।

আসলে আমরা অনেক পজেটিভ চিন্তা করতে শুরু করতে পারছি এটা হচ্ছে আশার কথা। যেমন বড় বড় সৎ নেতারা আজ শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন, কারন রিজিক হচ্ছে আল্লার দান, আল্লাহ্‌ জানেন কাকে টাকা দিলে জনগন ত্রাণ পাবেন, তাই তাদেরকেই দিচ্ছেন- আগে কর্মীরা নেতাদের সততার কথা বলতেন, নেতা বিনয়াবনত চিত্তে চুপ থাকতেন, এখন নেতা নিজেই নিজেকে সৎ বলেন, কর্মীরা চুপ থাকে ! এতোটুই পার্থক্য-
তবে দেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে তা নেতাদের ও চামচাদের এবং নেতাদের পরিবারের অতি দুরের সদস্যদের গাড়ী দেখলেই বুঝা যায়, গাড়ী গুলো ঝকঝকে তকতকে। তাদের রুচিও আছে আসলে !

এগিয়ে গেছে প্রিয় কুমিল্লা। রাস্তার পাশে বড় বড় ভবন গুলো নিয়েই সামান্য দুশ্চিন্তা, এগুলো বিমান চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় কিনা ! ’’

কুমিল্লার রাস্তায় বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতার প্রতি এ কেমন শ্রদ্ধা কুসিকের ?

স্টাফ রিপোর্টার:

বিশ্বের বুকে বাঙ্গালি এমন এক জাতি যারা ভাষার জন্য একমাত্র প্রাণ দিয়েছে । আবার স্বাধীনতার জন্য ৩০ লাখ শহীদ নিজের জীবন বিলিয়ে দিয়েছে। আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সেই স্বাধীনতার মহান স্থপতি।  তাই বাংলা ভাষা, মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী আর বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকীতে সম্মান জানাতে হলে অনেক ভেবে চিন্তেই পুরোপুরি শ্রদ্ধার সাথে সম্মান জানানো উচিত। যাতে করে সম্মান জানাতে গিয়ে আবার তাদের যেন অসম্মান  না করা হয়।

কুমিল্লা নগরীর রাস্তায় ভুল বানানে  কারুকাজ করে  তেমনি একটা ঘটনা রচিত করলো কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন অংকনশালা ও শিল্পচর্চাকেন্দ্র। সহযোগিতায় রয়েছেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দার ঝড় উঠেছে।

কুমিল্লা ঈদগাহ্ সংলগ্ন রাস্তায় কারুকাজ করা হয়েছে । কারুকাজগুলোতে  দেখা গেছে  অনেক বানান ভুল। এক জায়গায় দেখা গেছে- আয়োজনে : কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশ অংকন শালা। কর্পোরেশনের জায়গায় ‘কর্পোরেশ ’ লেখা। আরেক কারুকাজে দেখা গেছে  ‘ বীর বাঙালী অস্রধর’ লেখা। মূলত এখানে হবে “ বীর বাঙালি অস্ত্র ধর” । আবার শব্দ চয়নেও ব্যাপক গরমিল দেখা গেছে। যে জাতি ভাষার জন্য রক্ত দিয়েছে, সেই জাতির গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানগুলো এখনো বানান ভুল করে।

এছাড়া তারা কেন রাস্তায় কারুকাজ করলো এ বিষয়টিও অনেককে অবাক করেছে। কারণ এতে শ্রদ্ধার দেখানোর বিপরীতে অশ্রদ্ধার চিত্রই ফুটে উঠেছে। এ রাস্তা দিয়ে পথচারিরা জুতা পড়ে হেটে যাবে। এতে কি সম্মান দেখানো হবে নাকি অশ্রদ্ধা করা হবে মহান স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুকে?  রাস্তার বদলে রাস্তার পাশের দেয়ালগুলোতে সঠিক বানান ও সঠিক শব্দ চয়নে জাতির জনক ও স্বাধীনতাকে সম্মান দেখালে তা সঠিক ও দীর্ঘায়িত হতো বলে স্থানীয় জনগণ মনে করেন। বিশেষ করে এসব নিয়ে ফেসবুকে বেশ সমালোচনার ঝড় উঠেছে ।

ফেসবুকে হাবিবুর রহমান মুন্না নামের একজন কিছু ছবি পোস্ট করে লিখেছেন-

“ প্রশ্ন রেখে গেলাম জাতীর বিবেকের কাছে??
অনেক তাজাঁ প্রাণ চলে গেছে দেশ স্বাধীন করার পেছনে?? বাংলা ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে হাজারো বাংলার দামাল ছেলেরা … তাই বলে কি তাদের এই অবদানকে আমরা অসম্মান করব …??

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম‌ শতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে  রাস্তায় এ কারূকাজ গুলো না করে দেওয়ালে বা ফেস্টুন করা উচিত ছিল। তবে রাস্তায় এ ভাবে কারূকাজ গুলো করলে সকলে এইগুলার উপর দিয়ে হাঁটাহাটি,থুঁতু ফেলবে ও গাড়ি চালাবে, দেখতে খুব একটা ভাল দেখায় না,তাছাড়া বানান ভুল, আমার কাছে মনে হয় অমর্যাদা করা হচ্ছে‌ বাংলা ভাষা কে 😌
📝✍️

এমনি অনেক কমেন্টে সমালোচনা হচ্ছে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের এমন ধরনের কাজের।

মেয়র সাক্কুকে ক্ষমা চাইতে হবে নয়তো দল থেকে পদত্যাগ করতে হবে- সংবাদ সম্মেলনে দাবি

স্টাফ রিপোর্টার:
বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন উপহাসমূলক বক্তব্য প্রদানের অভিযোগ এনে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের বিএনপি সমর্থিত মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) সকালে নগরীর ধর্মসাগরপাড়স্থ বিএনপির কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন করেছেন কুমিল্লার বর্তমান ও সাবেক ছাত্রদল নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার বলেন, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বিএনপি নেতা হয়েও বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে নিয়ে একটি মিডিয়ায় উপহাসমূলক বক্তব্য প্রদান করেন, যা আমাদের অনুভূতি ও অস্তিত্বে আঘাত এসেছে। অবিলম্বে সিটি মেয়রকে নিঃস্বার্থ ক্ষমা চাইতে হবে নয়তো দল থেকে পদত্যাগ করার দাবী জানান তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আমিরুজ্জামান আমির, সাবেক ছাত্রদল সভাপতি ও জেলা যুবদল সভাপতি ভিপি আশিকুর রহমান ওয়াসিম, সাবেক ছাত্রদল সভাপতি ও জেলা স্বেচ্ছাসেবকদল সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রদল সভাপতি ও মহানগর যুবদলের সভাপতি মোঃ উৎবাদুল বারী আবুসহ ছাত্রদলের বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।

কুমিল্লায় আজ করোনায় আক্রান্ত ৫২ জন, সিটি কর্পোরেশনেই ৩১ জন

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা জেলায় মঙ্গলবারে নতুন করে আরও ৫২ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। এ নিয়ে জেলাজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৭১২ জনে।

আজকের রিপোর্টে একজনের মৃত্যু দেখানো হয়েছে।ফলে মৃত্যুর সংখ্যা ২৪৬ জনে দাঁড়াল।

এছাড়া ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তদের মধ্যে জেলার সিটি কর্পোরেশনে ৩১ জন, আদর্শ সদরে ৪ জন, বরুড়ায় ৪ জন, ব্রাহ্মণপাড়ায় ৩ জন, চান্দিনায় ২ জন, লাকসামে ৩ জন, নাঙ্গলকোটে ২ জন, দেবিদ্বারে ১ জন, মনোহরগঞ্জে ১ জন ও দাউদকান্দিতে ১ জন।

আজকের রিপোর্টে ৩৮ জনকে সুস্থ্য দেখানো হয়েছে। সুস্থ্যরা হলেন সিটি করপোরেশনের ২৩ জন, লাকসামে ১০ জন, নাঙ্গলকোটে ৩ জন, আদর্শ সদরে ১ জন ও দেবিদ্বারে ১ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ্য হয়েছে ৭ হাজার ৮৬০ জন করোনা রোগী।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) বিকেলে এসব তথ্য জানান কুমিল্লা সিভিল সার্জন ডা: মো. নিয়াতুজ্জামান।

সিভিল সার্জন আরো জানান, এ পর্যন্ত জেলা থেকে নমুনা পাঠানো হয়েছে ৪৫ হাজার ৩৭২ জনের এবং রিপোর্ট পাওয়া গেছে ৪৪ হাজার ৮৭৮ জনের। এর মধ্যে ৮ হাজার ৭১২ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে।

কুমিল্লা শহরে নতুন করোনা শনাক্ত ২০ জনের, চান্দিনায় ৩ জন

 

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লা জেলায় নতুন করে আরও ২৩ জনের করোনা পজিটিভ সনাক্ত হয়েছে । এ নিয়ে জেলাজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৩৩৫ জনে।

শুক্রবার (২০ নভেম্বর) আজকের রিপোর্টে নতুন কোন মৃত্যু দেখানো হয়নি। ফলে মৃত্যুর সংখ্যা ২৩১ জনেই আছে।

এছাড়া ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তদের মধ্যে জেলার কুমিল্লা শহরে ২০জন, চান্দিনায় ৩ জন।
আজকের রিপোর্টে সুস্থ্য কোন দেখানো হয়েনি।

বিকেলে এসব তথ্য জানান কুমিল্লা সিভিল সার্জন ডা: মো. নিয়াতুজ্জামান।

সিভিল সার্জন আরো জানান, এ পর্যন্ত জেলা থেকে নমুনা পাঠানো হয়েছে ৪৩ হাজার ২৯৮ জনের এবং রিপোর্ট পাওয়া গেছে  ৪৩  হাজার  ১৫ জনের। এর মধ্যে ৮  হাজার ৩৩৫  জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। জেলায় করোনা এ যাবৎ মারা গেছে মোট ২৩১ জন এবং সুস্থ হয়েছে ৭  হাজার  ৪২৮ জন।

কুমিল্লা মহানগরীতে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণের ২ মাসের মধ্যে ধস

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের (কুসিক) দশ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রিটার্নিং ওয়াল নির্মাণের  দুই মাসের মধ্যেই ধসে পড়েছে। নগরীর নোয়াগাঁও চৌমুহনী থেকে বেলতলী সড়কের নোয়াগাঁও রেলগেইটের পূর্ব অংশে আনুমানিক দুইশো মিটার রিটার্নিং ওয়াল খালে ধসে পড়ে।

বৃহস্পতিবার ( ১৮ এপ্রিল) বিকেলে ঘটনাটি ঘটে।

কুসিক সূত্র জানায়, নগরীর নবাব বাড়ি চৌমুহনী থকে নোয়াগাঁও হয়ে বেলতলী ব্রিজ পর্যন্ত ৯কিলোমিটার দীর্ঘ এই রিটার্নিং ওয়ালের নির্মাণ ব্যয় প্রায় দশ কোটি টাকা। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমসিএইচএল এবং হক এন্টারপ্রাইজ যৌথ উদ্যাগে নির্মাণ কাজটি করেছেন।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বাহির থেকে দেখতে দৃষ্টিনন্দন হলেও নির্মান কাজটি যতেষ্ট নিম্নমানের এবং যাচ্ছে তাই ভাবে করা হয়েছে। নোয়াগাঁও থেকে বেলতলী পর্যন্ত বিভিন্ন জায়গায় এই রিটার্রিং ওয়াল কোথাও কোথাও বাঁকা ও ফাটোল দৃশ্যমান আছে।

কুসিকের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেছেন, ধসে পড়ার পর বৃহস্পতিবার কুসিকের প্রকৌশলীরা উক্ত স্থানটি পরিদর্শন করেছেন। সাথে ওয়াল্ডব্যাংক কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। প্রাথমিক ভাবে রেল লাইন নির্মানের ভারি যানবাহনের কারণে ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করছি। বিষয়টি তদন্ত করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।